Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

নেতাজির প্রতি শ্রদ্ধা, ২৩ জানুয়ারি থেকেই উদযাপন হবে প্রজাতন্ত্র দিবস

।।প্রথম ভারত।।

দেশের প্রধানমন্ত্রীর কূর্সিতে নরেন্দ্র মোদী বসার পর থেকেই ভারতের বীর সন্তানরা গুরুত্ব পেয়ে এসেছেন। দেশের পতাকা যাঁরা উচ্চে তুলে এসেছেন, জাতি ধর্ম নির্বিশেষে তাঁদের জন্মদিনে নতুন নতুন কর্মসূচি নিয়েছে কেন্দ্র। এবার নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বসুর জন্মদিনকেও বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে সরকারা জানিয়েছে, নেতাজির জন্মদিন ২৩ জানুয়ারি থেকেই এবার পালন শুরু হবে সাধারণতন্ত্র দিবসের। দেশের প্রতি সুভাষচন্দ্র বসুর নিষ্টা। কর্তব্যপরায়ণতা ও সর্বোপরি তাঁর বীরত্বকে সম্মান জানাতেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

নেতাজি ছিলেন ভারতীয় স্বাধীনতা সংগ্রামের অন্যতম প্রধান ব্যক্তিত্ব। তিনি ওড়িশার কটক শহরে ১৮৯৭ সালের ২৩ জানুয়ারি জন্মগ্রহণ করেন। আজাদ হিন্দ ফৌজকে নিয়ে তাঁর অসামান্য বীরত্বগাঁথা দেশের স্বাধীনতার ইতিহাসে স্বর্ণাক্ষরে লেখা রয়েছে। ভারতের প্রধানমন্ত্রী বরাবরই নেতাজির গুণগ্রাহী এবং অজস্র বার নিজের ভাষণে এই বাঙালি বীরের নাম উল্লেখ করেছেন। এতদিন ২৪ জানুয়ারি থেকে সাধারণতন্ত্র দিবসের সরকারি আনুষ্ঠানিকতা শুরু হত। পাশাপাশি ২৩ জানুয়ারি আলাদা ভাবে নেতাজির জন্মদিনটিও পালন করত কেন্দ্র। কেন্দ্রের ক্ষমতায় আসার পর ২৩ জানুয়ারিকে নরেন্দ্র মোদী সরকার ‘পরাক্রম দিবস’ হিসাবে পালন করে থাকে।ভারতের ইতিহাস ও সংস্কৃতির গুরুত্বপূর্ণ দিকগুলিকে বিশেষ ভাবে উদযাপন ও স্মরণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার।

সেই সূত্রেই এবার থেকে সুভাষচন্দ্র বসুর জন্মদিন ২৩ জানুয়ারি থেকেই সাধারণতন্ত্র দিবসের আনুষ্ঠানিক উদযাপন শুরু করতে চাইছে কেন্দ্র। এর আগেই কেন্দ্র সারা দেশে নেতাজির স্মৃতিবিজরিত স্থানগুলিকে নিয়ে আলাদা পরিকল্পনা করেছিল। ২০২১ সালের অক্টোবরে কেন্দ্রের পর্যটনমন্ত্রক আজাদ হিন্দ সরকার গঠনের বার্ষিকীতে (২১ অক্টোবর) কিউরেটেড ট্যুরের পরিকল্পনার কথা জানায়। এই প্রসঙ্গে পর্যটন মন্ত্রকের এক আধিকারিক জানিয়েছিলেন, ‘আজাদ হিন্দ ফৌজ ও নেতাজিক স্মৃতিবিজরিত স্থানগুলিকে চিহ্নিত করা হয়েছে। এবার এই বিশেষ পর্যটনে একাধিক পথ অন্তর্ভুক্ত করা হবে। আমরা নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর সঙ্গে সংযুক্ত গন্তব্যগুলির মানচিত্র তৈরি করে কিউরেটেড ভ্রমণপথ তৈরি করেছি।’ সেই সঙ্গে তিনি বলেন, পর্যটন ব্যবসায়ীদের বলা হয়েছে এই স্থানগুলিকে জনপ্রিয় করে তোলার উদ্যোগ নিতে।

পাশাপাশি জানা গিয়েছে, অন্য বেশ কয়েকটি দিনকেও বিশেষ গুরুত্ব সহকারে পালনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেন্দ্র। যার মধ্যে বেশ কয়েকটি গত কয়েক বছর ধরেই পালিত হয়ে আসছে।

কেন্দ্র নির্দেশিত বিশেষ দিনগুলি হল:
১৪ অগস্ট: দেশভাগ স্মরণ দিবস
৩১ অক্টোবর: জাতীয় ঐক্য দিবস (সর্দার বল্লভভাই প্যাটেলের জন্মদিন)
১৫ নভেম্বর: জনজাতি গৌরব দিবস (বিরসা মুণ্ডার জন্মদিন)
২৬ নভেম্বর: সংবিধান দিবস
২৬ ডিসেম্বর: বীর বাল দিবস (গুরু গোবিন্দ সিংয়ের চার ছেলেকে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয় এই দিনে)

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়ায়

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories