Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

সমাজে একসাথে থেকেও কোণঠাসা ! ‘বিশ্ব প্রতিবন্ধী দিবস’-এ এই কথাগুলি আপনাকে ভাবাবে

1 min read

।। প্রথম কলকাতা ।।

‘ প্রতিবন্ধী ‘ এই শব্দটির সাথে আমরা প্রত্যেকেই পরিচিত। আর এই শব্দটি যাদের জীবনে অন্যতম যন্ত্রণার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে ,আজ সেই মানুষদেরই দিন। প্রতিবন্ধী বা বিশেষভাবে সক্ষম ব্যক্তিদের আমাদের সমাজ ব্যবস্থা এখনও স্বাভাবিকভাবে মেনে নেয় না। স্কুল-কলেজে, খেলার মাঠে, চাকরির ক্ষেত্রে প্রতি জায়গায় তাদেরকে হীন চোখে দেখা হয়। আসলে মানুষ শিক্ষিত হয়েও অশিক্ষিতের মত পরিচয় দেন নিজেদের ব্যবহারে। প্রতিবছর তাই সারা বিশ্বজুড়ে ডিসেম্বর মাসের ৩ তারিখে পালন করা হয় বিশ্ব প্রতিবন্ধী দিবস। এই বিশেষ দিনে একটাই লক্ষ্য, প্রতিবন্ধী মানুষদের অধিকার মর্যাদা এবং প্রতিবন্ধকতা সম্পর্কে সাধারণ মানুষদের মধ্যে সচেতনতা গড়ে তোলা।

• এই বিশেষ দিবসে কী করা হয় ?

এই বিশেষ দিবসে সারা বিশ্বজুড়ে নানান সংগঠন চেষ্টা করে রাজনৈতিক ,সামাজিক ,সাংস্কৃতিক এবং অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধীদের সমস্যা গুলিকে তুলে ধরতে। তার পাশাপাশি থাকে নির্দিষ্ট কিছু লক্ষ্যমাত্রা। আসলে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিরা সামান্য কিছু বৈশিষ্ট্যের জন্য অন্যান্য মানুষ তাদেরকে আলাদা চোখে দেখে। কিন্তু যা একেবারেই অনুচিত। একটু সামান্য সহযোগিতার পেলেই তারা সমাজের মূল স্রোতে ফিরতে পারেন।

রাষ্ট্রসংঘের গুরুত্বপূর্ণ ঘোষণা

পৃথিবীতে মোট জনসংখ্যার ১৫ শতাংশ মানুষ কোনো না কোনোভাবে প্রতিবন্ধী। ১৯৮১ সালে সর্বপ্রথম রাষ্ট্রসংঘ ‘ আন্তর্জাতিক প্রতিবন্ধী দিবস ‘ এর কথা ঘোষণা করে। এই বছরের বিশেষ লক্ষ্য ছিল, প্রতিবন্ধীদের সমস্ত সমস্যার সমাধান করা।

ঠিক তার পরের বছরই রাষ্ট্রসংঘ প্রতিবন্ধীদের নিয়ে একটি বৃহৎ কর্মসূচির পরিকল্পনা করে। যার প্রথম ধাপেই ছিল প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের ন্যায্য অধিকার। যেখানে জানানো হয়, প্রতিবন্ধীদের সমাজে সমানভাবে গুরুত্ব রয়েছে এবং সমাজে আর পাঁচটা সাধারণ ব্যক্তির মতো থাকাটা মৌলিক অধিকার।

• ‘ প্রতিবন্ধী ‘ শব্দ কি ব্যবহার করা উচিত ?

পরবর্তীকালে ১৯৯২ সালের ৩ রা ডিসেম্বর ঘোষণা করা হয় ‘বিশ্ব প্রতিবন্ধী দিবস’এর কথা। প্রতি বছর এই দিনটিতে বিশ্বের প্রত্যেক দেশই নানান কল্যাণমূলক পরিকল্পনা গ্রহণ করে। তবে এই ‘ প্রতিবন্ধী ‘ শব্দটি নিয়ে যথেষ্ট বিতর্ক রয়েছে। কারণ অনেকে প্রতিবন্ধী হওয়া সত্ত্বেও নানান কৃতিত্বের দ্বারা একজন সাধারণ মানুষকেও ছাপিয়ে যান। ২০১৯ সালে তৎকালীন উপরাষ্ট্রপতি ভেঙ্কাইয়া নাইডু এই দিবসের নাম পরিবর্তন করে ‘বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন ব্যক্তিদের আন্তর্জাতিক দিবস’ রাখার প্রস্তাব রেখেছিলেন।

আপডেট থাকতে ফলো করুন আমাদের ইউটিউব , ফেসবুক, ট্যুইটার

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories