Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

স্ত্রীর চাহিদা না মেটানো গার্হস্থ্য হিংসার মধ্যে পড়ে ! চাঞ্চল্যকর রায় আদালতের

।। প্রথম কলকাতা ।।

বিবাহের পর স্ত্রীর চাহিদা যথাযথভাবে মেটাতে না পারলে সেই অপরাধ পারিবারিক সহিংসতার মামলায় আওতায় আসবে। এমনটাই রায় দিল ইন্দোরের দায়রা আদালত। পাশাপাশি অভিযোগের ভিত্তিতে ওই দম্পতির স্বামীকে দিতে হবে প্রায় ২৫ লক্ষ টাকা।মঙ্গলবার, ইন্দোরের দায়রা আদালত পারিবারিক সহিংসতার মামলায় স্বামীর বিরুদ্ধে এক অভিনব আদেশ দিয়েছে। আদালত স্ত্রীর চাহিদা পূরণ না করাকে সহিংসতা হিসেবে বিবেচনা করে স্বামীকে প্রতি মাসে ১৫ হাজার টাকা এবং এককালীন ২৫ লক্ষ টাকা প্রদানের নির্দেশ দিয়েছে।

পুরাতন পলাশিয়ার বাসিন্দা বিল্ডার্স ব্যবসায়ী এবং ইঞ্জিনিয়ার মহেন্দ্র রাজোরিয়ার বিরুদ্ধে ২০০৮ সালে জেলা ও দায়রা আদালতে পারিবারিক সহিংসতা এবং ভরণপোষণের জন্য আবেদন করেছিলেন তার স্ত্রী। প্রায় ১১ বছর পর ম্যাজিস্ট্রেট আদালত স্বামীকে প্রতি মাসে স্ত্রীকে ১৫ হাজার টাকা দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে। পাশাপাশি এককালীন দিতে হবে ২৫ লক্ষ টাকা। আপিল অনুযায়ী, বিচারক জোগিন্দর সিং ২০০৮ সাল থেকে ১৪ বছরের জন্য প্রতি মাসে ১৫ হাজার টাকা এবং এককালীন ২৫ লক্ষ টাকা দেওয়ার নির্দেশ দেন। স্বামী আদালতে যুক্তি দিয়েছিলেন, স্ত্রী নিজে উপার্জন করতে সক্ষম। তাকে কোনো ভরণপোষণ দিতে হবে না।

আদালত এসব যুক্তি খারিজ করে বিল্ডার্স ব্যবসায়ী এবং ইঞ্জিনিয়ার মহেন্দ্র রাজোরিয়াকে এই আদেশ দিয়েছে। মহেন্দ্র প্রায় ২৬ বছর আগে বিয়ে করেছিলেন। কয়েক বছর পর স্ত্রীর সঙ্গে ঝগড়া হয়। পরে এই দম্পতি আলাদা থাকতে শুরু করেন। রাজোরিয়ার স্ত্রী স্বামীর বিরুদ্ধে দায়রা আদালতে আপিল করেছিলেন। দম্পতির মধ্যে পারস্পরিক বিরোধ দেখা দিলে স্ত্রী জেলা আদালতে ভরণপোষণ দাবি করেন। ২০০৮ সালে এই মামলা নিষ্পত্তিকালে আদালত স্বামীকে প্রতি মাসে স্ত্রীকে ৫ হাজার টাকা দেওয়ার নির্দেশ দেন। এ সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে স্ত্রী অ্যাডভোকেট কেপি মহেশ্বরীর মাধ্যমে দায়রা আদালতে আপিল করেন। আপিলের শুনানি নিয়ে মঙ্গলবার আদালত মাসিক ১৫ হাজার এবং এককালীন ২৫ লক্ষ টাকা প্রদানের আদেশ দেন।

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়ায়

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories