Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

‘মমতার মদতেই নেতারা কথা বলছেন অভিষেকের বিরুদ্ধে!’ কেন এমন বললেন অধীর?

|| প্রথম কলকাতা ||

দিনে দিনে বেআব্রু হচ্ছে তৃণমূলের ভেতরের অবস্থা। তৃণমূল এবং গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব, এই দুটি শব্দ দল ক্ষমতায় আসার পর থেকেই শোনা যেত একত্রে। তবে এবার দ্বন্দ্ব একেবারে শাসক দলের প্রথম সারির নেতাদের ভেতর। গোটা ঘটনা যেদিকে যাচ্ছে তাতে বিরোধীরা মমতা আর অভিষেক, দুই গোষ্ঠীর ছবি দেখতে পাচ্ছেন স্পষ্ট।

ঘটনার কেন্দ্রে ডায়মন্ড হারবার। অভিষেক বন্দোপাধ্যায় এর লোকসভা কেন্দ্র। দিন কয়েক আগেই অভিষেক বলেছেন তিনি ব্যক্তিগত ভাবে চাইছেন না আগামী দু মাস কোনো ভোট হোক, নিজের কেন্দ্রে বাজারের সময় থেকে শুরু করে জমায়েত, কড়া নিয়ম তৈরি করে দিয়ে এসেছেন। স্বামীজির জন্মদিনে ৫৩ হাজার টেস্ট হয়েছে। কয়েকদিনের মধ্যেই ডায়মন্ড হারবার মডেল নিয়ে জোর কথা হচ্ছে রাজ্যের সব স্তরে। অন্য সাংসদরাও চাইছেন একই কাজ করতে।

এর মাঝেই ভেতরের দ্বন্দ্ব বেরিয়ে পড়েছে জন সমক্ষে। অভিষেকের এই ব্যক্তিগত মত আর এই ডায়মন্ড হারবার মডেল এক করে কটাক্ষ করেছেন তৃণমূলের বর্ষীয়ান সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়। অন্যদিকে কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়কে একহাত নিয়েছেন কুণাল ঘোষ। আর এতে হালে পানি পেয়েছে বিরোধী শিবির। প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি শুরু থেকেই বলছিলেন, তিনিও সাংসদ, সরকারের সাহায্য পেলে তিনিও কাজ করতে চান নিজের কেন্দ্রে। তবে দলের ভেতরেই এই ডায়মন্ড ক্ল্যাশ নিয়ে অধীর চৌধুরীর সাফ কথা, মমতার মদত ছাড়া সম্ভব নয় অভিষেকের বিরুদ্ধে আওয়াজ ওঠা।

যুক্তিতে বলেছেন, “মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এর অনুমোদন ছাড়া তৃণমূলের কোনো নেতা সরকার বা দিদির ভাইপোর বিরুদ্ধে কথা বলার ক্ষমতা নেই, তাহলে কি আমরা বলতে পারিনা ভাইপোর বিরুদ্ধে যে কথা বলা হচ্ছে তাতে প্রচ্ছন্ন মদত আছে মমতার।” একই সঙ্গে এই ডায়মন্ড হারবার মডেল মমতার পছন্দ কিনা, এবং রাজ্যের অন্যান্য সংসদীয় এলাকায় এই ভাবনা রূপায়ণ করা যায় কিনা তা নিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কিছুই জানাচ্ছেন না কেন, তার থেকেও বড়ো প্রশ্ন তুলে অধীর চৌধুরী বলেছেন, তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদকের নামে মুখ খুলেছেন তাঁরই দলের সাংসদ, অথচ চুপ সুপ্রিমো। কেন?

প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি দায়িত্ব নিয়ে আজ সাংবাদিক বৈঠকে বলেছেন, তৃণমূলের ঘরে শুরু হয়ে গিয়েছে মমতা অভিষেক দ্বন্দ্ব। মুখ্যমন্ত্রীর অনুমোদন ছাড়া কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় কখনোই অভিষেকের নামে মন্তব্য করতে পারেন না। আর মডেল নিয়েই বা মমতা চুপ কেনো তা নিয়েও প্রশ্ন করেছেন তিনি। কংগ্রেস নেতার মতে যিনি সব বিষয়ে কথা বলতে ভাল বাসেন, তিনি বহুল চর্চিত এই মডেল নিয়ে কথা বলছেন না, সেটাই আমার কাছে কৌতুহল তৈরি করছে।

তবে একই সঙ্গে অধীর চৌধুরী বলেছেন, দলের ভেতরে দ্বন্দ্ব হলেও বাংলার একাংশের মানুষের দুর্বলতা আছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এর ওপর। তিনি কিছু দিলে বাংলার মানুষ খুশি মেনে নিয়েছেন। তাঁর সফলতা আছে, এবং সেই ভিত্তির ওপর দিল দাঁড়িয়ে আছে, তাতে মদত আছে প্রশাসনের এবং দলের দুর্নীতির। ডায়মন্ড হারবার মডেল নিয়ে পিকের ভূমিকাও খতিয়ে দেখার কথা বলেছেন তিনি।

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়ায়

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories