Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

গ্রহের দোষ কাটাতে রবিবার মোক্ষম দিন ! আরাধনা করুন দেবী দশা মাতার

1 min read

।। প্রথম কলকাতা ।।

২৭শে মার্চ রবিবার দশা মাতার পুজো পড়েছে। দশা মাতার ব্রত চৈত্রের দশমী তিথিতে বা ফাল্গুনে , কৃষ্ণপক্ষে পালন করা হয়। এই দিনে বিবাহিত মহিলারা একটি দিনের উপবাস পালন করেন। সমস্ত নিয়ম মেনে দশা মাতার পুজো করেন এবং অশ্বত্থ গাছ লাগান। ধর্মীয় বিশ্বাস অনুযায়ী এই গাছ নাকি প্রতিনিধিত্ব করেন ভগবান বিষ্ণুর। সাধারণত দশা মাতার পুজোর পশ্চিমবঙ্গের খুব একটা প্রচলন নেই। বিহার, উত্তরপ্রদেশ, মধ্যপ্রদেশের দিকে এই ব্রত কথার ব্যাপক প্রচলন রয়েছে।

দশা মাতার পরিচয় ?

দশা মাতা নারী শক্তির এক রূপ। একটি উটে চড়ে, দেবী মায়ের এই রূপকে চার হাত দিয়ে চিত্রিত করা হয়েছে। তিনি উপরের ডান ও বাম হাতে যথাক্রমে একটি তলোয়ার এবং একটি ত্রিশূল ধারণ করেন। নীচের ডান ও বাম হাতে পদ্ম এবং বর্ম রয়েছে।

যেভাবে পালিত হয় দশা মাতার ব্রত

মহিলারা একটি তুলোর সুতোয় দশটি গিঁট বেঁধে রাখেন। তারপরে তাঁরা অশ্বত্থ গাছের চারপাশে দশবার ঘুরে বেড়ান এবং এর কাণ্ডে পবিত্র তুলোর সুতো ঘুরিয়ে বাঁধেন। এছাড়াও মহিলারা রাজা নল এবং রাণী দময়ন্তীর গল্প পাঠ করেন।

বিবাহিত মহিলারা এই দিনে উপবাস রাখেন এবং পরিবারের সুখ ও সমৃদ্ধির জন্য প্রার্থনা করেন। এছাড়াও উপবাস পালনের মধ্য দিয়ে মহিলারা তাঁদের জন্ম তালিকায় গ্রহের অবস্থান উন্নত করতে দেব-দেবীর আশীর্বাদ কামনা করেন। এই উপবাস একবার রাখলে , সারা জীবন চালিয়ে যেতে হবে। বাড়ির মূল প্রবেশপথের দুই পাশে হলুদ ও কুমকুম দিয়ে নানান নকশা তৈরি করা হয়েছে। এইভাবে মহিলারা তাঁদের গৃহকে মন্দ এবং নেতিবাচকতা থেকে রক্ষা করার জন্য দেব-দেবীদের কাছে প্রার্থনা করেন।

উপবাস রাখার নিয়ম

এই দিনে যিনি উপবাস রাখেন তিনি শুধুমাত্র এক ধরনের শস্য খেতে পারেন। বেশিরভাগ মহিলারা গম বেছে নেন, তবে লবণ খাওয়া নিষিদ্ধ। এছাড়াও প্রচলিত বিশ্বাস অনুযায়ী বহু ব্যক্তি এই দিনে টাকা ধার দেন না বা নতুন কোনো কিছু কেনেন না। একজন ব্রতী তাঁর পরিবারের মঙ্গলের জন্য পুজো করেন। এটা বিশ্বাস করা হয় যে এই উপবাস নিয়মিত পালন করলে জন্ম তালিকায় গ্রহের অবস্থানের বিরূপ প্রভাব দূর হয়।

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়ায়

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories