Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

রহড়া বিস্ফোরণ কাণ্ডের তদন্তে ফরেন্সিক বিশেষজ্ঞরা, পুলিশের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক অভিযোগ মৃতের বাবার

1 min read

।। প্রথম কলকাতা।।

শনিবার রহড়া থানার অন্তর্গত রুইয়া আজমতলা মধ্যপাড়া এলাকায় এক কিশোরের মৃত্যু হয় বোমা বিস্ফোরণের জন্য । পরিবার সূত্রে জানা গিয়েছিল যে, তাঁর দাদু সকালে টিন ভাঙ্গা লোহা ভাঙ্গা কুড়োতে গিয়ে রহড়া থানার পিছনে ফাঁকা মাঠের মধ্যে একটি পরিত্যক্ত কৌটো দেখতে পান এবং বাড়িতে নিয়ে আসার পর সেই কৌটো বিস্ফোরণের ফলে মৃত্যু হয় বছর বছর ১৭-এর সাহিলের। এই ঘটনায় ২৪ ঘণ্টা পেরিয়ে গিয়েছে কিন্তু এখনও পর্যন্ত পুলিশ কাউকে গ্রেফতার বা আটক করেনি। রবিবার ঘটনাস্থলে ফরেন্সিক বিশেষজ্ঞ এবং বোম স্কোয়াডের আসার কথা রয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

যে জায়গাটি থেকে সাহিলের দাদু ওই কৌটো বোমা পেয়েছিলেন সেই জায়গা খতিয়ে দেখা হবে। সেখানে আরও কোনো বিস্ফোরক পদার্থ মজুত রয়েছে কিনা তা খুঁজে দেখার জন্যই আজ ঘটনাস্থলে এসে উপস্থিত হবে বোম স্কোয়াড। অন্যদিকে, জানা যাচ্ছে রহড়া থানার পুলিশ ইতিমধ্যেই ঘটনার তদন্তে নেমেছে। কিন্তু পুলিশের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক অভিযোগ তুলেছেন মৃত সাহিলের বাবা শেখ আবুল। তিনি বলেন, গতকাল এই ঘটনা ঘটার পর রহড়া থানার পুলিশ আধিকারিকরা তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে।

আরও পড়ুন : মেট্রো লাইন অপরিকল্পিত ভাবে ঘুরিয়েছেন মমতা! দিলীপের মতে সব সমস্যা সেখানেই

এই ঘটনায় এখনও পর্যন্ত আটক তো কাউকে করা হয়নি উল্টে সাহিলের পরিবারের দিকে আঙ্গুল তুলেছে পুলিশ । গতকাল সাহিলের বাবাকে এক পুলিশ আধিকারিক বারবার জিজ্ঞেস করেন যে, তাঁরা এই ব্যবসা অর্থাৎ বোমের ব্যবসা কতদিন ধরে করছেন? বারবার একই কথা জিজ্ঞেস করার ফলে রীতিমতো বিরক্ত নিহতের পরিবার। তাদের বক্তব্য, যারা থানার পেছনে ফাঁকা মাঠে এরকম বিস্ফোরক পদার্থ রেখেছিল তাদেরকে গ্রেফতার করার কোনো রকম তৎপরতা নেই পুলিশের বরং মৃতের পরিবারের লোকজনকে দোষী সাব্যস্ত করার চেষ্টা করছেন পুলিশ আধিকারিকরা।

শেখ আবুল জানান, যদি তাঁরা বোমের ব্যবসায় করতেন তাহলে সামান্য টোটো চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করতে হত না তাকে এমনকি তাঁর স্ত্রীকেও লোকের বাড়িতে পরিচারিকার কাজ করতে হত না। বরং তাদের পরিবারের আর্থিক অবস্থা যথেষ্ট ভালো থাকতো। বর্তমানে তাদের দাবি , এই বিস্ফোরক পদার্থ যারা ফাঁকা মাঠে মজুত করেছিল তাদের অবিলম্বে গ্রেফতার করা হোক। দোষীরা যথোপযুক্ত শাস্তি পাক।

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়ায়

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories