Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

Australian Open: রাজীব রাম’কে সঙ্গী করে মিক্সড ডাবলসের দ্বিতীয় রাউন্ডে সানিয়া মির্জা

1 min read

।। প্রথম কলকাতা ।।

গতকাল মহিলা ডাবলস প্রথম রাউন্ডের ম্যাচেই হারের মুখ দেখেছিলেন সানিয়া। ম্যাচের পর ভারতের টেনিস সুন্দরী জানিয়ে দেন চলতি মরসুম শেষেই পেশাদার টেনিস’কে বিদায় জানাবেন। ভারতের সর্বকালের সেরা মহিলা টেনিস খেলোয়াড়ের অবসরের পরিকল্পনা প্রকাশ্যে এসে যাওয়ায় শুভেচ্ছা বার্তা এসেছে নানান প্রান্ত থেকে। বৃহস্পতিবার মিক্সড ডাবলসে জয় ছিনিয়ে বুঝিয়ে দিলেন সানিয়া এখনও ফুরিয়ে যাননি। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাজীব রাম’কে সঙ্গী করে দ্বিতীয় রাউন্ডে পৌঁছে গিয়েছেন সানিয়া। আজ, সার্বিয়ার ক্রুনিচ – নিকোলা কাসিচের বিরুদ্ধে ৬-৩, ৭-৬(৩) জয় পেয়েছে ইন্দো-মার্কিন জুটি।

২০০৯ সালে মহেশ ভূপতি’কে সঙ্গী করে এই অষ্ট্রেলিয়ান ওপেনেই মিক্সড ডাবলস চ্যাম্পিয়ন হয়েছিলেন সানিয়া। ২০১৬ সালে মার্টিনা হিঙ্গিসের সঙ্গে জুটি বেঁধে এই মেলবোর্নেই জিতেছিলেন মহিলা ডাবলসের শিরোপা। স্বাভাবিক ভাবে অভিজাত এই গ্র‍্যান্ড স্ল্যামটির সঙ্গে সানিয়ার সম্পর্ক বেশ প্রাচীন। বৃহস্পতিবার ১২ নম্বর কোর্টে বেশ স্বচ্ছন্দ লেগেছে সানিয়াকে। দেখা মেলে তার ভিন্টেজ ফোরহ্যান্ড শটেরও। বেশ অনায়াসেই প্রথম সেট (৬-৩) পকেটে পুরেছিলেন সানিয়া – রাজীব। তবে দ্বিতীয় সেটে ইন্দো-মার্কিন জুটিকে কড়া চ্যালেঞ্জের মুখে ফেলে দেন ক্রুনিচরা। সেট গড়ায় টাইব্রেকারে। সেখানে অঘটন ঘটেনি। ৭-৬(৩) ব্যবধানে দ্বিতীয় সেট দখল করে পরবর্তী রাউন্ডে পৌঁছে গিয়েছেন সানিয়ারা।

গতকাল মহিলা ডাবলস প্রথম রাউন্ডেই হারের মুখ দেখেছিলেন সানিয়া – কিচেনক জুটি। ম্যাচ শেষে ছয়টি গ্র‍্যান্ড স্ল্যামের মালিক সানিয়া জানান ২০২২ মরসুমের পর পেশাদার টেনিস কেরিয়ারে ইতি টানবেন। সাংবাদিক সম্মেলনে হায়দ্রাবাদী কন্যা বলেন – “এই সিদ্ধান্তের পিছনে অনেকগুলি কারণ রয়েছে। আমার মনে হয় চোট সারিয়ে কোর্টে ফিরতে দীর্ঘ সময় লাগছে। আমার সন্তানের বয়স মাত্র তিন বছর। কোথাও গিয়ে মনে হয় যে আমার ঘন ঘন সফরের কারণে ওকেও ঝুঁকির মুখে ফেলছি। দুর্ভাগ্যজনক ভাবে হলেও এই অতিমারি কিছু সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য করছে। সেটা নিজেদের ভালো থাকা ও পরিবারের ভালোর জন্যেই। “

একসময় কিংবদন্তি মার্টিনা হিঙ্গিসের সঙ্গে জুটি বেঁধে ডাবলস বিশ্ব র‍্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষস্থানে পৌঁছানো সানিয়া আরও বলেন – ” আমার শরীরও এই ধকল সামলাতে পারছে না। আজকের ম্যাচেই হাঁটু ভীষণ ভুগিয়েছে। তবে আমি এটা বলছি না যে ওই কারণেই মহিলা ডাবলস ম্যাচ হারতে হয়েছে তবে আমার বয়স বাড়ার কারণে সুস্থ হয়ে ওঠার প্রক্রিয়া দীর্ঘ হয়ে পড়েছে। ” নিজের অবসরের সিদ্ধান্ত নিয়ে সানিয়া জানান – ” আমি সবসময়ই বলে এসেছি যতোদিন এই পরিশ্রমটাকে, এই প্রক্রিয়াটাকে উপভোগ করতে পারব ততোদিন খেলে যাব। এখন আমি নিজেও জানি না আদৌ সেটা উপভোগ করতে পারছি কিনা। হ্যা, এই মরসুমটা খেলবার মতো জায়গায় রয়েছি। কোর্টে প্রত্যাবর্তনের জন্যে ভীষণ খেটেছি। ফিট হয়ে, ওজন কমিয়ে মা হিসাবে একটা উদাহরণ তৈরি করবার চেষ্টা করেছি যে নতুন মায়েরাও তাদের স্বপ্নপূরণে ঝাঁপিয়ে পড়তে পারে। তবে এই মরসুমের পর মনে হয়না আমার শরীর আর পারবে। “

Categories