Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

Renu khatun: ” এটা কোন ভুল নয়, বড় পাপ”, স্বামীর যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের দাবি রেণুর

1 min read

।। প্রথম কলকাতা।।

স্ত্রী সরকারি নার্সের চাকরি পেয়েছে বলে তাকে উপযুক্ত শাস্তি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল স্বামী । কোনমতেই যাতে চাকরিতে যোগ না দিতে পারে তার জন্য তাঁর ডান হাতের কব্জি থেকে কেটে নেওয়া হয় । আর এই কাজের জন্য ভাড়াটে দুষ্কৃতী এনেছিল তাঁর স্বামী, সহযোগিতা করেছিল স্বামীর মাসতুতো ভাই। কিন্তু তারপরেও জীবনযুদ্ধে হার মানেনি রেণু। তিনি গতকাল পূর্ব বর্ধমানের মুখ্য জেলা স্বাস্থ্য দপ্তরে কাজে যোগদান করেন এবং নিজের দায়িত্ব বুঝে নেন। আজ কাটোয়া আদালতে তাঁর গোপন জবানবন্দি নেওয়ার জন্য তাকে নিয়ে আসা হয়েছিল। আদালত থেকে বেরোনোর সময় সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে রেণু তাঁর স্বামীর কৃতকর্মের জন্য যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের দাবি জানান।

তিনি বলেন, ” এটা কোন ভুল নয় ,বড় পাপ। সম্পূর্ণ পরিকল্পনা করে করা হয়েছে । যারা যারা এই ঘটনার সঙ্গে যুক্ত ছিলেন সকলেরই যাবজ্জীবন কারাদণ্ড চাই আমি”। এদিন তিনি আদালতে ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে গোপন জবানবন্দি দেওয়ার সময় স্পষ্ট জানিয়ে দেন যে, পরিস্থিতি যেমনই হোক না কেন, কোন মতেই স্বামীর কাছে তিনি ফিরে যেতে চান না। যে ঘটনা তাঁর সাথে ঘটেছে তা ভোলা কখনই সম্ভব নয়। যার কারণে স্বামীর দিক থেকে মুখ ফিরিয়েছেন রেণু। কোনমতেই আর স্বামীর সঙ্গে সংসার নয়, এমনটাই তিনি জানিয়েছেন বলে সূত্রের খবর।

কেতুগ্রামের বাসিন্দা রেণু এর আগেও বেসরকারি বেশ কয়েকটি নার্সিংহোমে নার্সের কাজের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। এরপর সরকারি নার্সিং চাকরির পরীক্ষা দেন তিনি। উত্তীর্ণ হন কিন্তু স্ত্রী এই সফলতা ভালো চোখে দেখেননি শের মহম্মদ । তাঁর ধারণা ছিল হয়তো স্ত্রী সরকারি চাকরি পেলে সংসারে মন বসবে না তাঁর । যে কারণে মাসতুতো ভাই সহ গুণ্ডাদের নিয়ে তাঁর ডান হাত কব্জি থেকে কেটে নেন। কেতুগ্রামে তাদের বাড়িতে ওই ঘটনার পুনর্নির্মাণ করার জন্য নিয়ে যাওয়া হয় শের মহম্মদকে। সেখানে তিনি জানান যে, রেণুর চাকরি নিয়ে কখনই কোন সমস্যা ছিল না তাঁর কিন্তু বিবাহ-বহির্ভূত সম্পর্কের জন্যই তাকে এই শাস্তি দেওয়া হয়েছে।

তবে এই প্রসঙ্গে রেণু খাতুন জানান, নিজেকে বাঁচানোর জন্য এখন এই ধরনের কথা বলছে সে। দোষীরা যাতে কোনোভাবেই জেলের বাইরে না বের হতে পারেন এমন দাবিও জানান রেণু। অন্যদিকে রেণুর পরিবারের তরফ থেকে জানানো হয়েছিল যে তাঁর কখনই কোনো বিবাহবহির্ভূত সম্পর্ক ছিল না । আগাগোড়াই রেণুর চাকরি নিয়ে সমস্যা ছিল তাঁর স্বামীর । রেণুর সমস্ত সার্টিফিকেট পর্যন্ত লুকিয়ে রাখার মতন কাজ করেছিল সে। বর্তমানে নিজেকে বাঁচানোর জন্য এই বিবাহ-বহির্ভূত সম্পর্কে মিথ্যে গল্প তৈরি করেছে শের মহম্মদ। তবে এতকিছুর পরেও রেণুর নতুন পথ চলা শুরু। গতকালই তিনি নার্সিং গ্রেড ২ তে যোগদান করেছেন। আর নিজের দায়িত্ব পালন করতে কোথাও তিনি খামতি রাখবেন না , এমনটাও জানিয়ে দিয়েছেন।

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়ায়

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories