Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

জাঙ্ক ফুডে অভ্যস্থ হয়ে দিনে দিন বাড়ছে ওজন! জেনে নিন কী করবেন

|| প্রথম কলকাতা ||

খাওয়া মাত্রই হল অবিরাম তাগিদ নিয়ে গঠিত এক প্রক্রিয়া। এটি যদিও যতটা সহজ শোনাচ্ছে ততটা সহজ নয়। কখনও কখনও খাবার বা খাদ্যাভ্যাস অনিয়ন্ত্রিত হয়ে উঠতে পারে এবং খুব কম সময়ে এক হাজারের বেশি ক্যালোরি বাড়াতে পারে। জাঙ্ক ফুড খাওয়া বেশিরভাগ ক্ষেত্রে শারীরিক গঠন স্বাস্থ্য ভাঙার কাজ করে। পুষ্টিবিদ অঞ্জলি মুখোপাধ্যায় তার ইনস্টাগ্রাম পোস্টে তার ইনস্টাগ্রাম অনুরাগীদের জন্য সহজ শর্তে খাবারের তালিকা প্রস্তুত করে দিয়েছেন। তিনি লিখেছেন, “জীবনের কোনো না কোনো সময়ে আমাদের সকলেরই মানসিক চাপের অভিজ্ঞতা হয়, যা আমাদের নিয়ন্ত্রিত খাওয়ার ধরণকে বিপর্যস্ত করে এবং ওজন কমানোর জন্য আমাদের সমস্ত প্রচেষ্টাকে মুছে দেয়। রাগান্বিত ফোন কল, কোনো উৎসব, বাচ্চাদের পরীক্ষা, আপনার স্ত্রীর সাথে তর্ক বা আপনার শাশুড়ির সাথে মতের মতপার্থক্য আপনার নিয়ন্ত্রণহীন জিহ্বাকে আরও নিয়ন্ত্রণহীন করতে পারে যা শরীরের ক্ষতি করতে পারে।”

অঞ্জলি মুখোপাধ্যায়, সেক্ষেত্রে কীভাবে জাঙ্ক ফুড খাওয়া নিয়ন্ত্রণে রাখতে হবে এবং এটি সম্পূর্ণভাবে কমাতে হবে তার কয়েকটি উপায় ব্যক্ত করেছেন। কি সেগুলো? খাবারের সময়: খাবারের সময় নির্দিষ্ট করা এবং তা মেনে চলা ওজন কমাতে সাহায্য করতে পারে। উপযুক্ত সময় খাবার খেলে খাবারের চাহিদা বাড়ে না এবং এটি জাঙ্ক ফুড ধরণের খাবার বন্ধ করতে আরও সাহায্য করবে।

কেক এবং পেস্ট্রি এড়িয়ে চলুন: কেক এবং পেস্ট্রির মতো জিনিস বাড়িতে রাখা থেকে বিরত থাকতে হবে। বেশি পরিমাণে খাওয়ার ক্ষেত্রে বাদাম এবং কিশমিশ খাওয়া যেতে পারে। বাদামে থাকা প্রোটিন এবং কিশমিশ হজমে সাহায্য করে।

শস্য এবং ডাল: গোটা শস্য এবং ডাল খাদ্যে ফাইবার এবং জটিল কার্বোহাইড্রেট যোগ করে। ফলে অনেকক্ষন অবধি পেট ভর্তি থাকে এবং এগুলি আরও দ্বিগুণ কার্যকরী ওজন কমাতে।

ব্যায়াম: যদি জাঙ্ক ফুড জাতীয় খাবার নিয়ন্ত্রণ করতে না পারেন, তাহলে ব্যায়ামের মাধ্যমে ক্যালোরি বার্ন করাই ভালো।

খাবার: সারা দিন খাবার খাওয়ার সাধারণ নিয়মের মধ্যে রয়েছে সময়মতো সকালের জলখাবার খাওয়া, মধ্যাহ্নভোজন করা এবং ঘুমানোর অন্তত তিন ঘণ্টা আগে হালকা রাতের খাবার খাওয়া।

বিকল্প: আপনি যদি উচ্চ ক্যালোরিযুক্ত কিছু খাবার খেয়ে থাকেন তবে ক্যালোরির ভারসাম্য বজায় রাখার জন্য পরবর্তী খাবারটি ফল দিয়ে প্রতিস্থাপন করুন।

লক্ষ্য ওজন: ওয়ার্কআউটকে জীবনের একটি অবিচ্ছেদ্য অংশ করুন এবং লক্ষ্য ওজনে না পৌঁছানো পর্যন্ত থামবেন না।

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়ায়

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories