Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

‘যোগ হল শিরক ‘ , ট্যুইটারে যোগাভ্যাস করতে বারণ ইসলামপন্থীদের ! শুরু তুমুল বিতর্ক

1 min read

।। প্রথম কলকাতা ।।

২১শে জুন বিশ্বের বেশিরভাগ দেশেই পালিত হয় আন্তর্জাতিক যোগ দিবস। কিন্তু এই দিনটিকে কেন্দ্র করে শুরু হল বিতর্ক। শুধু তাই নয়, যোগ দিবস পালনকে কেন্দ্র করে চলল হামলা। মালদ্বীপের ন্যাশনাল ফুটবল স্টেডিয়ামের এই দিন বহু মানুষ জড়ো হয়েছিলেন কিন্তু সেই সমস্ত প্ল্যানিং বানচাল হয়ে যায়। বিক্ষোভকারীদের দাবি অনুযায়ী , মুহূর্তের মধ্যে ওই যোগাভ্যাস বন্ধ করতে হবে । এককথায় সেই সময় চূড়ান্ত বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি তৈরি হয়েছিল। কট্টরপন্থী ইসলামিকদের বিশ্বাস অনুযায়ী , যোগাসন হল ইসলাম ধর্মের শিরক। এক্ষেত্রে ইসলাম ধর্মের ভাবাবেগে আঘাত করা হয়েছে। আসলে ইসলাম ধর্ম অনুযায়ী , কোন পুজো বা উপাসনা করা নিষিদ্ধ বলে মনে করা হয়। সেক্ষেত্রে যোগাসনের ক্ষেত্রে সূর্যের উপাসনা করা হয়। আর এই বিষয়টি কেন্দ্র করে বহু কট্টরপন্থীদের মধ্যে বিতর্ক তৈরি হয়। এমনকি তাদের মন্তব্য ট্যুইট বার্তার মাধ্যমে জানিয়েছেন। শিরক বলতে বোঝায় অংশীদার করা কিংবা কারোর সহযোগী বানানো। কোন ব্যক্তি বা বস্তুকে আল্লাহর সমকক্ষ কিংবা সহযোগী করাকে শিরক বলা হয় , যা ইসলাম ধর্ম অনুযায়ী গুরুতর অপরাধ।

মঙ্গলবার বিশ্বের প্রায় ১৭৭টি দেশ যখন আন্তর্জাতিক যোগ দিবস উদযাপন করছে, তখন সোশ্যাল মিডিয়া জুড়ে ইসলামপন্থীরা যোগকে প্রাচীন হিন্দু অনুশীলন মনে করে নানান ধরনের মন্তব্য তুলে ধরেছেন। ট্যুইট বার্তার মাধ্যমে বহু ব্যবহারকারী ‘ইয়োগা হল শিরক’, এবং ‘যোগ ইসলাম নয়’-এর মতো যুক্তি দিয়ে, ট্যুইটারে ইসলামপন্থীরা এই অভ্যাস অনুসরণ না করার জন্য অনুরোধ করেছেন।

মালদ্বীপে আন্তর্জাতিক যোগ দিবস উদযাপনের সময় বিশৃঙ্খলা তৈরি হয়। এছাড়াও, দেশটির ইসলামপন্থীদের ট্যুইটারে ঘটনাটিকে ‘মুসলিম-বিরোধী’ হিসেবে মন্তব্য করতে দেখা গিয়েছে। মালদ্বীপের এই আয়োজনে ধর্ম নির্বিশেষে সবাইকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল। একজন ট্যুইটারব্যবহারকারী বলেছেন যে ,যোগব্যায়াম শিরক এবং ইসলামকে অবমাননা করার জন্য এই অনুষ্ঠানটি অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

মঙ্গলবার মালদ্বীপের ইসলামপন্থীরা ভারতীয় হাইকমিশনের দ্বারা আয়োজিত যোগ দিবসের অনুষ্ঠানে বাধা দেওয়ার চেষ্টা করেছিল। সোশ্যাল মিডিয়ায় যখন চরমপন্থী কর্মকাণ্ডের নিন্দা করা হয়েছিল, তখন কেউ কেউ প্রতিক্রিয়া হিসাবে যোগ করার কাজটিকেই ‘চরমপন্থী’ বলে অভিহিত করেছিলেন। এছাড়াও অনেকে এই ধরনের বিতর্ক নিয়ে উদ্বিগ্ন প্রকাশ করেছেন।

এছাড়াও বেশ কয়েকটি ট্যুইটে মুসলিমদের যোগব্যায়াম আসলে কী তা শিখতে এবং এই শিরক থেকে দূরে থাকতে বলেছে। পরে থ্রেডে, ব্যবহারকারী উল্লেখ করেছেন যে মহাভারতে যোগের প্রশংসা করা হয়েছে এবং ভগবান শিব সর্বদা যোগিক ভঙ্গিতে বসে থাকেন। হিন্দু গুরুদের বেশ কয়েকটি ক্লিপ ট্যুইটারে পোস্ট করা হয়েছে যাতে প্রমাণ করা হয়, কীভাবে যোগ ইসলাম এবং আল্লাহর বিরুদ্ধে।

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়ায়

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories