Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

দেওরের সঙ্গে পরকীয়া স্ত্রীর! সন্দেহবশে খুনের অভিযোগ স্বামীর বিরুদ্ধে

1 min read

।। প্রথম কলকাতা ।।

স্ত্রী পরকীয়ায় জড়িয়েছে দেওরের সাথে। এমনই সন্দেহ করে স্ত্রীকে গাছে ঝুলিয়ে খুন করার অভিযোগ উঠল স্বামীর বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটে শুক্রবার পুকুরিয়া থানার মন্ডলপাড়া এলাকায়। জানা যায়, পাড়ায় একটি পিকনিকের আয়োজন করা হয়েছিল। কিন্তু সেখানে দেওরের সাথে হাসি ঠাট্টা করায় সন্দেহ আরও গাঢ় হয় স্বামীর। অবশেষে পিকনিক থেকে বাড়িতে ডেকে নিয়ে গিয়ে ওই গৃহবধূকে আমবাগানে খুন করে গাছে ঝুলিয়ে দেয় তাঁর স্বামী। যদিও এই অভিযোগ একেবারে অস্বীকার করেছেন ওই মৃতার স্বামী। উল্টে ওই গৃহবধূ মানসিক অবসাদগ্রস্ত ছিলেন বলে দাবি করেন তাঁর স্বামী। যদিও ওই গৃহবধূর পরিবার দাবি করেন তাঁর স্বামী সন্দেহের বশেই তাকে খুন করেছে। পুরো ঘটনার তদন্তে নেমেছে পুলিশ।

পুলিশ সূত্রে খবর, মৃত ওই গৃহবধূর নাম পুষ্প গোস্বামী। বছর ২০-র ওই গৃহবধূর নয় মাস আগে বিয়ে হয় পুকুরিয়া মন্ডলপাড়া এলাকার এক যুবক বুবাই গোস্বামীর সাথে। কিন্তু বিয়ের কয়েক মাস পর থেকেই তাঁর স্বামী সন্দেহ করত, যে পুষ্প তাঁর দেওর দীপঙ্করের সাথে পরকীয়ায় জড়িয়েছে। এই নিয়ে তাদের পারিবারিক জীবনে অশান্তি লেগেই ছিল। জানা যায় পুষ্প বেশ কিছুদিন আগে তাঁর দেওরের সাথে বাড়ি ছাড়াও হয়েছিল। কিন্তু গ্রামে সালিশি সভা ডেকে আবার সব মিটমাট করে শ্বশুর বাড়ি ফিরে যায় পুষ্প। মৃতার স্বামী বুবাই গোস্বামী অবশ্য বলেন, শুক্রবার রাতে পাড়ায় যে পিকনিকের আয়োজন করা হয়েছিল সেখান থেকে হাসিখুশিভাবে বাড়ি ফিরে আসে পুষ্প। তারপর মাঝ রাতে উঠে একবার বাইরে যায় সে। কিন্তু তাঁর ফিরতে অনেক দেরি হওয়ায় তাকে খুঁজতে বের হয় বুবাই।

শেষে বাড়ি থেকে ১০০ মিটার দূরে আমবাগানের কাছে ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার হয় পুষ্পর। তাকে উদ্ধার করে মালদা মেডিকেল কলেজ এবং হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু সেখানে তাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন চিকিৎসকরা। মানসিক অবসাদগ্রস্ত হওয়ার কারণে নিজেই এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে দাবি করছেন তাঁর শ্বশুরবাড়ির লোকজন। যদিও এ বিষয়ে মৃত গৃহবধূর বাবা সুকুমার গোস্বামী বলেন , তাঁর মেয়েকে বিয়ের পর থেকেই সন্দেহ করতো জামাই। সাধারণ হাসি-ঠাট্টাকেও সে পরকীয়া ভেবে নিয়েছিল। যার ফলে ইচ্ছে করে শ্বাসরোধ করে তাঁর মেয়েকে খুন করে গাছে ঝুলিয়ে দিয়েছে জামাই। মৃত ওই গৃহবধূর পরিবারের তরফ থেকে জামাইয়ের উপযুক্ত শাস্তির দাবি জানানো হয়।

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়ায়

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories