Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

পঞ্চায়েত ভোটের আগেই মালদায় তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব, দলীয় কর্মীকে অপহরণ করে খুনের অভিযোগ

।। প্রথম কলকাতা।।

শাসকদলের গোষ্ঠী কোন্দল নতুন কোনো ব্যাপার নয়। প্রায়ই কোন না কোন বিষয়কে কেন্দ্র করে একই দলের দুই গোষ্ঠীর মধ্যে দ্বন্দ্বের কথা প্রকাশ্যে আসে । পঞ্চায়েত ভোটের আর কয়েক মাস বাকি কিন্তু তার আগেই ফের একবার মালদার হরিশ্চন্দ্রপুরে তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের জেরে তুমুল উত্তেজনা। এক তৃণমূল কর্মীকে অপহরণ করা হয় আর অভিযোগের আঙুল উঠেছে অপর তৃণমূল গোষ্ঠীর দিকে । অপহৃত ওই তৃণমূল কর্মীর পরিবারের দাবি, তাকে খুন করে দেওয়া হয়েছে। যদিও এখনও পর্যন্ত পুলিশ এই ঘটনার তদন্ত করছেন বলেই জানিয়েছেন। কিন্তু পরিবারের লোকেদের বিশ্বাস খুন করা হয়েছে অপহৃতকে।

ঘটনাটি ঘটেছে মালদা জেলা হরিশ্চন্দ্রপুরের কাতলামারি এলাকায় । ওই এলাকায় বাসির এবং উনসা হক এর গোষ্ঠীর মধ্যে প্রায়ই বিবাদ লেগেই থাকে। তবে এই দুই গোষ্ঠী বর্তমানে তৃণমূলের ছত্রছায়ায় রয়েছে। কিন্তু এলাকা দখলকে কেন্দ্র করে এর আগেও বারকয়েক দুই গোষ্ঠীর মধ্যে বিবাদ বাঁধে। গুলিবাজির মত ঘটনাও ঘটেছিল। এদিকে শনিবার রাতে উনসা হকের ভাইপো আব্দুল বারিককে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে যায় দুষ্কৃতীরা। আর তাঁরা বাসিরের গোষ্ঠীর লোক ছিল বলে অভিযোগ উঠেছে বারিকের পরিবারের তরফ থেকে। তাকে তুলে নিয়ে যাওয়ার সময় তাঁর স্ত্রী সায়েমা বিবি বাধা দেওয়ায় তাকেও বেধড়ক মারধর করা হয়।

এই ঘটনায় পুলিশের কাছে অভিযোগ দায়ের করেন উনসা হকের পরিবার । কিন্তু পুলিশ এখনও পর্যন্ত এই ঘটনার তদন্ত করছেন বলেই জানিয়েছেন । আব্দুল বারিকের কাকা উনসা হক জানান, তাঁর ভাইপোকে তুলে নিয়ে গিয়েছে বাসিরের লোকেরা। প্রায় দুই দিন হতে চলল এখনও পর্যন্ত তাঁর কোনো খোঁজ খবর পাওয়া যায়নি। কাজেই তাঁরা ধরেই নিয়েছেন যে বারিক কে খুন করে দিয়েছে অপর গোষ্ঠী। অন্তত দেহটা যেন তাদের দেওয়া হয় এই আবেদনই বর্তমানে করে যাচ্ছেন তিনি।

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, এই দুই গোষ্ঠী বর্তমানে তৃণমূলের সমর্থক হলেও বাম আমলে বাম সমর্থক ছিল বাসির আর তখন উনসা হক ছিলেন কংগ্রেসে। তাদের এই বিবাদ প্রায় ৩০ বছরেরও বেশি সময় ধরে চলে আসছে। তবে রাজ্যের ক্ষমতায় তৃনমূল কংগ্রেস আসার পর দুজনেই ওই দলে যোগদান করেন। তবে দল এক হলেও তাদের বিবাদ এখনও পর্যন্ত মেটেনি। এই ঘটনা প্রসঙ্গে তৃণমূলের ব্লক সভাপতি হযরত আলি জানান, কাতলামারিতে গোষ্ঠী কোন্দল রয়েছে সেটা ঠিক কথা। তবে যারা অন্যায় করবে দল কখনই তাদের পাশে দাঁড়াবে না । আইন আইনের পথে চলবে বলেই জানালেন তিনি।

তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব প্রসঙ্গে জেলা বিজেপির সম্পাদক কিষান কেডিয়া বলেন, পঞ্চায়েত ভোটের আগে এটা তৃণমূলের ট্রেলার। ধীরে ধীরে আরও অনেক কিছুই দেখা যাবে। অভিযুক্তদের কেউই বর্তমানে এলাকায় নেই বলেই জানা গেছে । তবে হরিশ্চন্দ্রপুরের আইসি সঞ্জয় কুমার দাস বলেন, এই ঘটনায় পুলিশ তদন্ত শুরু করেছে । অপহৃতকে যত দ্রুত সম্ভব খোঁজার চেষ্টা করছেন তাঁরা।

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়ায়

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories