Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

গোয়ায় আক্রান্ত বাবুল সুপ্রিয়, ধারালো অস্ত্র দিয়ে হামলার অভিযোগ

1 min read

।। প্রথম কলকাতা ।।

আগামী ১৪ ই ফেব্রুয়ারি বিধানসভা নির্বাচন হতে চলেছে গোয়ায়, যার ফল ঘোষণা হতে চলেছে আগামী ১০ ই মার্চ, সমস্ত রাজনৈতিক দল যখন গোয়ায় প্রচারে ব্যস্ত, সেই আবহে গোয়ায় প্রচারে গিয়ে হামলার মুখে পড়লেন প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী আধুনা তৃণমূল নেতা বাবুল সুপ্রিয়। অভিযোগ উঠেছে, যখন তিনি ভোটের প্রচার করেছিলেন সে সময় হঠাৎ ধারালো অস্ত্র নিয়ে হামলা চলে তাঁর উপরে, নিরাপত্তারক্ষীদের তৎপরতায় তিনি রক্ষা পান।

ট্যুইট করে বাবুল সুপ্রিয় জানিয়েছেন, স্থানীয় একটি রাজনৈতিক দলের সঙ্গে যুক্ত দুষ্কৃতী তাঁর উপরে ধারালো অস্ত্র নিয়ে আক্রমণ করে। কংগ্রেস ও বিজেপির মত দুই দলের আশীর্বাদে সেই দলটি নির্বাচনে লড়াই করছে। তাঁর নিরাপত্তারক্ষীদের জন্য তিনি রক্ষা পেয়েছেন। এই টুইটে বাবুল সুপ্রিয় কংগ্রেস ও বিজেপির অফিসিয়াল ট্যুইটার হ্যান্ডেলকে ট্যাগ করেছিলেন তবে, পরবর্তীতে তিনি এই ট্যুইটটি ডিলিট করে দিয়েছেন। কী কারণে তিনি এটি ডিলিট করেছেন? তা এখনও জানা যায়নি।

আবার, আরেকটি ট্যুইট করে বাবুল সুপ্রিয় জানিয়েছেন, তাঁর উপর এই হামলার ঘটনার পর সঙ্গে সঙ্গেই ঘটনাস্থলে পুলিশ চলে আসে। তবে, এখনও তিনি কোনো লিখিত অভিযোগ করেননি। ভোট চাওয়া সমস্ত রাজনৈতিক দলের অধিকার। তিনি একাই সেই দুষ্কৃতীকে শায়েস্তা করতে পারতেন। কিন্তু ততক্ষণে পুলিশ চলে আসে।

প্রসঙ্গত, গতকাল বাবুল সুপ্রিয়র উপরে এভাবে ধারালো অস্ত্র নিয়ে হামলার অভিযোগ একদিকে যেমন শোরগোল ফেলে দেয় রাজনীতি মহলে, অন্যদিকে তেমনি ফের শোরগোল ওঠে বাবুল সুপ্রিয়র এই ট্যুইট ডিলিটকে কেন্দ্র করে। যে টুইটে বাবুল সুপ্রিয় কংগ্রেস ও বিজেপির অফিসিয়াল ট্যুইটার হ্যান্ডেলকে ট্যাগ করেছিলেন, সেই ট্যুইট দেবার কিছু সময় পরেই তিনি তা ডিলিট করে দিয়েছেন। তাঁর ট্যুইটার প্রোফাইলে দেখা যায়, সেই ট্যুইটটি আর নেই।

এদিকে, ধারালো অস্ত্র নিয়ে হামলার অভিযোগ করেও কোনো লিখিত অভিযোগ করতে দেখা যায়নি বাবুল সুপ্রিয়কে। তাঁর উপর যেখানে এত বড় হামলা যখন ঘটে গেল, তখন কেন তিনি লিখিত অভিযোগ করলেন না? কেনই বা তিনি ট্যুইট মুছে দিলেন? তা থেকে শুরু হয়েছে তীব্র বিতর্ক। বাবুল সুপ্রিয়র এই ট্যুইট প্রকাশের পর থেকেই তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছিল তৃণমূল, ট্যুইট ডিলিটের পর স্বভাবতই প্রতিবাদ ফিকে হয়ে যায়। এই ঘটনার সত্যতা নিয়েও অনেকে প্রশ্ন তুলতে শুরু করেছেন। অনেকেরই প্রশ্ন, এমন ঘটনার পর কেন লিখিত অভিযোগ দায়ের করলেন না বাবুল সুপ্রিয়? কেনই বা তিনি ট্যুইটটি মুছে ফেললেন?

আবার, অন্যদিকে গতকাল গোয়াতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ব্যানার, হোর্ডিং ইত্যাদি ছিঁড়ে ফেলার অভিযোগ উঠেছে। তার প্রতিবাদে তৃণমূল সাংসদ শান্তনু সেন ট্যুইট করে জানিয়েছেন, এ কোন গণতন্ত্র? ডবল ইঞ্জিন সরকারের সৌজন্যে এই সমস্ত চলছে। প্রসঙ্গত, গোয়াতে খুব অল্প সময়ের মধ্যেই যথেষ্ট পরিমাণে শক্তি বৃদ্ধি করতে পেরেছে তৃণমূল। গোয়াতে বিজেপি শাসন উৎখাতের হুঁশিয়ারি দিয়েছে তৃণমূল। তৃণমূলের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে যে, বিধানসভা নির্বাচনে গোয়াতে সরকার গঠন করবে তৃণমূল। আর গোয়াতে তৃণমূলের রাজনৈতিক তৎপরতা বাড়তেই বারবার দলের উপরে হামলা, পোস্টার-ব্যানার ছিঁড়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠে এসেছে, বারবার কাঠগড়ায় তোলা হয়েছে বিজেপিকে। যদিও এ প্রসঙ্গে বিজেপিকে তেমন একটা কর্ণপাত করতে দেখা যায়নি এখনও পর্যন্ত।

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়া

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories