Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

জাতীয় শোকের সময় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে পার্টি, রানির কাছে ক্ষমা চাইল বরিস সরকার

1 min read

।।প্রথম কলকাতা।।

ওমিক্রন আর ডেল্টার জোড়া ফলায় একেবারে জেরবার ব্রিটেন। আর এই অবস্থার মধ্যেই ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় ডাউনিং স্ট্রিটে একাধিক পার্টি বিতর্ক নিয়ে উত্তপ্ত দেশটির রাজনীতি। প্রবল সমালোচনার মুখে পড়তে হয়েছে ব্রিটিশ প্রধামন্ত্রী বরিস জনসনকে। এবার এই নিয়ে ব্রিটেনের রানির প্রশাসনিক দফতরর বাকিংহাম প্যালেসের কাছে ক্ষমা চেয়েছে ডাউনিং স্ট্রিট।

এদিকে গতবছরও রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের স্বামী প্রিন্স ফিলিপের অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ার আগের রাতে ডাউনিং স্ট্রিটে পার্টি করেন কার্যালয়ের কর্মীরা। ব্রিটেনের অন্যতম প্রচার মাধ্যম টেলিগ্রাফে প্রথম এই পার্টির কথা প্রকাশিত হয়। টেলিগ্রাফের প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০২১ সালের ১৬ এপ্রিল পুরো রাতজুড়ে এই পার্টি চলেছিল। এ নিয়ে প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের মুখপাত্র জানিয়েছেন, যখন জাতীয় শোকের সময় চলছিল তখন এ ধরনের পার্টি নিয়ে গভীরভাবে অনুতপ্ত হওয়া উচিত।

এদিকে পার্টিগুলোতে বরিস জনসন ছিলেন না বলে জানা গেছে। যদিও তার কার্যালয়ে কোভিড-১৯ নিয়ম ভঙ্গ হওয়ায় প্রশ্নের মুখে পড়েছেন তিনি। একের পর এক পার্টি বিতর্ক নিয়ে বিরোধী দলের তীব্র নিন্দার মুখে পড়েছেন বরিস জনসন। বিরোধী দলগুলি ডাউনিং স্ট্রিটের আচরণ নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন। সে সময় কোভিডের কারণে নানা কড়াকড়ি চলছিল ব্রিটেনে। ফলে রানি এলিজাবেথকেও প্রিন্স ফিলিপের অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ায় একাই বসে থাকতে হয়েছিল। অথচ সেই একই সময়ে দু’টি পার্টি আয়োজিত হয় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে।

গত বছরের ১৬ এপ্রিলে ব্রিটেনে ঘরের মধ্যে জমায়েতের উপরেও নিষেধাজ্ঞা আরোপিত ছিল। এ নিয়ে লেবার নেতা কিয়ের স্টারমার বলেন, ‘এটিই প্রমাণ করে যে, বরিস জনসন কীভাবে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের অবমানানা করেছেন। এই কনজারভেটিভরা ব্রিটেনকে জুবিয়ে দিচ্ছে। শুধু ক্ষমা চেয়ে প্রধানমন্ত্রী পার পাবেন না। বরিস জনসনের উচিৎ পদত্যাগ করা।’

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়ায়

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories