Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

সম্পত্তির লোভে দাদাকে সুপারি কিলার দিয়ে খুন, শেষ পর্যন্ত পুলিশের জালে ভাই

।। প্রথম কলকাতা।।

সম্পত্তির লোভে দাদাকে সুপারি কিলার দিয়ে খুন করালেন ভাই। ২৫ হাজার টাকায় রফা হয়েছিল। অগ্রিম ৫ হাজার টাকা দেওয়াও হয়েছিল। এরপর রাতে গলা টিপে হত্যা করা হয় দাদাকে। ফেলে দেয়া হয় পুকুরের জলে। সকালে মৃতদেহ ভাসতে দেখে পুলিশকে জানান গ্রামবাসীরা। এরপর ঘটনার তদন্তে নেমে সুপারি কিলার সমেত ভাইকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। ঘটনাটি ঘটেছে শ্রীরামপুরে।

শ্রীরামপুরের রাজ্যধরপুর গ্রাম পঞ্চায়েতে বাসিন্দা হলেন গৌতম দাস। তারা পাঁচ ভাই, এক বোন। তবে, এক ভাই এর মৃত্যু ঘটেছে। ভাইদের মধ্যে একমাত্র উজ্জ্বল দাস বিয়ে করেছেন। তিনি আলাদা থাকেন বাকি ভাই, বোন, ভগ্নিপতি এক বাড়িতে রয়েছেন। যাদের রয়েছে বহু টাকার সম্পত্তি ও জমি। সম্পত্তির লোভেই দাদাকে খুনের পরিকল্পনা ছিল উজ্জল দাসের।

দীর্ঘদিন ধরেই সম্পত্তির উপর লোভ উজ্জল দাসের। এর আগেও দু’বার ভাইদের ঠকিয়ে জমি বিক্রি করেছিলেন উজ্জ্বল দাস। যাকে ঘিরে অশান্তি চলেছিল। এরপর সমস্ত সম্পত্তি হাতাতে দাদাকে মেরে ফেলার চক্রান্ত করেন উজ্জল দাস। এরপর সুপারি কিলার দিয়ে খুন করার পরিকল্পনা করা হয়। ২৫ হাজার টাকায় রফাও হয়।

গত বুধবার রাতে গৌতম দাসের গলা টিপে হত্যা করে পুকুরের জলে ফেলে দেওয়া হয়। পরদিন মৃতদেহ দেখতে পেয়ে স্থানীয় মানুষেরা পুলিশে খবর দেন। এরপর পুলিশ মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তে পাঠায়। ছোট ভাই উৎপল দাস দাদার মৃত্যুর অভিযোগে পুলিশের দ্বারস্থ হন। এরপর পুলিশ ঘটনার তদন্তে
নামে।

কৃষ্ণ সরকার নামে এক সন্দেহভাজনকে পুলিশ গ্রেপ্তার করে। তাকে জেরা করে গ্রেফতার করা হয় উজ্জ্বল দাসকে। এরপর সমস্ত বিষয়টি পুলিশের সামনে স্পষ্ট হয়। পুলিশের সামনে উজ্জ্বল দাস স্বীকার করতে বাধ্য হন, সম্পত্তির লোভে তিনি দাদাকে হত্যা করিয়েছেন সুপারি কিলার দিয়ে। কৃষ্ণ সরকার হলো এই সুপারি কিলার। এই হত্যার পরিকল্পনায় ভগ্নিপতি বিজয় মণ্ডল জড়িত বলে জানতে পেরেছে পুলিশ। আর এরপর থেকেই বিজয় মন্ডল বেপাত্তা।

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়ায়

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories