Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

কাশ্মীর নিয়ে পাকিস্তানের পাশেই আছে বেজিং , ইমরানের সঙ্গে বৈঠকের পর চীনের ঘোষণা

1 min read

।।প্রথম ভারত।।

ভারত বিরোধী মনোভাব নিয়ে চীন যে পাকিস্তানের পাশেই আছে তা ফের স্পষ্ট হয়ে উঠল। রবিবার বেজিং ইসলামাবাদের প্রতি ঘনিষ্ঠ সহযোগিতার প্রতিশ্রুতি দিয়ে জানিয়েছে, পাকিস্তানে ৬০ বিলিয়ন ডলারের সিপিইসি বিনিয়োগ কর্মসূচি তাদের রয়েছে। পাশাপাশি চীন কাশ্মীর সমস্যার একটি সঠিক ও শান্তিপূর্ণ সমাধানের জন্য আহ্বান জানিয়েছে। কাশ্মীর পরিস্থিতিকে জটিল করতে পারে এমন কোনও ‘একতরফা পদক্ষেপ’-এর বিরোধিতা করেছে চীন। এই নিয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের সঙ্গে চীনের প্রেসিডেন্টসহ শীর্ষ নেতৃত্বের আলোচনাও হয়েছে। আঞ্চলিক স্থিতিশীলতা রক্ষায় কাজ করতে দৃঢ় অবস্থানের ঘোষণা করেছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান ও চীনের প্রধানমন্ত্রী লি কেকিয়াং। চারদিনের চীন সফরে শেষ দিন শনিবার লি কেকিয়াংয়ের সঙ্গে বৈঠক হয় ইমরান খানের।

এতে আফগানিস্তানে শান্তি, স্থিতিশীলতা ও উন্নয়নে একসঙ্গে কাজ করার ওপর গুরুত্ব দেন দুই নেতা। একই সঙ্গে জোর দেওয়া হয় আঞ্চলিক সংযুক্তি বা কানেকটিভিতে। বেজিংয়ে শীতকালীন অলিম্পিকের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের এক ফাঁকে ইমরান খান সাক্ষাৎ করেন উজবেকিস্তানের প্রেসিডেন্ট শাভকাট মিরজিয়োয়েভের সঙ্গেও। সেখানেও আফগানিস্তান ও কাশ্মীর ইস্যুতে প্রাধান্য দেওয়া হয় বলে জানা গিয়েছে। ইমরান খান ও চীনের প্রধানমন্ত্রীর বৈঠকে গুরুত্ব পেয়েছে, নিজেদের মধ্যে বহমান উষ্ণ সম্পর্ক, পারস্পরিক গভীর আস্থা ও বোঝাপড়ার বিষয়। তাঁরা দ্বিপক্ষীয় অর্থনৈতিক সম্পর্ক আরও গভীর ও ঘনিষ্ঠ করার বিষয়ে সহমত প্রকাশ করেন। একই সঙ্গে বহুমাত্রিক কৌশলগত সহযোগিতার বন্ধনকে আরও এগিয়ে নেওয়ার প্রতিশ্রুতিও দিয়েছেন পাকিস্তান ও চীনের এই দুই শীর্ষ নেতা।

ইমরান খানের অফিস থেকে দেওেয়া বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘পাকিস্তান-চায়না কমিউনিটি অব শেয়ারড ফিউচার ইন দ্য নিউ এরা’- বা নবযুগ গড়ে তোলার বিষয়ে কথা হয়েছে বৈঠকে। সেখানে লি কেকিয়াং বলেন, ‘নেইবারহুড ডিপ্লোমেসি বা প্রতিবেশীর সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে পাকিস্তানকে চীন সব সময় অগ্রাধিকার দেয়।’ পাশাপাশি চীনের প্রধানমন্ত্রী পাকিস্তানের সঙ্গে বহুমাত্রিক সহযোগিতাকে আরও শক্তিশালী করার আগ্রহ প্রকাশ করেছেন। লি কেকিয়াং বলেছেন, ‘পাকিস্তান যে পরিবেশ দিয়েছে, যেভাবে চীনের উদ্যোক্তাদের উৎসাহিত করেছে, তাতে সেখানে চীনা বিনিয়োগ আকৃষ্ট হয়েছে। পাকিস্তান থেকে কৃষি পণ্য আমদানি আরও বিস্তৃত করার কথা সক্রীয়ভাবে বিবেচনা করছে চীন।’ বেজিং সফরের শেষ দিনে ইমরান খান চীনের বিনিয়োগকারীদের সঙ্গে বৈঠক করেন। সেখানে আলোচনা হয় বিভিন্ন প্রকল্প নিয়ে।

চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং বিদেশি রাষ্ট্রপ্রধানদের সম্মানে আয়োজিত মধ্যাহ্নভোজে যোগ দেন। এদিকে, ইমরান খান চীনে তাঁর চার দিনের সফরের শেষ দিনে প্রেসিডেন্ট শিকে চীন-পাকিস্তান অর্থনৈতিক করিডোরের (সিপিইসি) ধীর গতি এবং এতে কর্মরত চীনা কর্মীদের উপর বারবার হামলার বিষয়ে বেজিংয়ের ক্রমবর্ধমান উদ্বেগ সহ বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা করার আহ্বান জানান। ইমরানকে চীনের রাষ্ট্রপতি বলেছেন, ‘জাতীয় স্বাধীনতা, সার্বভৌমত্ব, মর্যাদা রক্ষা এবং সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে চীন পাকিস্তানকে দৃঢ়ভাবে সমর্থন করে আসছে।’ সেই সঙ্গে জিনপিং বলেন, ‘সিপিইসি-এর গভীরতর উন্নয়নে এবং মূল প্রকল্পের বাস্তবায়ন নিশ্চিত করতে পাকিস্তানের সঙ্গে যৌথ ভাবে কাজ করতে প্রস্তুত চীন।’ ইমরান খানের চীন সফর শেষে জারি করা একটি যৌথ বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘উভয় পক্ষই পুনর্ব্যক্ত করেছে যে, এক শান্তিপূর্ণ ও সমৃদ্ধ দক্ষিণ এশিয়া সকল সাধারণের স্বার্থে খুবই প্রয়োজন।’

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়া

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories