Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

কাশ্মীরে আটকে বাংলার জখম শ্রমিক, তৃণমূলের বদলে সাহায্যের হাত বাড়ালো ‘মিম’

1 min read

। প্রথম কলকাতা।।

পরিযায়ী শ্রমিক হিসেবে কাজ করতে মালদার বেশ কয়েকজন এবং উত্তর দিনাজপুরের একজন গিয়ে পৌঁছে ছিল কাশ্মীরে।তবে সেখানে তাঁরা একটি দুর্ঘটনার কবলে পড়েন। চলতি মাসের ১৫ তারিখে কাশ্মীরে একটি ট্রাক উল্টে মৃত্যু হয় মালদার এক যুবকের। এছাড়াও গুরুতর আহত হন বাকিরা। সেই আহত শ্রমিকদেরকে বাড়ি ফিরিয়ে নিয়ে আসার জন্য মালদার জেলার সভাপতি তথা তৃণমূল বিধায়ক আব্দুর রহিম বক্সি এর কাছে আবেদন জানিয়েছিলেন স্থানীয় পঞ্চায়েত সদস্য। তবে দলের তরফ থেকে কোনো রকম সহযোগিতা পাওয়া যায়নি। অন্যদিকে, এলাকার মিম(AIMIM) নেতা তথা উত্তরবঙ্গ জোনের মিম সভাপতি মতিউর রহমানের কাছে এই ঘটনার কথা জানালে তিনি এক ঘণ্টার মধ্যে ওই জখম শ্রমিকদেরকে বাড়ি ফিরিয়ে নিয়ে আসার ব্যবস্থা করে দেন।

মজিবুর রহমান নামে এক ব্যক্তি জানান, ঈদের পরের দিন মালতিপুরের গোয়ালপাড়ার আনিসুর রহমান, মজিবুর রহমান, ইস্তাব আলি, সইদুর রহমান , জাক্কার আলি, আবুল কালাম, আনিসুল ইসলাম এবং গোলাম মর্তুজারা কাশ্মীরে ধান রোপন করার কাজে গিয়েছিলেন । আর সেখানে ধানের বীজ ট্রাকে করে নিয়ে যাওয়ার সময় উল্টে যায় ট্রাক। মৃত্যু হয় নবাব শরিফ নামে এক যুবকের । বাকিরা গুরুতর আহত হন। তাদেরকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় বিএসএফ জওয়ানরা স্থানীয় হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যায়। এই ঘটনার কথা জানাজানি হতেই পরিবারগুলি উদ্বিগ্ন হয়ে ওঠেন।

তারপর স্থানীয় শাসক দলের পঞ্চায়েত সদস্যকে সাথে নিয়ে সেই পরিবারের লোকেরা তৃণমূলের জেলা সভাপতি আব্দুর রহিম বক্সির কাছে সাহায্যের আবেদন জানান। কিন্তু তিনি তেমন কোনো সাহায্য করেননি বরং ওই শ্রমিকদেরকে বাড়ি ফেরানোর জন্য ৫ হাজার টাকা দিতে চেয়ে ছিলেন । পাশাপাশি তিনি এই ঘটনার রিপোর্ট চান। কিন্তু সেক্ষেত্রে অনেক দেরি হয়ে যাবে ভেবে ফিরে চলে আসেন তাঁরা। আর তারপর সাহায্য চান স্থানীয় মিম নেতা মতিউর রহমানের কাছে।

তিনি সঙ্গে সঙ্গে ফোন করেন আসাউদ্দিন ওয়াইসিকে। আর তারপর নয় জন শ্রমিককে বাড়ি ফিরিয়ে নিয়ে আসার সমস্ত ব্যবস্থা করা হয়। বুধবার সেইসব শ্রমিকরা বাড়িতে ফিরে আসেন । যার ফলে রীতিমতো খুশি সেই শ্রমিকদের পরিবারের লোকেরা। এই প্রসঙ্গে মালদা জেলার তৃণমূল সভাপতি তথা বিধায়ক আব্দুর রহিম বক্সি বলেন, তিনি জেলার মানুষের সহযোগিতা করেন সেটা মানুষ জানে। আর এই শ্রমিকদেরও তিনি সহযোগিতা করতে চেয়েছিলেন কিন্তু গোয়ালপাড়ার কিছু মানুষ মিম পার্টির কবলে পড়েছে। আর তার জন্য তিনি সাহায্য করার সুযোগ পাননি। তবে নিহত এবং জখম শ্রমিকদের সঙ্গে অবশ্যই দেখা করতে যাবেন তিনি এমনটাই জানালেন।

অন্যদিকে, উত্তরজোনের মিম সভাপতি মতিউর রহমান বলেন, তাঁরা শুধু মাধ্যম মাত্র সাহায্য করার । পরিযায়ী শ্রমিকদের পাশে তাঁরা সর্বদা ছিলেন। লকডাউনে বহু পরিযায়ী শ্রমিক কে বাড়ি ফেরানোর উদ্যোগ নিয়েছিলেন তাঁরা । আর এবারও শ্রমিকদেরকে বাড়ি ফিরিয়ে আনলেন। তাদের পরিবারের মুখে হাসি ফুটিয়ে খুশি তাঁরাও। তবে এই ঘটনা প্রসঙ্গে স্থানীয় বিজেপি নেতৃত্ব শাসক দলকে কটাক্ষ করে বলেন, যারা শাসকদলের পঞ্চায়েত সদস্য তাঁরাই যদি সাহায্য না পায় তাহলে সাধারন মানুষ সাহায্য পাবে তার কোনো ভরসা নেই। আর সেটা গোয়ালপাড়ার ঘটনায় স্পষ্ট হয়ে গেল বলে দাবি তাঁর।

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়ায়

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories