Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

সুব্রত বক্সী ও তাঁর স্বাক্ষর করা প্রার্থী তালিকাই চূড়ান্ত, স্পট জবাব পার্থর

1 min read

।। প্রথম কলকাতা ।।

পুরভোটের প্রার্থী তালিকা নিয়ে রাজ্যের শাসক দল তৃণমূলে যখন চলছে প্রবল ক্ষোভ-বিক্ষোভ, উত্তর থেকে দক্ষিনে যখন পৌঁছে গেছে বিক্ষোভের তাপ, সেই আবহে দাঁড়িয়ে আজ এক সাংবাদিক বৈঠক করলেন তৃণমূলের মহাসচিব তথা রাজ্যের মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। বৈঠকে তিনি স্পষ্ট জানিয়ে দিলেন যে, প্রার্থী তালিকা নিয়ে ক্ষোভ কখনোই কাম্য নয়।

পার্থ চট্টোপাধ্যায় জানালেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অনুমোদিত প্রার্থী তালিকা, যেখানে সুব্রত বক্সী ও পার্থ চট্টোপাধ্যায় স্বাক্ষর করেছেন, সেই তালিকাই চূড়ান্ত, যা জেলা সভাপতি ও চেয়ারম্যানদের কাছে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। কোথাও কোথাও অসামঞ্জস্য ছিল, সেগুলো দূর করে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অনুমোদন নিয়ে সেই তালিকা চূড়ান্ত করে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে। প্রার্থী তালিকা নিয়ে আর কোন বিভ্রান্তি থাকা উচিত নয়।

পার্থ চট্টোপাধ্যায় জানালেন, তবে এত বড় একটা নির্বাচন, যা বিধানসভার নির্বাচনের মত, সেই নির্বাচনে অনেকেই দাঁড়াতে চান। রাজ্যের সামগ্রিক উন্নয়ন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় করেছেন, তৃণমূল কংগ্রেসের যে জনপ্রিয়তা মানুষের মধ্যে বেড়েছে, কর্মীদের মধ্যে উৎসাহ-উদ্দীপনাও বেড়েছে, কিন্তু প্রার্থীতো একজনই হয়, সবাইকে তো প্রার্থী করা সম্ভব হয় না।

তাই সকলকেই তিনি বলবেন যে, দলের নেত্রী এক, পতাকা এক, প্রতীক এক, তাই একতা ও দায়িত্ববোধ নিয়ে দলীয় প্রার্থীর প্রতি সবাই একত্রিত হয়ে দাঁড়াবেন। দলকে যেভাবে সংগ্রামের মধ্য দিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দাঁড় করিয়েছেন, ভারতবর্ষে বিজেপির বিকল্প হিসেবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যেভাবে সকলের আস্থা অর্জন করেছেন, সেদিকে লক্ষ্য রেখে।

পার্থ চট্টোপাধ্যায় জানালেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে যে প্রার্থী তালিকার অনুমোদন দেয়া হয়েছে, সেই প্রার্থীদের সবাই মিলে জয়যুক্ত করতে, আরও বেশি আসনে তৃণমূল কংগ্রেসকে জয়ী করার জন্য তাঁরা রাজ্যবাসীর কাছে, ভোটারদের কাছে আবেদন জানাচ্ছেন। পুরভোটে বিশেষ কিছু নেতৃত্বের হাতে বিশেষ দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। জেলা নেতৃত্বরা এঁদের সঙ্গে যোগাযোগ করে নির্বাচনকে সুষ্ঠুভাবে পরিচালনা ও মানুষের কাছে পৌঁছাবার প্রয়াস করবেন।

তাঁকে প্রশ্ন করা হয়েছিল, তৃণমূল কর্মীদের মধ্যে যেমন ক্ষোভ দেখা যাচ্ছে, সে সম্পর্কে তিনি কী বলবেন? এর উত্তরে তিনি জানান, দলের মধ্যে যে ক্ষোভ দেখা গিয়েছিল, তা প্রশমিত হয়েছে। এতবড় একটা দলে কিছু ভুল বোঝাবুঝি হয়েই থাকে। আবার মদন মিত্র বলেছেন, প্রার্থী বাছাই ঠিক হয়নি। এ প্রসঙ্গে তিনি জানালেন, এসব কথা শুনে লাভ হবে না।

তাঁর ও সুব্রত বক্সীর স্বাক্ষর ছাড়াও ওয়েবসাইটে তৃণমূলের একটি প্রার্থী তালিকা পাওয়া গেছে। এ প্রসঙ্গে তিনি জানালেন, মুখ্যমন্ত্রীর অনুমোদনে যৌথ স্বাক্ষরে যে তালিকা দেওয়া হয়েছে, সেই তালিকাটিই চূড়ান্ত। এই তালিকার সঙ্গে ওয়েবসাইটের তালিকা সমন্বয় করেই দেওয়া হয়েছে, চূড়ান্ত তালিকার সঙ্গে ওয়েবসাইটের তালিকার বিশেষ তারতম্য আছে বলে, তিনি মনে করেন না।

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়া

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories