Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

বাংলাদেশ ব্যাঙ্ক প্রতারণাকাণ্ডে কালিমালিপ্ত হচ্ছে অশোকনগর, প্রতিবাদে পথে নামল বামেরা

1 min read

।। প্রথম কলকাতা।।

বাংলাদেশ এনআরবি গ্লোবাল ব্যাঙ্কের প্রাক্তন ম্যানেজিং ডিরেক্টর পি কে হালদারকে সম্প্রতি গ্রেফতার করেছে ইডি । কারণ তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে প্রায় কয়েক হাজার কোটি টাকা প্রতারণার। যদিও বিগত বেশ কয়েক বছর ধরে তিনি উত্তর ২৪ পরগনার অশোকনগরে পরিবারসহ বসবাস করছেন । তবে বাংলাদেশ ব্যাঙ্ক জালিয়াতির ঘটনায় অভিযুক্ত পিকে হালদারসহ তাঁর পরিবারের সদস্যদেরকেও গ্রেপ্তার করেছে ইডি। এই ঘটনায় বারবার অশোকনগরের নাম উঠে আসছে, যার কারণে সেখানকার সিপিএম কর্মীদের ধারণা এই ধরনের দুর্নীতিপরায়ণ লোকেরা শাসক দলের মদতে আস্তানা তৈরি করেছে সেখানে। আর যার ফলে বর্তমানে অশোকনগরের নাম কালিমালিপ্ত হচ্ছে।

এর প্রতিবাদ করতে সোমবার সন্ধ্যায় পথে নামল সিপিএম কর্মীসমর্থকরা। তাঁরা শাসকদলের বিরুদ্ধে সুর চড়ান। গতকাল সন্ধ্যায় অশোকনগরের শেরপুর থেকে তিন নম্বর রেলগেট হয়ে যশোর রোড ধরে এই মিছিল চলে । মিছিলে অংশ নিয়েছিলেন প্রায় শতাধিক সিপিএম কর্মী সমর্থক। সিপিএমের তরফ থেকে অভিযোগ ওঠে, শাসকদলের সাহায্য নিয়ে এই অপরাধীরা দীর্ঘদিন ধরে অশোকনগরে বসবাস করছে। বাংলাদেশে ব্যাঙ্ক জালিয়াতির মতো অপরাধে জড়িত ব্যাক্তি অশোকনগরে এসে রাজপ্রসাদের মতো বাড়ি তৈরি করেছে, এক কথায় বলা যায় নাগরিকত্ব পেয়েছে তাঁরা।

এমনকি সিপিএমের তরফ থেকে এদিন অভিযোগ উঠেছে যে,অশোকনগরের ভোটের তালিকা বহু ভুয়ো নাম রয়েছে । যা নিয়ে পূর্বেও নির্বাচন কমিশনের কাছে অভিযোগ জানিয়ে ছিলেন তাঁরা । এখানে খুব সহজেই টাকার বিনিময়ে ভোটার তালিকায় নাম উঠে যাচ্ছে মানুষের। যা নিয়ে অশোকনগরের যারা স্থায়ী বাসিন্দা তাঁরাও আক্ষেপ করেন বলে দাবি সিপিএমের। এই ধরনের আর্থিক দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত থাকার পরে এখানে এসে জমি কিনছেন ,পেল্লাই বাড়ি বানাচ্ছেন তা কীভাবে সম্ভব ? তাদের দাবি, অশোকনগরের সাধারণ মানুষ খুব ভালোভাবে বুঝতে পারেন যে শাসকদলের সহায়তা না থাকলে কোন ভাবেই এই কাজগুলি করা যায় না।

শাসকদলের প্রশ্রয়েই এইরকম অপরাধীরা আরও বেশি সাহস পেয়ে যাচ্ছে দিন দিন । যার ফলে আজ অশোকনগরের নাম ধুলায় লুণ্ঠিত হয়েছে বলে দাবি তাদের । যা পরবর্তীতে আর তাঁরা হতে দেবেন না। অশোকনগরকে কোনভাবেই আর্থিক অপরাধীদের স্বর্গ বানাতে দেবেন না তাঁরা। এই প্রতিবাদে গতকাল সন্ধ্যায় তাদের মিছিল চলে বিল্ডিং মোড় পর্যন্ত। অন্যদিকে, সিপিএমের এই প্রতিবাদ মিছিল প্রসঙ্গে তৃণমূলের পক্ষ থেকে পাল্টা অভিযোগ উঠেছে।

ওই দিন অশোকনগর বিধানসভার তৃণমূলের এসসি -ওবিসি সেলের সভাপতি গুপি মজুমদার বলেন, সিপিএম এখন মিছিল করছে লোক দেখানোর জন্য। অভিযুক্ত পিকে হালদার ২০০৫ সালে অশোকনগরে বাড়ি করেছিলেন আর সেই সময় পৌরসভার দায়িত্বে সিপিএম ছিল বলে জানালেন তিনি। তাঁর বাড়ির প্ল্যান পাস করা থেকে শুরু করে সমস্ত মদত তিনি পেয়েছেন সিপিএমের কাছ থেকেই। তাই এখন সিপিএমের এই প্রতিবাদের নাটক অশোকনগরের মানুষ মেনে নেবে না এমনটাই দাবি ছিল তৃনমূল নেতার।

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়ায়

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories