Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

একেবারে উল্টোপুরাণ! বিশ্বভারতীর তালা ভেঙে অফলাইনে পরীক্ষা দিতে ঢুকলেন পড়ুয়ারা

1 min read

।। প্রথম কলকাতা।।

রাজ্যে করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসার পরে সমস্ত স্কুল-কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়গুলিতে খুলে দেওয়া হয়েছে। সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান গুলি পুনরায় অফলাইন পদ্ধতিতে ফিরে আসার চেষ্টা করছে । যার কারণে পরীক্ষা গুলিও অফলাইনে নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ । কিন্তু সেই সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করেছেন বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়াদের একাংশ। যার কারণে গত দু’দিন ধরে বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীরা পরীক্ষা বয়কট করে বিক্ষোভ দেখান, গেটের তালা দিয়ে দেন তাঁরা। তবে বুধবার বিশ্বভারতী চত্বরে একেবারেই উল্টো চিত্র চোখে পড়ল।

যেখানে অনলাইনে পরীক্ষা দেবার জন্য এত আন্দোলন-বিক্ষোভ পড়ুয়াদের, সেইখানেই পড়ুয়াদের একাংশ অফলাইন পরীক্ষা দেবার জন্য রীতিমত বিশ্বভারতীর গেটের তালা ভেঙে তারপরে ভেতরে ঢুকলেন। আর তা করতে গিয়ে বিক্ষোভকারী পড়ুয়াদের সঙ্গে বচসা বাঁধে অফলাইনে পরীক্ষা দিতে চাওয়া পড়ুয়াদের । রীতিমত ধস্তাধস্তি হয় সেখানে। আজ সকালে বিশ্বভারতী সমাজকর্ম বিভাগে এই ধুন্ধুমার কাণ্ড ঘটে। অফলাইনে পরীক্ষা দিতে ইচ্ছুক পড়ুয়াদেরকে বাধা দেওয়ায় রীতিমত ধস্তাধস্তি বাঁধে বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে।

এদিন বিশ্বভারতীর বেশ কয়েকটি বিভাগের চূড়ান্ত বর্ষের ছাত্রছাত্রীদের পরীক্ষা ছিল। বিগত দু’দিন ধরে বারবার পরীক্ষা বয়কট করে বিক্ষোভ দেখানোর চেষ্টা করেছেন অনলাইনে পরীক্ষা দিতে চাওয়া পড়ুয়ারা। তবে বুধবার সকালে অফলাইনে পরীক্ষা দিতে চাওয়া পড়ুয়ারা রীতিমত গেটের তালা ভেঙে ভেতরে প্রবেশ করেন। আর তারপর নির্ধারিত বিভাগে পরীক্ষা দেন তাঁরা। করোনাকালীন পরিস্থিতিতে দীর্ঘ দুই বছর পড়াশোনা অনলাইন মাধ্যমে চলেছে। একপ্রকার বাধ্য হয়ে রাজ্য সরকারকে এই সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছিল। তবে সেই অনলাইন মাধ্যম থেকে বেরিয়ে আসতে চাইছেন না অধিকাংশ পড়ুয়ারা। যার কারণে বারবার অফলাইনে পরীক্ষা নেওয়ার বিষয়টিকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে বিক্ষোভ দেখা যাচ্ছে তাদের।

একইরকম ভাবে কয়েকদিন পূর্বে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়ারা ধর্নায় বসেছিলেন । তাদের অভিযোগ ছিল সিলেবাস সম্পূর্ণ হয়নি তাই তাঁরা অনলাইন পরীক্ষার দাবি করছেন । সেই মতো পরিস্থিতিতে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ স্পষ্ট জানিয়ে দেন যে, যদি সিলেবাস সম্পূর্ণ না হয়ে থাকে তাহলে অধ্যক্ষরা স্পেশাল ক্লাস নিয়ে তা সম্পূর্ণ করে দেবেন কিন্তু কোনমতেই এই পরিস্থিতিতে অনলাইন পরীক্ষার সুযোগ দেওয়া হবে না পরীক্ষার্থীদের।

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়ায়

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories