Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

“আসানসোলের নেতার কথা শুনি না”, বিতর্কিত মন্তব্য তৃণমূলের ব্লক সভাপতির

।। প্রথম কলকাতা।।

কুলটির তৃণমূল ব্লক সভাপতির বিতর্কিত মন্তব্য ঘিরে ফের একবার রাজনৈতিক চাপানউতোর শুরু । অস্বস্তিতে ঘাসফুল শিবির কারণ একটি দলীয় সভায় কুলটির তৃণমূল ব্লক সভাপতি বিমান আচার্য সেখানে উপস্থিত দলীয় কর্মীদের উদ্দেশ্যে বলেন , তিনি আসানসোলের কোন নেতার কথা পরোয়া করেন না। রাজনৈতিক সভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে তাঁর এহেন মন্তব্য বর্তমানে ভাইরাল। যদিও ওই ভিডিও’র সত্যতা যাচাই করে নি প্রথম কলকাতা। সূত্রের খবর, ওইদিন সভামঞ্চে উপস্থিত ছিলেন কুলটির প্রাক্তন বিধায়ক উজ্জ্বল চট্টোপাধ্যায়।

ব্লক সভাপতির এহেন মন্তব্য প্রকাশ্যে আসতেই ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে । ঠিক কী বলেছিলেন তিনি? তাঁর কথায়, ” আমিও আসানসোলের নেতার কথা শুনি না, উজ্জ্বল দাও আসানসোলের নেতার কথা শোনেন না”। এছাড়াও তিনি বলেন, যদি তিনি এবং উজ্জ্বল চট্টোপাধ্যায় একজোট হয়ে যান তাহলে আসানসোলের কোন নেতাকে পরোয়া করা হবে না। যদিও পরবর্তীতে তিনি তাঁর এই বক্তব্যের সাফাই দেন। বলেন, তিনি দলীয় রাজনৈতিক সভায় এই মন্তব্য করেছেন ঠিক কথা কিন্তু তাঁর এই কথার ভুল অর্থ বের করা হচ্ছে। এমনটাই দাবি তাঁর । কারণ তিনি মন্ত্রী মলয় ঘটক কিংবা বিধান উপাধ্যায় প্রসঙ্গে এই কথা একেবারেই বলেননি। দলে বেশকিছু তৃণমূল নেতা রয়েছেন যাদেরকে তিনি বিশেষ তোয়াক্কা করতে চান না। তবে তিনি জানান, নাম উল্লেখ করে তাদেরকে তিনি ছোটও করতে চান না।

এখানেই শেষ নয় । নিয়ামতপুরের ওই দলীয় সভায় তৃণমূল ব্লক সভাপতি বিমান আচার্য আরও বেশ কিছু বিতর্কিত মন্তব্য করেন। রীতিমত দলীয় কর্মীদের হুঁশিয়ারি দিতে শোনা যায় তাকে। ২১ শে জুলাই এর সভায় বাস ভর্তি করে যদি লোক নিয়ে যেতে না পারেন কেউ তাহলে সেই ওয়ার্ডে কাজ বন্ধ করে দেওয়া হবে বলে হুমকি দেন তিনি। তিনি জানান , কুলটির প্রত্যেকটি ওয়ার্ড থেকে দু’টি করে বাস ভর্তি লোক আনতে হবে । আর যে কাউন্সিলর এই কাজ করতে পারবে না তাঁর ওয়ার্ডে কাজ বন্ধ করে দেওয়ার ব্যবস্থা করা হবে।

তৃণমূল ব্লক সভাপতি বিমান আচার্যের এই ধরনের মন্তব্য ঘিরে বর্তমানে রাজনৈতিক বিতর্ক শুরু হয়েছে। কটাক্ষ করতে ছাড়েনি বিরোধী দল বিজেপি । এদিকে কিছুদিন আগেই অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় দলীয় কর্মীদের উদ্দেশ্যে বার্তা দিয়েছিলেন যে ,২১ শে জুলাই এর সমাবেশের নামে কোথাও কোনো রকম তোলাবাজি চলবে না । এমনকি যদি নির্দেশ অমান্য করা হয় তাহলে দল থেকে তাদেরকে বহিষ্কার পর্যন্ত করা হতে পারে। আর তারই মধ্যে তৃণমূল নেতার এই বিতর্কিত মন্তব্যের ভিডিও ভাইরাল , যা নিয়ে বর্তমানে বেশ অস্বস্তিতে পড়েছে শাসকদল।

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়ায়

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories