Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

MBA ডিগ্রি আর দামি গাড়ির ফাঁদ ! বিয়ের নামে ১০০ এর বেশি মহিলার সঙ্গে প্রতারণা

।। প্রথম কলকাতা ।।

এমবিএ ডিগ্রি, দামি ঘড়ি, বিলাসবহুল গাড়ি প্রভৃতি দেখে ঠকে গেলেন প্রায় ১০০ জনেরও বেশি মহিলা। আর এই অভিযোগে গ্রেপ্তার হয়েছেন ৩৪ বছর বয়সী এক ব্যক্তি। তিনি নিজে বিবাহিত , থাকেন দিল্লিতে একটি ভাড়া বাড়িতে। অভিযুক্ত ফারহান তাসির খান বিভিন্ন অনলাইন বৈবাহিক পোর্টালে গিয়ে মহিলাদের সঙ্গে যোগাযোগ করতেন । দাবি করতেন তিনি অবিবাহিত, তারপর হোয়াটসঅ্যাপ এবং ফোন কলের মাধ্যমে নিয়মিত যোগাযোগ করে বিয়ের অজুহাতে তাদের কাছ থেকে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিতেন। জানাতেন তার একটি বড় ব্যবসায়িক চুক্তির জন্য প্রচুর টাকার দরকার। সেই ফাঁদে পা দিয়ে প্রতারিত হয়েছেন প্রায় ১০০ জনেরও বেশি মহিলা।

ডিসিপি বেনিতা মেরি জাইকার এই বিষয়ে জানান, একজন মহিলা যিনি পেশায় ডাক্তার তিনি দক্ষিণ জেলার সাইবার থানায় অভিযোগ দায়ের করেছিলেন। অভিযোগ অনুযায়ী এক ব্যক্তি তার সঙ্গে জনপ্রিয় একটি বৈবাহিক পোর্টালে যোগাযোগ করেন। দাবি করেছিলেন যে তিনি অবিবাহিত , তারপর উভয়ের মধ্যে হোয়াটসঅ্যাপ এবং ফোন কলের মাধ্যমে যোগাযোগ হয়। বিয়ের অজুহাতে এবং বড় ব্যবসায়ী চুক্তির প্রয়োজনের কারণে ওই ব্যক্তি তার কাছ থেকে প্রচুর টাকা দাবি করেন এবং বিভিন্ন সময়ে তিনি তার অ্যাকাউন্টে প্রায় ১৫ লক্ষ টাকা জমা দিয়েছেন। ওই মহিলা যখন বুঝতে পারলেন যে তিনি প্রতারিত হয়েছেন তখন তিনি পুলিশের কাছে এসে অভিযোগ দায়ের করেন । ভারতীয় দণ্ডবিধির ৪২০ নম্বর ধারার অধীনে একটি এফআইআর নথিভুক্ত করা হয়।

বিষয়টি ভালোভাবে তদন্ত করার জন্য পুলিশ একটি বিশেষ দল গঠন করে। তদন্ত করে ওই অভিযুক্ত ব্যক্তির সম্পর্কে বিবাহ সংক্রান্ত ওয়েবসাইট, ব্যাংক এবং অন্যান্য পোর্টাল থেকে বিশদ বিবরণ সংগ্রহ করেছিল । তদন্ত করার পর জানা যায় ওই অভিযুক্ত ব্যক্তি একটি জনপ্রিয় বৈবাহিক পোর্টালে অনেকগুলি জাল প্রোফাইল তৈরি করেছেন। যেখানে তিনি জানিয়েছেন তিনি একজন অবিবাহিত এবং তার পরিবারে কেউ নেই ।।ওই প্রোফাইলে বিভিন্ন রাজ্যের বহু মহিলা অভিযুক্তের সঙ্গে যোগাযোগ করেছিলেন।

তদন্ত চালিয়ে পুলিশ পাহাড়গঞ্জ থেকে অভিযুক্ত ফারহানকে গ্রেপ্তার করে। পুলিশের কাছে অভিযুক্ত তার সমস্ত অপরাধ স্বীকার করে নিয়েছে। তিনি জানান তিনি নিজেকে ইঞ্জিনিয়ারিং এবং এমবিএ হিসেবে ওয়েবসাইটে অনেকগুলি জাল প্রোফাইল তৈরি করেছিলেন । পাশাপাশি তিনি দাবি করেন যে তার নিজস্ব ব্যবসা রয়েছে , বড় শহরে অনেক বাড়ি রয়েছে এবং তার বার্ষিক আয় প্রায় ৩০ থেকে ৪০ লক্ষ টাকা। শুধু তাই নয় তিনি যখন মেয়েদের সঙ্গে দেখা করতেন সাথে বিলাসবহুল গাড়ি নিয়ে যেতেন। পুলিশ অভিযুক্ত এর কাছ থেকে একটি বিলাসবহুল গাড়ি , ৯ টি এটিএম কার্ড , ৪ টি সিম কার্ড , একটি মোবাইল ফোন এবং একটি দামি হাতঘড়ি উদ্ধার করেছে।

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়ায়

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories