Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

প্রস্রাবে ডিম সিদ্ধ করে খাচ্ছেন চিনারা ! দেদার বিক্রি হচ্ছে এই জনপ্রিয় রেসিপি

।। প্রথম কলকাতা ।।

ডিম সিদ্ধ এমন একটি খাবার যা কমবেশি প্রায় অনেকেরই প্রিয়। কিন্তু আজকের প্রতিবেদনে জানবেন চিনের এক অদ্ভুত সংস্কৃতির কথা। যেখানে বসন্ত ঋতুতে প্রস্রাবে ডিম সিদ্ধ করে খাওয়ার রীতির প্রচলন রয়েছে। শুধু তাই নয় এইসময় ডিমের চাহিদাও প্রচুর বেড়ে যায়। এই নিয়ম প্রচলিত রয়েছে চিনের জোজিয়াং প্রদেশে।

প্রসাবে ডিম সিদ্ধ পছন্দ স্থানীয়দের !

স্থানীয় ভাষায় এই বিশেষ ডিম সিদ্ধকে বলা হয় ‘তংজি ডেন’ , আবার অনেকে বলেন ‘বয় এগ’। আর প্রস্রাবে ডিম সিদ্ধর পদ্ধতিকে বলা হয় ‘ভার্জিন বয় এগ’ । কিন্তু জলের বদলে প্রস্রাবে ডিম সিদ্ধ করার এই অদ্ভুত রীতি কেন ? বাস্তবে এ ধরনের রীতি অবাক করার মত। বিশেষ করে বসন্ত ঋতুতে এই প্রদেশে ডিমের চাহিদা প্রচুর বেড়ে যায়। এখানকার মানুষদের নাকি প্রস্রাবের ডিম সিদ্ধ অত্যন্ত পছন্দের একটি খাদ্য। এই ডিম কেনার জন্য ডিমওয়ালাদের কাছে রীতিমতো লাইন পড়ে যায় এবং বিক্রি হয় হটকেকের মতো।

স্কুলের সামনে বালতি নিয়ে ডিমওয়ালাদের ভিড়

বসন্ত ঋতুতে এই প্রদেশের বিভিন্ন স্কুলের ছেলেদের প্রস্রাব সংগ্রহ করা হয়। কারণ এই প্রথা অনুযায়ী, অবিবাহিত পুরুষের প্রস্রাবের প্রয়োজন। তাই এই সময় চিনের স্কুল গুলির সামনে রীতিমতো ডিম বিক্রেতাদের ভিড় পড়ে যায়।

কেউ বড় গামলা , আবার কেউ বা বালতি নিয়ে স্কুল ছুটির অপেক্ষায় দাঁড়িয়ে থাকেন। শুধুমাত্র স্কুলের বাথরুম থেকে মূত্র সংগ্রহের জন্য। তবে শুধু মাত্র দশ বছরের কম বয়সের বাচ্চাদের প্রস্রাব নেওয়া হয়। কিন্তু এই বয়সের বাঁধাধরা নিয়মের পিছনে কোনো যৌক্তিকতা খুঁজে পাওয়া যায়নি। এই নিয়ম প্রায় বহুদিন ধরে প্রচলিত রয়েছে এই চিনের এই প্রদেশে।

• ডিম সিদ্ধর প্রক্রিয়া অবাক করবে !

স্থানীয়রা বিশ্বাস করেন এই ডিম খেলে নাকি শরীরের সমস্ত রোগ ব্যাধি দূর হয়। এমনকি জ্বর সর্দি কাশি একদমই কাবু করতে পারে না। পুরো একদিন লাগে নাকি এই ডিম সিদ্ধ তৈরি করতে। প্রথমে প্রস্রাবে ফুটিয়ে নিয়ে তারপর খোসা ছাড়িয়ে আবার প্রস্রাবে ফোটানো হয়। এমনকি যাতে ডিম পুড়ে কিংবা ভেঙে না যায় ,তার জন্য নতুন করে আবার প্রস্রাব ঢালা হয়। এই প্রদেশের স্থানীয় মানুষরা এই খাবারটিকে অত্যন্ত স্বাস্থ্যকর বলে মনে করেন। তবে এর আদৌ কোন ঔষধি গুণ রয়েছে কিনা তা যথেষ্ট সন্দেহের।

আপডেট থাকতে ফলো করুন আমাদের ইউটিউব , ফেসবুক, ট্যুইটার

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম