Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

মজবুত বন্ধুত্ব ! শ্রীলঙ্কাকে অর্থনৈতিক সহযোগিতার জন্য চার দফা প্যাকেজ চূড়ান্ত ভারতের

1 min read

।।প্রথম ভারত।।

শ্রীলঙ্কার সঙ্গে ভারতের সম্পর্ক বরাবরই দৃঢ়। এবার সেই বন্ধুত্বকে আরও মজবুত করার পথে হাঁটল দুই দেশ। এবার ভারত এবং শ্রীলঙ্কা একটি চার-দফা প্যাকেজ তৈরি করেছে, যার মধ্যে খাদ্য ও ওষুধ আমদানির জন্য রয়েছে ‍‘লাইন অব ক্রেডিট’ এবং মুদ্রা বিনিময় ব্যবস্থা। মনে করা হচ্ছে, এর ফলে দ্বীপ রাষ্ট্রটির অর্থনৈতিক সমস্যা মোকাবেলায় অনেকটাই সহায়তা করা যাবে। বুধবার ও বৃহস্পতিবার দিল্লিতে শ্রীলঙ্কার অর্থমন্ত্রী বাসিল রাজাপাক্ষের সঙ্গে দু’টি বৈঠক হয়েছে ভারতের অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন এবং বিদেশন্ত্রী এস জয়শঙ্করের। এই দুই বৈঠকে প্যাকেজটি চূড়ান্ত হয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

উল্লেখ্য চলতি বছরের জুলাই মাসে শ্রীলঙ্কার অর্থমন্ত্রকের দায়িত্ব নেওয়ার পর এটাই ছিল রাজাপাক্ষের প্রথম বিদেশ সফর। বৃহস্পতিবার রাজাপাক্ষের সফর শেষে শ্রীলঙ্কার হাইকমিশনের পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‍‘দুই পক্ষ স্বল্প ও মধ্যমেয়াদী সহযোগিতার জন্য চারটি স্তম্ভ (পিলার) নিয়ে আলোচনা করেছে।’ সেই সঙ্গে বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘বৈঠকে জরুরী ভিত্তিতে খাদ্য ও স্বাস্থ্য সুরক্ষা প্যাকেজ অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। প্যাকেজে শ্রীলঙ্কায় খাদ্য, ওষুধ এবং অন্যান্য প্রয়োজনীয় বস্তু রফতানি করার জন্য ভারত ক্রেডিট লাইনের সম্প্রসারণের পরিকল্পনা করেছে। এটি একটি শক্তি নিরাপত্তা প্যাকেজ, যাতে ঋণের একটি লাইন অন্তর্ভুক্ত থাকবে। সেই সঙ্গে শ্রীলঙ্কা ভারত থেকে জ্বালানি আমদানি করবে ত্রিনকোমালি ট্যাঙ্ক ফার্মের প্রাথমিক আধুনিকীকরণ করার জন্য।’

বিবৃতিতে আরও বলা হয়েছে, ‍‘প্যাকেজটিতে শ্রীলঙ্কাকে বর্তমান অর্থপ্রদানের ভারসাম্য সমস্যার সমাধান করতে এবং দেশটিতে বিভিন্ন খাতে ভারতীয় বিনিয়োগের সুবিধার্থে অবদান রাখতে ও কর্মসংস্থান সম্প্রসারণে সহায়তা করার জন্য মুদ্রা বিনিময়ের প্রস্তাব অন্তর্ভুক্ত হয়েছে।’ বিবৃতি অনুযায়ী দু’টি দেশ সম্মত হয়েছে যে, এই প্যাকেজটি উপলব্ধি করার পদ্ধতিগুলি ‍‘পরস্পর সম্মত সময়সীমার মধ্যে তাড়াতাড়ি চূড়ান্ত করা হবে’। বৈঠকে রাজাপাক্ষে এবং সীতারামন ‍‘সরাসরি যোগাযোগের লাইন খুলতে’ এবং এই উদ্যোগে সমন্বয় করার জন্য একে অপরের সঙ্গে সরাসরি এবং নিয়মিত যোগাযোগ করতে সম্মত হয়েছেন।

উন্নয়নের সাথে পরিচিত ব্যক্তিরা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেছেন যে, ‍‘এটি গুরুত্বপূর্ণ যে সীতারামন এবং জয়শঙ্কর উভয়ই রাজাপাক্ষের সঙ্গে দুই দফা আলোচনায় অংশ নিয়েছিলেন। এটি শ্রীলঙ্কার সঙ্গে সম্পর্কের প্রতি ভারত যে গুরুত্ব দেয় তা প্রতিফলিত করে।’ তবে সূত্র মারফত জানা গিয়েছে, ২০২০ সালে এক বিলিয়ন ডলার দ্বিপাক্ষিক মুদ্রা অদলবদলের জন্য আবেদন করেছিল শ্রীলঙ্কা। কিন্তু তাদের সেই অনুরোধ এবারের আলোচনায় স্থান পায়নি। শ্রীলঙ্কাকে দেওয়া মুদ্রার অদলবদল দক্ষিণ এশীয় আঞ্চলিক সহযোগিতা সংস্থা (সার্ক) সুবিধার অধীনে করা হবে বলে আশা করা হচ্ছে এবং এর মূল্য হবে ৪০০ মিলিয়ন ডলার।

নয়াদিল্লি এবং কলম্বোর মধ্যে সম্পর্ক এই বছরের শুরুতে কিছুটা উদ্বেগজনক হয়ে ওঠে যখন শ্রীলঙ্কা কলম্বো বন্দরে ইস্ট কন্টেইনার টার্মিনাল পরিচালনার জন্য ভারত এবং জাপানের সঙ্গে ২০১৯ সালের চুক্তি বাতিল করে দেয়। এর ফলে ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠে ভারত ও জাপান। চলতি বছরের অক্টোবরে, রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন শ্রীলঙ্কা পোর্টস অথরিটি (এসএলপিএ) কলম্বো বন্দরের ওয়েস্ট কন্টেইনার টার্মিনালের উন্নয়ন ও পরিচালনার জন্য ভারতের আদানি গ্রুপের সঙ্গে একটি চুক্তি স্বাক্ষর করেছে।

আদানি গ্রুপ এবং এর স্থানীয় অংশীদার জন কিলস হোল্ডিংস যৌথভাবে ওয়েস্ট কন্টেইনার টার্মিনালে ৮৫ শতাংশ অংশীদারিত্ব করবে, যা কলম্বো বন্দরে ভারতকে একটি অত্যন্ত প্রয়োজনীয় কৌশলগত উপস্থিতি দেবে। সেখানে প্রায় ৭০ শতাংশ অপারেশন ভারতের সঙ্গে জড়িত। এবারের সফরেক রাজাপাক্ষে পেট্রোলিয়াম মন্ত্রী হরদীপ সিং পুরি এবং জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত ডোভালের সঙ্গেও দেখা করেন।

শ্রীলঙ্কার হাইকমিশনের বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‍‘এবারের বৈঠকগুলিতে, রাজাপাক্ষে বহু ক্ষেত্রে শ্রীলঙ্কাকে কয়েক বছর ধরে সহায়তার জন্য ভারতকে ধন্যবাদ জানান। সেই সঙ্গে তিনি শ্রীলঙ্কার অর্থনৈতিক পরিস্থিতি এবং কোভিড-পরবর্তী চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় তাঁর সরকারের পদ্ধতির বিষয়ে ভারতীকে অবহিত করেছেন।’ ভারতীয় মন্ত্রীরাও কলম্বোর সঙ্গে নয়াদিল্লির সংহতি প্রকাশ করে বলেছেন, ভারত সর্বদা শ্রীলঙ্কার পাশে দাঁড়িয়েছে। সেই সঙ্গে ভারত জানিয়েছে, বর্তমান পরিস্থিতিতে তার ‍‘প্রতিবেশী প্রথম’ নীতি দ্বারাই মোদী সরকার এগিয়ে চলবে।

আপডেট থাকতে ফলো করুন আমাদের ইউটিউব , ফেসবুক, ট্যুইটার

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories