Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

ব্রেকিং: হাইকোর্টের নির্দেশে দীপাবলিতে বাজি বিক্রি ও পোড়ানো নিষিদ্ধ হল

1 min read

।। প্রথম কলকাতা ।।

শেষমেষ হস্তক্ষেপ করতে হল হাইকোর্টকে। কালীপুজো ছট পুজো বড়দিনে নিষিদ্ধ হলো শব্দবাজি।এই নির্দেশ অক্ষরে অক্ষরে পালন করতে হবে প্রশাসনকে জানিয়ে দিল হাইকোর্ট। আজ হাইকোর্টের তরফে কড়া নির্দেশিকা জারি করা হয়। রাজ্যের সব ধরনের শব্দ বাজি নিষিদ্ধ করা হল। হাইকোর্টের নির্দেশে বলা হয়েছে দীপাবলিতে পড়ানো যাবে না কোনো ধরনের শব্দ বাজি। পুলিশকে কড়া হতে নির্দেশ দিয়েছে হাইকোর্ট। তবে প্রদীপ মোমবাতি ব্যবহার করা যাবে বলে জানানো হয়েছে। এছাড়াও জানানো হয়েছে কালীপুজো ক্রিসমাস জগদ্ধাত্রী পুজো তে বাজি বিক্রির কোনো ছবি ডিসপ্লে করা যাবে না।

এবারও কি কালীপূজায় বাজি নিষিদ্ধ হবে? এই প্রশ্নটা থেকে গিয়েছিল সকলের মধ্যেই। কারণ করোনা পরিস্থিতিতে হাইকোর্টে জনস্বার্থ মামলা দায়ের করেছিলেন এক সমাজকর্মী।পুজোর পর রাজ‍্যে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ক্রমাগত বৃদ্ধি পাচ্ছে। বাজির গন্ধে অনেকেরই শ্বাসকষ্ট বেড়ে যায়। বাজেট ধোঁয়ায় করোনা রোগীর শ্বাসকষ্ট বাড়ে অসুস্থ হয়ে পড়তে পারেন সাধারণ মানুষও। সে কারণে এবার বাজি পোড়ানো এবং বিক্রিতে নিষেধাজ্ঞা জারি করল কলকাতা হাইকোর্ট ।

কালীপুজো, দীপাবলি ,কার্তিক পুজো, জগদ্ধাত্রী পুজো পর্যন্ত অর্থাৎ গোটা উৎসবের মরসুমে বাজি নিষিদ্ধ করল কলকাতা হাইকোর্ট। সারা রাজ্য জুড়ে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে। বাজি কেনা বিক্রি ফাটানো নিষিদ্ধ করল আদালত।যে কোনো ধরনের বাজি পোড়ানোর উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করল আদালত। বাড়ছে বহু মানুষের শ্বাসকষ্টের সমস্যা রয়েছে। বাজি পোড়ালে বাজি পোড়ালে বাজির গন্ধ শরীরের আরো বেশি ক্ষতি করতে পারে।

কোনো বাজি এই বছর পড়ানো যাবে না। আদালত জানিয়েছে বেঁচে থাকার অধিকার মানুষের মৌলিক অধিকার বৃহত্তর স্বার্থের কথা ভেবে ক্ষুদ্র স্বার্থ অপেক্ষা করতে হবে। পরিবেশবান্ধব বাজি চিহ্নিত করার কোনো উপায় পুলিশের কাছে নেই। এদিকে করণা পরিস্থিতিতে যাদের শ্বাসকষ্টের সমস্যা রয়েছে তারা অসুবিধার মুখে পড়তে পারেন। তাই সমস্ত ধরনের শব্দ বাজি নিষিদ্ধ করা হল। শুক্রবার কলকাতা হাইকোর্ট জানিয়ে দিলো গত বছরে নির্দেশিকায় বহাল রাখা হচ্ছে। কোনো বাজি এই বছর পড়ানো যাবে না।

News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন প্রথম কলকাতা অ্যাপ