Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

নবনির্মিত রাস্তার বেহাল দশা, মালদায় স্থানীয়দের ক্ষোভের মুখে তৃণমূল নেতা

।। প্রথম কলকাতা।।

প্রায় দুমাস আগে তৈরি করা হয়েছিল এই রাস্তা। তৃণমূল নেতৃত্বরা রাস্তার উদ্বোধন করেন ঘটা করে। কিন্তু দুই মাস পেরোতে না পেরোতেই নবনির্মিত রাস্তার বেহাল পরিস্থিতি। নতুন তৈরি হওয়া তিন কিলোমিটার রাস্তা জুড়ে খানাখন্দ ভর্তি হয়ে গিয়েছে। রাস্তার ধারে যে পৌরসভার কল বসানো হয়েছিল সেগুলি ভেঙে এখন জল বয়ে যাচ্ছে । নিকাশি ব্যবস্থা একইরকমভাবে বেহাল। চরম ভোগান্তিতে বর্তমানে এলাকাবাসীরা। যার ফলে পৌরসভার পাশাপাশি স্থানীয় তৃণমূল নেতার বিরুদ্ধে ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছেন সেখানকার বাসিন্দারা। আর সেই ক্ষোভ মেটাতে এবার নতুন তৈরি করা রাস্তা বাঁচানোর জন্য কাজে নেমে পড়েছেন সেখানকার তৃণমূল নেতা সঞ্জীব গুপ্তা।

এই ঘটনাটি মালদা জেলার হরিশচন্দ্রপুর এলাকার হরিশ্চন্দ্রপুর সদরের ডেইলি মার্কেট এলাকার। এখানে প্রায় দু মাস আগে গোপাল কেডিয়া মোড় থেকে গোলামোড় পর্যন্ত একটি নতুন রাস্তা তৈরি করা হয়েছিল। এই রাস্তাটি তৈরি করতে খরচ হয়েছিল প্রায় ৭৬ লক্ষ টাকা,এমনটাই জানানো হয়। কিন্তু সেই ৭৬ লক্ষ টাকা খরচ করে তৈরি করা নতুন রাস্তা দু মাসের বেশি সুস্থ অবস্থায় থাকতে পারল না। বর্তমানে সেই রাস্তা একেবারে ভেঙেচুরে গিয়েছে, ড্রেনের নোংরা জল রাস্তার উপরে উপচে পড়েছে, গোটা রাস্তায় গর্তে ভর্তি হয়ে থাকায় যাতায়াত করা মুশকিল হয়ে গিয়েছে সাধারণ মানুষের জন্য।

অল্প বৃষ্টিতে রাস্তা ভেসে যাচ্ছে, এমনকি যেকোনো অসুস্থ মানুষ নিয়ে ওই রাস্তার উপর দিয়ে যাতায়াত করা বিপদজনক হয়ে দাঁড়িয়েছে। অন্যদিকে এই রাস্তাটি এলাকার অন্যতম ব্যস্ত রাস্তা গুলির মধ্যে একটি। কিন্তু সেই রাস্তার পরিস্থিতি যদি এরকম হয় তাহলে সাধারণ মানুষের পক্ষে তা খুবই অসুবিধাজনক । যার ফলে বর্তমানে সেই এলাকার বাসিন্দাদের মধ্যে ক্ষোভ জমেছে। সেই কথা জানতে পেরেই ঘটনাস্থলে এসে উপস্থিত হয়েছেন শাসক দলের নেতা তথা ওই অঞ্চলের চেয়ারম্যান সঞ্জীব গুপ্তা।

জানা যযায়, শনিবারই তাঁর তৎপরতায় ওই এলাকার নর্দমা পরিষ্কার করা এবং রাস্তার পাশের জলের কল ঠিক করার কাজ শুরু হয়ে গিয়েছে। তবে নতুন রাস্তার এই রকম পরিস্থিতি প্রসঙ্গে হরিশ্চন্দ্রপুর এলাকার তৃণমূল কংগ্রেসের চেয়ারম্যান সঞ্জীব গুপ্তা জানান, রাস্তার এই রকম পরিস্থিতি হওয়ার পেছনে মানুষের অসচেতনতা মূল কারণ। ওই রাস্তা দীর্ঘদিন খারাপ অবস্থায় থাকার পর পৌরসভার উদ্যোগে তাকে সংস্কার করা হয়েছিল। কিন্তু ওই এলাকার মানুষ নর্দমা পরিষ্কার রাখে না, যার ফলে জল রাস্তার উপরে উপচে পড়ে। আর তার জন্যেই পিচের রাস্তা ভেঙে যাচ্ছে বলে দাবি তাঁর।

অন্যদিকে, স্থানীয় বিজেপি নেতা রুপেশ আগারওয়াল বলেন, এই অঞ্চলে তৃণমূল কংগ্রেস খুব একটা ভোট পায় না যার কারণে এই অঞ্চলের কাজ ঠিকঠাক হয় না। রাস্তা তৈরির কাজে যে পরিমাণ ভালো মানের সামগ্রী প্রয়োজন ছিল তার বদলে নিম্নমানের সামগ্রী দিয়ে কাজ হয়েছে । যার জন্য দু’মাসের মধ্যেই রাস্তার এই রকম পরিস্থিতি। স্থানীয় এক বাসিন্দা রবীন্দ্রনাথ দাস জানান, এই রাস্তাটি অবস্থা বর্তমানে খুবই খারাপ। নর্দমা পরিষ্কার না হওয়ার কারণে জল উপচে পড়ে যাচ্ছে রাস্তায়। রাস্তার পাশে থাকা জলের কল থেকে অনবরত জল বয়ে যাচ্ছে, যার ফলে পানীয় জলের সমস্যা দেখা দিচ্ছে । তাই এই সমস্ত বিষয়ে পৌরসভার নজরদারির প্রয়োজন রয়েছে বলে জানালেন তিনি।

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়ায়

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories