Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

ভ্যাকসিন নিতে এসে হেনস্থা, ক্যামেরা দেখেই থতমত খেলেন পুরকর্মীরা !

।।প্রথম কলকাতা।।

ভ্যাকসিনেশনের জন্য যেখানে সচেতনতা মূলক প্রচার করে চলেছে কলকাতা পৌরসভা, সেখানে ভ্যাকসিন নিতে আসা সাধারণ মানুষকে পুরসভা কর্মীদের কাছে হেনস্থা মুখে পড়তে হলো। ঘটনাটি ঘটেছে কলকাতা পুরসভার ৬৩ নম্বর ওয়ার্ডে। এখানে ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ নিতে এসেছিলেন কয়েকজন। তবে তাদেরকে ভ্যাকসিন দেওয়া হবে না বলে রীতিমতো বিতাড়িত করা হয় সেখান থেকে। কারণ জানতে চাইলে বলা হয় শুধুমাত্র এখানে ৬৩ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দাদেরি ভ্যাক্সিনেশন করা হচ্ছে। বাইরে থেকে আগত কোনো ব্যাক্তির ভ্যাকসিন এখানে দেওয়া হবে না বলে জানান পুরসভা কর্মীরা।

এই বিষয়টি নজরে আসতেই ৬৩ নম্বর ওয়ার্ডের পুরসভায় গিয়ে পৌঁছানো প্রথম কলকাতার প্রতিনিধি রোজিনা রহমান। তবে তিনি পুরসভা কর্মীদের কাছে এ বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করতে চাইলে তাঁরা কোনো কথা বলতে চাননি। ক্যামেরার সামনে রীতিমতো তর্ক বিতর্ক শুরু করেন পুরসভা কর্মীরা। কেন ভ্যাকসিন নিতে আসা সাধারণ মানুষকে এইভাবে হেনস্থা করা হচ্ছে সে প্রশ্নের কোনো উত্তর পাওয়া যায়নি তাদের কাছে। তাঁরা জানান এ বিষয়ে ওয়ার্ডের কাউন্সিলর এবং ভ্যাক্সিনেশন এর জন্য যে স্বাস্থ্য কর্মী ও চিকিৎসক রয়েছেন তিনি বলতে পারবেন।

অবশেষে ৬৩ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর সুস্মিতা ভট্টাচার্য্য চ্যাটার্জির সঙ্গে কথা বলেন প্রথম কলকাতার প্রতিনিধি রোজিনা রহমান। ওয়ার্ড কাউন্সিলর জানান, পশ্চিমবঙ্গের মধ্যে যে সকল ব্যক্তিরা ভ্যাকসিনেশনের প্রথম ডোজ সম্পন্ন করেছেন তাঁরা তাদের দ্বিতীয় ডোজ এবং বুস্টার ডোজ যেকোনো পৌরসভা কেন্দ্র থেকেই নিতে পারবেন। কিন্তু কী কারণে আগত ব্যক্তিদের ভ্যাকসিন দেওয়া থেকে বঞ্চিত করা হয়েছে তা জানতে তিনি কথা বলেন দায়িত্বপ্রাপ্ত স্বাস্থ্য কর্মীর সাথে। দায়িত্বপ্রাপ্ত চিকিৎসক বিজয় বিশ্বাসের সঙ্গে ৬৩ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর সুস্মিতা ভট্টাচার্য্য চ্যাটার্জির দ্বিমত প্রকাশ্যে আসে। তিনি বলেন, এই বিষয়টি তাঁর জানা ছিল না এবং তিনি দায়িত্বপ্রাপ্ত চিকিৎসকের নামে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের কাছে অভিযোগ জানাবেন।

তবে এই ওয়ার্ডের কাউন্সিলর পুরো বিষয়টিকে দায়িত্বপ্রাপ্ত স্বাস্থ্য কর্মী এবং চিকিৎসকের ওপর চাপিয়ে দেন। তিনি বলেন, এনারা নিজেদের কাজ কমানোর জন্য এটা করেছেন। যদিও তিনি বলেন, আমরা সব সময় সাধারণ মানুষের জন্য যা হিতকর তাই করবো। পশ্চিমবঙ্গের মধ্যে যারা যারা ভ্যাকসিনেশনের ফাস্ট ডোজ সম্পূর্ণ করেছিলেন তাঁরা যেকোনো পৌরসভা থেকে এমনকি আমাদের পৌরসভা কেন্দ্র থেকেও টিকা নিতে পারবেন। আমি দ্বিতীয়বার সাধারন মানুষের সঙ্গে এই রকমের দুর্ব্যবহার সহ্য করব না। হয়ত বিষয়টি প্রকাশ্যে আসতেই এভাবে নিজেদের দোষকে ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা কাউন্সিলরের।

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়ায়

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories