Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

একেই বলে কার্মা, কঙ্গনার অভিশাপেই হল উদ্ধব সরকারের পতন? পুরনো ভিডিও ঘিরে জল্পনা তুঙ্গে

1 min read

।।  প্রথম কলকাতা ।।

সময়ের চাকা ঘুরবে। তুই আজ আমার ঘর ভেঙেছিস, কাল তোর অহংকার ভাঙবে।’ আজ থেকে ঠিক দুবছর আগে ২০২০ সালের ৯ সেপ্টেম্বর বেআইনি নির্মাণের অভিযোগ তুলে অভিনেত্রী কঙ্গনা রানাওয়াতের মুম্বইয়ের অফিস ভেঙে গুঁড়িয়ে দিয়েছিল BMC। যার কারণে মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরকে উদ্দেশ্য করেই এই কথা বলেছিলেন কঙ্গনা। আজ মহারাষ্ট্রের রাজনৈতিক দুরাবস্থা দেখে অনেকেরই প্রশ্ন, কঙ্গনার অভিশাপেই কি তবে উদ্ধব সরকারের পতন?

আসলে বর্তমানে মহারাষ্ট্রে চলছে চরম রাজনৈতিক সংকট। উদ্ধব ঠাকরের সরকার নিয়ে শুরু হয়েছে অলাবস্থা। শিবসেনার বিধায়ক একনাথ শিন্ডে বিদ্রোহ ঘোষণার পরই উদ্ধব সরকারকে নিয়ে টালমাটাল শুরু হয়েছে। যে কোনও মুহূর্তে ভেঙে যেতে পারে সরকার। এখনও মুখ্যমন্ত্রীর পদ থেকে ইস্তফা না দিলেও বুধবার রাতে মুখ্যমন্ত্রীর আবাস ছেড়ে নিজের পৈতৃক ভিটে ‘মাতশ্রী’তে চলে গিয়েছেন উদ্ধব ঠাকরে। আর এমন পরিস্থিতিতেই ভাইরাল কঙ্গনার বছর দেড়ের আগেকার ওই ভিডিয়ো। যা নিয়ে এখনও সোশ্যাল মিডিয়ায় জল্পনা তুঙ্গে। ভিডিও বার্তায় ঠিক কী বলেছিলেন কঙ্গনা?

ফের সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়া ভিডিওর দরুন জানা যায়, রীতিমতো তু্ই সম্মোধন করে প্রকাশ্যে কঙ্গনা উদ্ধব ঠাকরেকে বলেছিলেন, “উদ্ধব ঠাকরে, ফিল্ম মাফিয়ার সঙ্গে হাত মিলিয়ে তু্ই আমার উপর অনেক বড় বদলা নিয়ে ফেলেছিস বলে মনে করছিস? আজ আমার বাড়ি ভেঙেছে! কাল তোর অহংকার ভাঙবে! সময়ের চাকা কিন্তু ঘোরে। এই কথাটা সবসময় মনে রাখা দরকার। আজ তোর সময়। ঠিক কথা। কিন্তু, এই সময়টা সবসময় তোর সঙ্গে থাকবে না।”

কিন্তু কঙ্গনার ঘর ভাঙার কারণ কী?

ঘটনার সূত্রপাত ২০২০ সালের ১৪ জুন থেকে। এদিন প্রয়াত হন অভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপুত। অভিনেতার মৃত্যুর পর থেকেই বি-টাউনে নেপোটিজম বিতর্ক মাথাচাড়া দিয়ে ওঠে। সেই সময় বলিউডের বেশ কিছু প্রযোজক, পরিচালক এবং নামকরা অভিনেতাকে একহাত নিয়েছিলেন কঙ্গনা। নেপোটিজমের শিকার হয়ে বহু প্রতিভাবান উঠতি অভিনেতারা অভিনয়ের সুযোগ পান না, এমনটাই অভিযোগ ছিল অভিনেত্রীর। প্রায়শই এই বিষয়ে ট্যুইট করতেন কঙ্গনা।

আর সেসবের মাঝেই অভিনেত্রীর বিরুদ্ধে উঠেছিল বেআইনি অফিস গড়ার অভিযোগ।BMC-র পক্ষ থেকে কঙ্গনার মুম্বই অফিস ভেঙে গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়। প্রশাসন স্পষ্ট জানিয়ে দেয়, ওই অফিসটি বেআইনিভাবে নির্মাণ করা হয়েছিল। সেসময়ই ট্যুইটে এমন কড়া ভাষায় আক্রমণ করেছিলেন মহারাষ্ট্র সরকারকে।একই সাথে ভাইরাল হাওয়া অপর এক ভিডিয়োয় কঙ্গনাকে বলতে শোনা গিয়েছিল, ‘ইতিহাস সাক্ষী আছে যখনই কেউ কোনও নারীর অপমান করেছে তখনই তাঁর পতন নিশ্চিত।

যেমন, রাবণ সীতাকে অপমান করেছিল, কৌরবরা দ্রৌপদীর অস্মিতা হরণের চেষ্টা করেছিল তাঁদের নিমূল হয়েছে। আমি ওইসব মহান নারীদের ধারে কাছে নেই, তবে আমিও নারী। নিজেকে রক্ষার চেষ্টাই আমি করেছি। আমি বিশ্বাস করি নারীকে অসম্মান করতে তোমার বিনাশ আসন্ন’। বর্তমানে কঙ্গনার বলা এমন কথাই যেন উদ্ধব ঠাকরের জন্য সত্য। তাই তাঁর এমন পরিস্থিতিতে কঙ্গনার মন্তব্য নিয়েই সোশ্যাল মিডিয়ায় পড়েছে শোরগল।

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়ায়

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories