Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

পীরগঞ্জের মাঝপাড়া গ্রামে হামলা: পুলিশি হেফাজতে আরও ১০

1 min read

।প্রথম কলকাতা।।

রংপুরের পীরগঞ্জে হিন্দুপল্লিতে হামলার ঘটনায় দায়ের করা মামলায় নতুন আরও ১০ আসামির দুই দিনের পুলিশি হেফাজত মঞ্জুর করেছে আদালত। আজ দুপুরে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক ফজলে এলাহী খান এই আদেশ দেন। এ নিয়ে ৬০ জন আসামিকে হেফাজতে নিয়েছে বাংলাদেশ পুলিশ। এ সম্পর্কে পীরগঞ্জ আমলি আদালতের সাধারণ নিবন্ধক শহীদুর রহমান বলেন, নতুন করে ১০ আসামির দুই দিনের পুলিশি হেফাজত মঞ্জুর হয়েছে। এর আগে দুই দফায় ৫০ জন আসামিকে তিন দিনের রিমান্ডে নেওয়া হয়েছিল। হেফাজত শেষে তাদের কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

এই মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মাহবুবুর রহমান এদিন বলেছেন, ‘হিন্দুদের বাড়িঘরে হামলা, ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ ও লুটের মামলায় নতুন ১০ জন আসামির সাত দিনের পলিস হেফাজতের আবেদন করা হয়েছিল। আদালত শুনানি শেষে দুই দিনের হেফাজত মঞ্জুর করেছে। তাদের কাছে অনেক গুরুত্বপূর্ণ তথ্য থাকতে পারে, সে কারণে পুলিশি হেফাজতে নেওয়া হয়েছে।’

এদিকে, পীরগঞ্জ থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সরেস চন্দ্র জানান, ‘রিমান্ড পাওয়া ১০ জনের মধ্যে রয়েছে, হামলার ঘটনার সময়ে পেট্রোল নিয়ে মোটরসাইকেলে করে আসা আবদুল্লাহ আল মামুন (২৩) ও ওমর ফারুক ওরফে টনেট (২৪)। গত রবিবার (২৪ অক্টোবর) মধ্যরাতে ওই দু’জনকে গাইবান্ধার সাদুল্যাপুর উপজেলার আলীনগর গ্রামের বাড়ি থেকে গ্রেফতার করা হয়। এই দু’জন জামায়ত-শিবিরের কর্মী। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করলে ঘটনার বিষয়ে আরও গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া যেতে পারে।’

সেই সঙ্গে সরেস চন্দ্র জানান, ‘বড় করিমপুর মাঝিপাড়া গ্রামে সংঘটিত হিংসার ঘটনায় চারটি মামলা হয়েছে। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে করা তিনটি মামলা এবং হামলা, ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ ও লুটপাটের ঘটনায় আরেকটি মামলা করা হয়েছে। সর্বশেষ গত মঙ্গলবার (২৬ অক্টোবর) রাতে নজরুল ইসলাম নামে একজনকে পীরগঞ্জের চতরা এলাকা থেকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এ নিয়ে গ্রেফতার ব্যক্তির সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৭০-এ।

গ্রেফতার হওয়া ব্যক্তিদের মধ্যে রয়েছে, ফেসবুকে আপত্তিকর পোস্ট দেওয়া ও হিংসার ঘটনা উসকে দেওয়ার অন্যতম হোতা পরিতোষ সরকার, উজ্জ্বল হোসেন, বহিষ্কৃত ছাত্রলীগ নেতা সৈকত মণ্ডল ও মসজিদের ইমাম রবিউল ইসলাম সহ অনেকই। এখন পর্যন্ত সাত আসামি হামলার ঘটনায় নিজেদের জড়িত থাকার দায় স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন।

উল্লেখ্য, গত রবিবার (১৭ অক্টোবর) রাতে ফেসবুকে ধর্ম অবমাননার অভিযোগ তুলে পীরগঞ্জের রামনাথপুর ইউনিয়নের বড়করিমপুর মাঝিপাড়া গ্রামে হিন্দু সম্প্রদায়ের বাড়িঘরে হামলা, ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ করে মৌলবাদীরা। এই ঘটনায় গ্রামটির ১৫টি পরিবারের ২১টি বাড়ির সবকিছু আগুনে পুড়ে যায়। সেদিন সব মিলিয়ে অন্তত ৫০টি বাড়িতে ভাঙচুর ও লুটপাট করা হয়েছে। এই ঘটনায় দায়ের হওয়া চার মামলায় ৭০ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এদের মধ্যে প্রথম দফায় ৩৭ এবং দ্বিতীয় দফায় আরও ১৩ জন আসামির তিন দিনের হেফাজতে নিয়েছে পুলিশ।

News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন প্রথম কলকাতা অ্যাপ