Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

প্রার্থীপদ প্রত্যাখ্যান! গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের ইঙ্গিত দিলেন তৃণমূলের ইংরেজবাজার শহর সভাপতি

।। প্রথম কলকাতা ।।

মালদায় ইংরেজবাজার পৌরসভার তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী তালিকা ঘোষিত হয়েছে। এই প্রার্থী তালিকা অনুযায়ী গত ২৩ নম্বর ওয়ার্ডের প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে প্রাক্তন চেয়ারম্যান তথা ইংরেজবাজার শহরের তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি নরেন্দ্রনাথ তিওয়ারিকে। কিন্তু সেই প্রার্থীপদ প্রত্যাখ্যান করলেন তিনি। প্রার্থীপদ প্রত্যাখ্যানে কারণ কী? তা নিজেই জানালেন ইংরেজবাজার শহর তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি।

রবিবার তিনি একটি সাংবাদিক সম্মেলনের আয়োজন করেন। সেই সম্মেলনে সাংবাদিকদের সামনে নিজের দলের বিরুদ্ধে একরাশ ক্ষোভ উগরে দিতে দেখা যায় তাকে। তবে তাঁর এতো বিক্ষুব্ধ হওয়ার আসল কারণ কী? তিনি জানান, এতদিন পর্যন্ত ইংরেজবাজার পৌরসভার অন্তর্গত ২২ এবং ২৬ নম্বর ওয়ার্ডের হয়ে সমস্ত দায়িত্ব পালন করে এসেছেন। কিন্তু এবার তৃণমূল কংগ্রেসের শীর্ষ নেতৃত্বরা রয়েছেন, তাঁরা কিভাবে বিবেচনা করে প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করেছেন তা তাঁর জানা নেই। প্রাক্তন চেয়ারম্যানকে ওই দুটি ওয়ার্ড থেকে সরিয়ে দেওয়া হয় এবং ওই দুটি ওয়ার্ডে তাঁর কোনো মনোনীত প্রার্থীকেও প্রার্থীপদ দেওয়া হয়নি। এই নিয়েই মূলত ক্ষোভের সৃষ্টি। যার ফলস্বরূপ ২৩ নম্বর ওয়ার্ডে তাকে যে প্রার্থীপদ দেওয়া হয়েছে সেই পদ প্রত্যাখ্যান করেন তিনি।

তিনি আরো বলেন, তাকে প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছিল ওই দুটি ওয়ার্ডে তিনি বা তাঁর মনোনীত প্রার্থীরাই দাঁড়াবেন। কিন্তু কাজের ক্ষেত্রে দেখা গেল অন্য কিছু। তৃণমূলের আদর্শ কী সেই নিয়ে প্রশ্ন তোলেন তিনি। তিনি বলেন,”তৃণমূল কংগ্রেসের কলকাতার জন্য এক নীতি, আর মালদার জন্য এক নীতি। প্রথমেই বলা হয়েছিল কোনো বিধায়ক প্রার্থী হিসেবে দাঁড়াবেন না। কিন্তু অনেক জায়গাতেই বিধায়ককে প্রার্থী হতে দেখা গিয়েছে”।

তাকে ২৩ নম্বর ওয়ার্ডের প্রার্থী পদ দেওয়ার প্রসঙ্গে তিনি জানান,”যে ওয়ার্ডটি আমাকে দেওয়া হয়েছে সেটি খুবই ভয়ঙ্কর ওয়ার্ড। আমার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আমি কোনো ওয়ার্ডের এখনো পর্যন্ত দাঁড়াচ্ছি না। আমি শহর সভাপতি হয়েও মনোনীত প্রার্থীদের বিষয়ে কিছুই জানতে পারলাম না। আমার এমন সভাপতি থাকার থেকে না থাকাই শ্রেয়”। তিনি দলের প্রতি ক্ষোভ উগরে দিয়ে বলেন, “আমার ৪২ বছরের রাজনীতি এখানেই শেষ হয়ে যেতে দেখছি। যদি বিরোধীরা এটা করতো তাহলে আমার কোন ক্ষোভ ছিল না। কিন্তু যেখানে বিরোধী নেই সেখানে দলের অন্দরেই এরকম করা হচ্ছে কেন? তার মানে এটা দলের মধ্যেই চক্রান্ত করা হচ্ছে”।

তবে এবিষয়ে মালদা জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি আব্দুর রহিম বক্সী জানান, নরেন্দ্রনাথ তেওয়ারি দলের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একজন কর্মী। কিন্তু এই বিষয়ে তাঁর সাথে এখনো পর্যন্ত কোনো কথা বলা হয়নি। তাঁর সাথে কথা বলে রাজ্য নেতৃত্বকে পুরবিষয়টি সম্পর্কে জানানো হবে বলে তিনি জানান। যদিও এই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে বিজেপির কটাক্ষ, তৃণমূলের মালদায় কোনো সংগঠন নেই।

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়া

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories