Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

এশিয়ান চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির জন্যে ২০ সদস্যের দল ঘোষণা করল হকি ইন্ডিয়া, অধিনায়ক মনপ্রীত

1 min read

।। প্রথম কলকাতা ।।

আগামী মাসে ঢাকায় আয়োজিত হতে চলা এশিয়ান চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির জন্যে ২০ সদস্যের দল ঘোষণা করেছে ভারতীয় হকি সংস্থা। ভারতীয় দলের নেতৃত্ব দেবেন টোকিও অলিম্পিকের ঐতিহাসিক ব্রোঞ্জজয়ী দলের অধিনায়ক মনপ্রীত সিং। দলে নেই অভিজ্ঞ গোলরক্ষক পিআর শ্রীজেশ।

প্রতিবেশী রাষ্ট্র বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকাতে আয়োজিত হতে চলা এশিয়ান চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির সূচনা ১৪ই ডিসেম্বর। প্রতিযোগিতা শেষ হবে ২২শে ডিসেম্বর। ভারতীয় দলের সহ-অধিনায়ক হিসাবে নির্বাচিত হয়েছেন তারকা ড্র‍্যাগ ফ্লিকার হরমনপ্রীত সিং। টোকিও অলিম্পিকে ঐতিহাসিক ব্রোঞ্জ জয়ের পর এই প্রথমবার মাঠে নামবে ভারতীয় সিনিয়র দল।

এশিয়ান চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির দলে একাধিক নতুন প্রতিভাকে সুযোগ দিয়েছে হকি ইন্ডিয়া। অভিজ্ঞ গোলরক্ষক পিআর শ্রীজেশের অনুপস্থিতিতে ভারতীয় দলের গোল সামলাবেন কৃষ্ণ বাহাদুর পাঠক ও সুরজ কারকেরা। হরমনপ্রীতের নেতৃত্ব রক্ষণভাগে রয়েছেন গুরিন্দর সিং, জার্মানপ্রীত সিং, নীলম সঞ্জীপ, দিপশান তিরকে, বরুণ কুমার ও মনদীপ মোর। অধিনায়ক মনপ্রীতের সঙ্গে মাঝমাঠের দায়িত্ব পেয়েছেন হার্দিক সিং, জশকরণ সিং, সুমিত, রাজকুমার পাল, শামসের সিং, আকাশদীপ সিং। আক্রমণভাগে রয়েছেন ললিত কুমার উপাধ্যায়, দিলপ্রীত সিং, গুরসাহিবজিৎ সিং, শিলানন্দ লাকরা।

প্রতিযোগিতার প্রথম দিনেই দক্ষিণ কোরিয়ার বিরুদ্ধে ম্যাচ দিয়ে অভিযান শুরু করবে গতবারের চ্যাম্পিয়ন ভারত। ভারত, দক্ষিণ কোরিয়া ছাড়া এই প্রতিযোগিতায় অংশ নিচ্ছে জাপান, মালয়েশিয়া, পাকিস্তান ও আয়োজক দেশ বাংলাদেশ। সদ্য নির্বাচিত ভারতীয় দল নিয়ে কোচ গ্রাহাম রিড বলেন – ” দল গঠনের সময় আমাদের ভবিষ্যতের কথা বিবেচনা করতে হয়েছে। ধারাবাহিক সাফল্য পাওয়ার জন্যে শক্তিশালী ও গভীরতা যুক্ত স্কোয়াড গড়ে তুলতে হয়। স্বাভাবিক ভাবেই নতুন খেলোয়াড়দের প্রমাণ করবার সুযোগ দেওয়াটা প্রয়োজন। আমরা এমন একটা দল বেছেছি যেখানে অভিজ্ঞতা ও তারুণ্যের মিশ্রণ রয়েছে।”

ভারতের সূচি

১৪ই ডিসেম্বর – ভারত বনাম দক্ষিণ কোরিয়া
১৫ই ডিসেম্বর – ভারত বনাম বাংলাদেশ
১৭ই ডিসেম্বর – ভারত বনাম পাকিস্তান
১৮ই ডিসেম্বর – ভারত বনাম মালয়েশিয়া
১৯শে ডিসেম্বর – ভারত বনাম জাপান

ওমানের মাস্কাটে আয়োজিত শেষবারের এশিয়ান চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে যুগ্ম চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল ভারত ও পাকিস্তান। বৃষ্টির কারণে সেবারের ফাইনাল ম্যাচ আয়োজন করা সম্ভব হয়নি।