Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

বউবাজারের ছায়া সোনারপুরে, নির্মাণ কার্যের গেরোয় ফাটল একেরপর এক বাড়িতে

।। প্রথম কলকাতা।।

মেট্রো বিপর্যয়ের ফলে বউবাজারের দুর্গাপিতুরি লেনে যে ঘটনা ঘটেছে সেই আতঙ্ক এখনও পর্যন্ত সেখানকার বাসিন্দারা কাটিয়ে উঠতে পারেননি । আর এরই মধ্যে আরও একবার বহুতল নির্মাণের কাজের জেরে ফাটল ধরল এলাকার একাধিক বাড়ি এবং এলাকার একমাত্র বিদ্যালয়ে। এই ঘটনাটি রাজপুর সোনারপুর পৌরসভার ২৪ নম্বর ওয়ার্ডের চৌহাটি এলাকার। সেখানে একটি বেসরকারি সংস্থা বহুতল নির্মাণের কাজ শুরু করেছে। আর সেই নির্মাণ কাজের জন্য তাঁরা যে মেশিন গুলো ব্যবহার করছে সেই মেশিনের জোরালো শব্দ এবং কম্পনের ফলে আশেপাশে থাকা বাড়িগুলিতে ফাটল ধরছে।

যার ফলে স্থানীয়দের তরফ থেকে লিখিত অভিযোগ জানানো হয়েছিল পুরসভায়। কিন্তু তাতে কোন কাজ হয়নি বলেই জানিয়েছেন তাঁরা। অন্যদিকে ওই সংস্থার দায়িত্বপ্রাপ্ত আধিকারিক এবং পুলিশ ক্ষতিগ্রস্ত স্থানীয় বাসিন্দাদের সঙ্গে একটি বৈঠকে বসতে চাইলে স্থানীয় বাসিন্দারা তাতে আপত্তি জানান। সোনারপুর থানার আইসির তরফ থেকে বলা হয় যে যারা এই ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন তাদের ক্ষতিপূরণ দেবে ওই সংস্থা। স্থানীয় কাউন্সিলর রাজীব পুরোহিত বলেন, কোম্পানির তরফ থেকে ক্ষতিপূরণের বিষয়টি মেনে নিয়েছে স্থানীয় বাসিন্দারা।

রুমাইয়া খান নামে এক স্থানীয় জানান, ওই সংস্থা তাদের প্রজেক্টের কাজ করার জন্য যে মেশিনগুলি এনেছে সেই মেশিনের শব্দ অত্যন্ত তীব্র । সারাদিন ধরে সেই মেশিন চলছে । তার উপরে সবথেকে বড় সমস্যা হয়েছে ওই মেশিনের কম্পনের জন্য তাদের বাড়িগুলিতে ফাটল ধরেছে। এমনকি খাটে শুলেও সেই কম্পন অনুভব করছেন তাঁরা । যার ফলে রীতিমতো বিরক্ত স্থানীয় বাসিন্দারা । তাদের দাবি, পৌরসভায় লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে । যত দ্রুত সম্ভব ওই মেশিন দিয়ে কাজ বন্ধ করা হোক। তাদের বাড়িগুলি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে জেনেও ওই সংস্থা তাদের কাজ বন্ধ করেনি, এমনটাই জানালেন তিনি।

এই বাড়িগুলিতে ফাটল ধরার প্রসঙ্গে সিপিএম নেতা সুজন চক্রবর্তী যিনি নিজে সোনারপুরের বাসিন্দা তিনি বলেন, একটি প্রাইভেট কম্পানির চৌহাটি এলাকায় এই নির্মাণ কাজ শুরু করেছে। আশে পাশের বাড়িতে ফাটল ধরেছে অথচ তাদের কোনো হেলদোল নেই। এই বিষয়ে পুরসভা এবং আর্বান ডেভেলপমেন্ট দপ্তর এর ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলতে দেখা যায় তাকে। পাশাপাশি এই ঘটনায় পুলিশের ভূমিকা নিয়ে তীব্র সমালোচনা করেন তিনি। তিনি বলেন ওসি বা সাব ইন্সপেক্টরের কাজ টাকা দিয়ে রফা করে দেওয়া নয় । আশেপাশের মানুষের এই বিপদের সময়ে তাদের হাতে টাকা তুলে দিয়ে রফা করার চেষ্টা চালাচ্ছে পুলিশ। তাদের কাজ অভিযোগ খতিয়ে দেখা, সালিশি সভা করা নয় বলেই জানালেন এই সিপিএম নেতা। আশেপাশের বেশ কয়েকটি বাড়ি এদিন পরিদর্শন করতে আসেন ওই কোম্পানির দায়িত্বপ্রাপ্ত ইঞ্জিনিয়ার। তবে তাঁরা এই বিষয়ে কোন রকম মন্তব্য করেননি বলে জানা গিয়েছে।

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়ায়

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories