Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

ফের কংগ্রেসের রাজভবন অভিযানে ধুন্ধুমার, পুলিশের সঙ্গে ধ্বস্তাধস্তিতে আটক বেশ কয়েকজন

1 min read

।।প্রথম কলকাতা।।

লাগাতার রাহুল গান্ধীকে ইডির তলব নিয়ে দেশজুড়ে প্রতিবাদ চালাচ্ছে কংগ্রেস। গতকালের পর আজ ফের রাজভবন অভিযান ছিল কংগ্রেসের। আর আজকেও গতকালেরই পুনরাবৃত্তি। নির্দিষ্ট সময়েই সকলে উপস্থিত হয়ে রাজভবনের সামনে বিক্ষোভ দেখাচ্ছিলেন কংগ্রেস কর্মী সমর্থকরা। গতকালকেও পুলিশের সঙ্গে বাকবিতন্ডায় জড়িয়ে পড়েন তারা। আজকেও পুলিশ বাধা দিতে গেলে তৈরি হয় ধুন্ধুমার পরিস্থিতি। অবস্থা নিয়ন্ত্রণে বেশ কয়েকজনকে আটক করা হয়েছে।

এদিন দেখা যায় রাস্তায় বসে তারা বিক্ষোভ দেখাচ্ছেন। কিন্তু রাজভবনই কেন? তারা জানান রাজ ভবন মানে মোদী সরকারের প্রতিনিধি স্থল তাই এখানেই তারা বিক্ষোভ দেখাবেন ইডির এই হেনস্থার প্রতিবাদে। দলের শীর্ষ নেতৃত্বের বিরুদ্ধে কেন্দ্রীয় সরকার তথা বিজেপির প্রতিহিংসামূলক রাজনীতির প্রতিবাদে গোটা দেশেই বিক্ষোভ জারি। সোমবার বিধাননগরে ইডি-র দফতরে বিক্ষোভের পরে মঙ্গলবার রাজভবনের সামনেই বিক্ষোভ দেখান কংগ্রেসের কর্মী-সমর্থকেরা। তবে সেই কর্মসূচি ছিল দলের নেতা-কর্মীদের নিজস্ব উদ্যোগে। আনুষ্ঠানিক ভাবে প্রদেশ কংগ্রেস, বুধবার রাজভবন অভিযানের ডাক দেয়। তবে গতকালের পর আজ ফের পথে নামল কংগ্রেস।

আজকের এই অভিযান নিয়ে বুধবার দলের তরফে সৌম আইচ রায় প্রেস বিবৃতি দিয়ে জানান, “পশ্চিমবঙ্গ প্রদেশ কংগ্রেসের সভাপতি সম্মানীয় শ্রী অধীর রঞ্জন চৌধুরী, এমপি -র নির্দেশনায়, বৃহস্পতিবার সারা দেশের সাথে সাথে পশ্চিমবঙ্গেও কংগ্রেসের শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হবে”। বৃহস্পতিবার দুপুর থেকে শুরু হয় এই বিক্ষোভ। বিজেপি শাসিত কেন্দ্রীয় সরকারের দ্বারা সিবিআই-ইডি কে ব্যবহার করে রাজনৈতিক স্বার্থ চরিতার্থ করার বিরুদ্ধে। ব্যাঙ্কশাল কোর্টের সামনে থেকে এই মিছিলের জমায়েত শুরু হয়। তারপর রাজভবনের সামনে গিয়ে তৈরি হয় উত্তাল পরিস্থিতি।

দিল্লিতে কংগ্রেসের দলনেতা অধীর রঞ্জন চৌধুরী সহ কংগ্রেসের শীর্ষ নেতাদের গ্রেফতার করা হচ্ছে অনৈতিক ভাবে। এসবের প্রতিবাদে বুধবার পশ্চিমবঙ্গ প্রদেশ কংগ্রেসের পক্ষ থেকে রাজভবন অভিযানের ডাক দেওয়া হয়েছিল। এই অভিযান চলাকালীন পু্লিশ আন্দোলনকারীদের বিনা অপরাধে গ্রেফতার করে। কংগ্রেস নেতা অসিত মিত্র, কৃষ্ণা দেবনাথ, আশুতোষ চ্যাটার্জী, সুমন পাল, প্রদীপ প্রসাদ সহ অসংখ্য কংগ্রেস নেতা-কর্মীকে গ্রেফতার করা রাখা হয়।

কংগ্রেসের কর্মসূচিকে কটাক্ষ করে তৃণমূল কংগ্রেস বলেছে, “এ রাজ্যে তৃণমূলের নেতাদের পিছনে ইডি-সিবিআই এলে কংগ্রেস তখন প্রতিবাদ না করে সমর্থন করে। তাই কংগ্রেস এখন দ্বিচারিতা করছে। তার প্রেক্ষিতে প্রদেশ কংগ্রেস নেতা শুভঙ্কর সরকার বলেছেন, ‘‘মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আগে বলেছিলেন, তার দলের নেতাদের কেন্দ্রীয় সংস্থা ডাকে কিন্তু কংগ্রেসের শীর্ষ নেতৃত্বকে তো কিছু বলে না।

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়ায়

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories