Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

অডিট রিপোর্ট প্রকাশ ‘পিএম-কেয়ার্স’ তহবিলের: দেখে নিন জমা-খরচের হিসাব

1 min read

।।প্রথম কলকাতা।।

কোভিড মহামারির মধ্যে প্রথম বছরেই অভূতপূর্ব সাফল্য পিএম কেয়ার্স তহবিলের। দেশে করোনা ভাইরাসের আগমনের পর ২০২০ সালে তৈরি করা হয় পিএম কেয়ার্স তহবিল। আর প্রথম বছরেই এই তহবিলে জমা পড়েছে প্রায় ১১ হাজার কোটি টাকা।

এক নজরে পিএম কেয়ার্স অডিট রিপোর্ট:


• ২০২০ সালের মার্চ থেকে ২০২১ সালের মার্চ পর্যন্ত প্রথম আর্থিক বছরে এই তহবিলে মোট ১০ হাজার ৯৯০ কোটি টাকা সংগ্রহ হয়েছে। যার মধ্যে ৩৯৬৭ কোটি বা মোট তহবিলের ৩৬.১৭ শতাংশ টাকা বিভিন্ন ত্রাণ ও প্রকল্পের জন্য ব্যবহার করা হয়েছে। গতকাল তহবিলের ওয়েবসাইটে প্রথমবারের মতো প্রকাশ করা হয় এই অডিট স্টেটমেন্টে।

• প্রাকৃতিক দুর্যোগের বাইরে, কোভিড মহামারির মতো জরুরী অবস্থায় অনুদান সংগ্রহের জন্য পিএম কেয়ার্স তহবিল শুরু করেছিলেন নরেন্দ্র মোদী। পদাধিকারবলে এই তহবিলের চেয়ারপার্সনও হন প্রধানমন্ত্রী। এই তহবিলের সমস্ত অনুদান আয়কর থেকে অব্যাহতিপ্রাপ্ত। অডিট অনুযায়ী, প্রথম বছরের পর তহবিলে অবশিষ্ট রয়েছে ৭ হাজার ১৪ কোটি টাকা।

• তহবিলে সব থেকে বেশি গুরুত্ব পেয়েছে কোভিড ভ্যাকসিন। এই তহবিল থেকে ভ্যাকসিন কেনার খাতে খরচ হয়েছে ১৩৯২ কোটি টাকা। যা মোট তহবিলের ৩৫ শতাংশ। এই অর্থ দিয়ে কোভিড ভ্যাকসিনের ৬৬ মিলিয়ন ডোজ কেনা হয়েছে।

• পাশাপাশি ‘মেড ইন ইন্ডিয়া’-র অন্তর্গত ভেন্টিলেটর কেনার ক্ষেত্রে খরচ করা হয়েছে ১৩১১ কোটি টাকা। যা মোট তহবিলের ৩৩শতাংশ।

• এই তহবিল থেকে দেশের নাগরিকদের কল্যাণের জন্য রাজ্য এবং কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলিকে দেওয়া হয়েছে ১০০০ কোটি টাকা।

• ১৬২টি প্রেসার সুইং অ্যাবসর্পশন মেডিক্যাল অক্সিজেন জেনারেশন প্ল্যান্ট ইনস্টল করার ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়েছে আরও ২০১ কোটি টাকা।

• নয়টি রাজ্য এবং কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে ১৬টি আরটি-পিসিআর টেস্টিং ল্যাব স্থাপন ও মুজাফফরপুর এবং পাটনায় দু’টি ৫০০ শয্যার অস্থায়ী কোভিড হাসপাতাল স্থাপনে প্রায় ৫০ কোটি টাকা খরচ করা হয়েছে এই তহবিল থেকে।

• বায়োটেকনোলজি বিভাগের অধীনে দু’টি স্বায়ত্তশাসিত ইনস্টিটিউট ল্যাবরেটরিকে ২০ কোটি টাকা দেওয়া হয়েছে পিএম কেয়ার্স ফান্ড থেকে।

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়া

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories