Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

বড় খবর : আমেরিকার বিমানবন্দরে চালু ৫জি, আশঙ্কা প্রকাশ করে ফ্লাইট বাতিল এয়ার ইন্ডিয়ার

1 min read

।।প্রথম কলকাতা।।

বুধবার থেকে আমেরিকার বিমানবন্দরগুলিতে চালু হয়েছে ৫জি ইন্টারনেট পরিষেবা। এর জেরে ভারত থেকে আমেরিকাগামী বেশ কিছু উড়ান বাতিল ও কিছু স্থগিত করেছে এয়ার ইন্ডিয়া। সংস্থার তরফে জানানো হয়েছে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রগামী কিছু বিমান বাতিল বা কিছু বিমানের সময় পরিবর্তন করা হয়েছে। যেসব বিমান বাতিল করা হয়েছে ট্যুইট করে তার তালিকা প্রকাশ করেছে এয়ার ইন্ডিয়া। এয়ার ইন্ডিয়া এ প্রসঙ্গে ট্যুইট করে জানিয়েছে, ‍‘মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ৫জি যোগাযোগ স্থাপনের কারণে বুধবার দিল্লি-নিউ ইয়র্ক, দিল্লি-শিকাগো, দিল্লি-সান ফ্রান্সিসকো রুটে তারা আটটি ফ্লাইট বাতিল করেছে।’ এয়ার ইন্ডিয়া ছাড়াও, আমেরিকান এয়ারলাইন্স এবং ডেল্টা এয়ারলাইন্স বর্তমানে ভারত এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে সরাসরি ফ্লাইট পরিচালনা করে।

বেসামরিক বিমান চলাচলের (ডিজিসিএ) ডাইরেক্টর জেনারেল এই বিষয়ে ভারতীয় সংস্থাগুলির সঙ্গে যোগাযোগ করছেন বলে জানা গিয়েছে। ১৪ জানুয়ারি মার্কিন ফেডারেল এভিয়েশন অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (এফএএ) একটি সতর্কতা জারি করে বলেছে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে নতুন ৫জি প্রযুক্তি চালু হচ্ছে। এর ফলে বুধবার (গতকাল) থেকে রাডার অল্টিমিটারের মতো অন-বোর্ড যন্ত্রগুলির উপর এর প্রভাব পড়তে পারে। তবে এই সমস্যা অবশ্যই সাময়িক বলেও জানানো হয়েছে। আর এই বিষয়ে কোনও আপডেট থাকলে তা শীঘ্রই যাত্রীদের কাছে পৌঁছে দেওয়া হবে। তবে শুধুমাত্র এয়ার ইন্ডিয়াই নয় আমেরিকায় উড়ান পরিষেবা স্থগিত রেখেছে এমিরেটস, অল নিপন এয়ারওয়েজ, জাপান এয়ারলাইন্সের মতো সংস্থাও। আশঙ্কা করা হচ্ছে, ৫জি পরিষেবা বিমানের মূল নিরাপত্তা ব্যবস্থাকে ক্ষতিগ্রস্ত করতে পারে।

৫জি পরিষেবার জন্য খারাপ আবহাওয়ায় অবতরণের সময় ব্যবহৃত সংবেদনশীল নেভিগেশন সরঞ্জামগুলির ক্ষতি হতে পারে। ফলে যাত্রী সুরক্ষার কথা মাথায় রেখেই এই সিদ্ধান্তের পথে হাঁটছে বিমান সংস্থাগুলি। দুবাইয়ের বিমান সংস্থা এমিরেটস এয়ারলাইন জানিয়েছে যে এটি শিকাগো এবং সান ফ্রান্সিসকো-সহ বেশ কয়েকটি আমেরিকার শহরে উড়ান স্থগিত রাখবে। পাশাপাশি কোরিয়ান বিমান সংস্থাগুলিও জানিয়েছে যে, তাদের ৭৭৭ এবং ৭৪৭-৮ বিমানগুলি ৫জি পরিষেবার জন্য প্রভাবিত হয়েছে এবং বিমানগুলির রুট পরিবর্তন করছে। মার্কিন বিমান চলাচল নিয়ন্ত্রক সংস্থা ফেডারেল এভিয়েশন অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (এফএএ) আগেই জানিয়েছিল যে, ৫জি ইন্টারফেসের কারণে, বিমানের রেডিও অল্টিমিটার ইঞ্জিন এবং ব্রেকিং সিস্টেমকে প্রভাবিত করতে পারে। যার ফলে এটি ল্যান্ডিং মোডে প্রবেশ করতে পারে না। তার ফলে সুরক্ষা নিয়ে প্রশ্ন উঠতে পারে। সেই কারণেই কয়েকটা দিন আমেরিকাগামী বিমান বাতিল ও বিমানের সময় পরিবর্তন করেছে একাধিক দেশ।

যদিও ইউনাইটেড এয়ারলাইন্সের তরফে জানানো হয়েছে, এই মুহূর্তে সরকারের ৫জি নেটওয়ার্ক পরিষেবা স্থাপনের বিষয়টি উড়ান পরিষেবায় একটা বড় প্রভাব ফেলবে। এর জন্য সমস্যায় পড়বেন আমেরিকার ১.২৫ মিলিয়ন যাত্রী। এছাড়াও সমস্যায় পড়বে প্রায় ১৫ হাজার বিমান। পাশাপাশি সমস্যা দেখা দেবে অত্যাবশ্যকীয় পণ্য আমদানি-রফতানির ক্ষেত্রেও। এর জেরে করোনা পরিস্থিতির মধ্যে দেখা দিতে পারে নতুন সঙ্কট। ফলে যতটা দ্রুত সম্ভব ৫জি পরিষেবা স্থাপন করে বিমান চলাচল স্বাভাবিক করার জন্য বাইডেন প্রশাসনকে অনুরোধ করা হয়েছে।একটি বিমান মাটি থেকে কতটা উপরে উড়ছে সেটি মাপতে পারে অল্টিমিটার। রাডার অল্টিমিটারগুলি ৪.২-৪.৪ গিগাহার্টজ ফ্রিকোয়েন্সি রেঞ্জে কাজ করে। এক্ষেত্রে এভিয়েশন কর্তৃপক্ষ এবং এয়ারলাইনগুলির উদ্বেগের বিষয় হল যে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে নিলাম করা মধ্য-রেঞ্জ ফ্রিকোয়েন্সিগুলি এই ব্যান্ডের খুব কাছাকাছি। আমেরিকা ২০২১ সালে সি-ব্যান্ড নামক স্পেকট্রাম রেঞ্জ ৩.৭-৩.৯৮ গিগাহার্টজে ৫জি ব্যান্ডউইথ মোবাইল ফোন কোম্পানির কাছে নিলাম করেছিল।

টেলিকম পরিষেবা প্রদানকারীদের ৫জি প্রযুক্তি স্থাপনের জন্য সি-ব্যান্ড স্পেকট্রাম ব্যবহার বিশ্বজুড়ে বিমান শিল্পের জন্য উদ্বেগের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। সমস্ত বিশ্ব জুড়ে, বিমান চলাচল নিয়ন্ত্রক সংস্থা এবং এয়ারলাইন্সগুলি যুক্তি দিয়েছে যে, বাণিজ্যিক ৫জি স্থাপনের ফ্রিকোয়েন্সি যদি অল্টিমিটারের মতো ওয়াইড-বডি বিমানের যন্ত্রগুলির দ্বারা ব্যবহৃত বায়ুতরঙ্গের ফ্রিকোয়েন্সি “কাছে” হয় তবে এটি পাঠকে ব্যাহত করতে পারে।দুটি ফ্রিকোয়েন্সি ব্যান্ডের নৈকট্যের কারণে বিষয়টি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কাছে বিশেষভাবে উদ্বেগের বিষয়। বেশিরভাগ দেশ এবং ইউরোপীয় ইউনিয়ন যেখানে বাণিজ্যিক ৫জি স্থাপন শুরু করেছে। বেশিরভাগ টেলিকম পরিষেবা প্রদানকারীরা ৩.৪-৩.৮ গিগাহার্টজ পরিসরে কাজ করে। একইভাবে, দক্ষিণ কোরিয়ায় ৫জি ৩.৪২-৩.৭ গিগাহার্টজ ব্যান্ডে কাজ করে। এই উভয় ফ্রিকোয়েন্সিই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ৩.৭-৩.৯৮ গিগাহার্টজ রেঞ্জের মিড-ব্যান্ড ফ্রিকোয়েন্সি থেকে কম।

দুবাই-ভিত্তিক এমিরেটস ঘোষণা করেছে যে তারা বোস্টন, শিকাগো, ডালাস-ফোর্ট ওয়ার্থ, হিউস্টন, মিয়ামি, নেওয়ার্ক, নিউ জার্সি, অরল্যান্ডো, ফ্লোরিডা, সান ফ্রান্সিসকো এবং সিয়াটলে ফ্লাইট বন্ধ করবে। তবে তারা জানিয়েছে, লস অ্যাঞ্জেলেস, নিউ ইয়র্ক এবং ওয়াশিংটনে ফ্লাইট চালিয়ে যাবে।জাপানের অল নিপ্পন এয়ারওয়েজ একটি বিবৃতিতে বলেছে যে, এফএএ ইঙ্গিত দিয়েছে যে ৫জি ওয়ারলেস পরিষেবা থেকে রেডিও তরঙ্গগুলি বিমানের অল্টিমিটারগুলিতে হস্তক্ষেপ করতে পারে। বোয়িং ৭৭৭ বিমান পরিচালনাকারী সমস্ত এয়ারলাইন্সগুলিও ফ্লাইট বিধিনিষেধ ঘোষণা করেছে।সাধারণত, টেলিকম সেক্টরে স্পেকট্রাম ফ্রিকোয়েন্সি যত বেশি, পরিষেবা তত ভাল। শিল্প বিশেষজ্ঞদের মতে, টেলিকম পরিষেবা অপারেটর হিসাবে দু’টি ব্যান্ডের হস্তক্ষেপের সম্ভাবনা ৫জি-এর সম্পূর্ণ সুবিধা বের করার জন্য।

এর ফলে গ্রাহকরা সর্বোত্তম অভিজ্ঞতা পাবেন। একইভাবে, সম্ভাব্য সর্বাধিক সঠিক রিডিং পাওয়ার জন্য ফ্লাইটের অল্টিমিটারগুলিকে উচ্চতর ফ্রিকোয়েন্সিতে কাজ করতে হবে। ভারতে এখনও ৫জি রোলআউট এখনও শুরু হয়নি। জানা গিয়েছে, ফেডারেশন অফ ইন্ডিয়ান পাইলট টেলিকমিউনিকেশন ডিপার্টমেন্ট (ডিওটি)-এর সঙ্গে একটি বৈঠকে ফ্রিকোয়েন্সিগুলি একসঙ্গে থাকার বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়েছে। ডিওটি অবশ্য আশ্বস্ত করেছে যে বাণিজ্যিক ৫জি পরিষেবাগুলির ফ্রিকোয়েন্সিগুলি অল্টিমিটার দ্বারা ব্যবহৃত হওয়া থেকে কমপক্ষে ৫৩০ মেগাহার্টজ দূরে থাকায় কোনও অসুবিধা হবে না। সিওএআই-এর ডিরেক্টর জেনারেল এসপি কোচার বলেছেন, ‘আমরা ভারতীয় পাইলট ফেডারেশনের উদ্বেগগুলি বুঝতে পারি, এবং বিষয়টি অতীতেও হাইলাইট করা হয়েছে, যেখানে কর্তৃপক্ষ স্পেকট্রাম হস্তক্ষেপের সমস্যায় অসংলগ্নতা খুঁজে পেয়েছে। ফ্রিকোয়েন্সি ট্রান্সমিশনে ৫৩০ মেগাহার্টজ (৩৬৭০-৪২০০ মেগাহার্টজ) ব্যবধান রয়েছে।’

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়ায়

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories