Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

গ্যারেজের মালিক থেকে ইউটিউবের সিইও, সুজান ওজস্কির অবাক করা গল্প

1 min read

। প্রথম কলকাতা । ।

এই মুহূর্তে ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপের মতোই আমাদের সকলের জীবনে এক অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ হয়ে উঠেছে ইউটিউব। দিনে একবার হলেও ইউটিউব খুলে থাকেন সকলে। এমন কোনো তথ্য নেই যা এই প্ল্যাটফর্ম থেকে পাওয়া যায়না। কিন্তু ব্যবহার করলেও ইউটিউবের সিইও কে জানেন? তার বেড়ে ওঠার গল্প শুনেছেন?

বর্তমানে ইউটিউবের প্রধান নির্বাহী অফিসার হলেন সুজান ওজস্কি। ২০১৪ সাল থেকে ইউটিউবের সিইও পদে রয়েছেন তিনি। গত ৭ বছর ধরে এতো বড় পদে থাকলেও তার বেড়ে ওঠার গল্প শুনলে অনুপ্রেরণা দেবে আপনাকেও। মূলত, সুজান ওজস্কি জনসমক্ষে খুব একটা আসেন না। তাই তার উত্থানের অনেকটা অংশ বেশিরভাগ মানুষের কাছেই অজানা। তবে আজ সেই উত্থানের কিছু অংশ উন্মোচন করা যাক।

সাল ১৯৯৮, যেই বছরে ল্যারি পেজ এবং সার্জে ব্রিন অফিসিয়ালি গুগল লঞ্চ করে। কিন্তু লঞ্চ হলেও একটি অফিস বা একটি বড় জায়গার প্রয়োজন ছিল গুগলের। গুগলের সেই খামতি পূরণ করেন সুজান ওজস্কি। তিনি তার ক্যালিফোর্নিয়ার মেন্টো পার্কের একটি গ্যারেজ মাসিক ১৭০০ ডলারে ভাড়া দেন ল্যারি পেজ এবং সার্জে ব্রিনকে।

ঠিক তার পরের বছরই ১৯৯৯ সালে ১৬ তম কর্মী হিসাবে গুগলে যোগ দেন তিনি। বিশ্বব্যাপী গুগল তখন অতটা পরিচিতি পায়নি। সুজান ওজস্কি গুগলের মার্কেটিং ম্যানেজার হিসাবে যুক্ত হোন। কিন্তু কে জানতো তখনের অনামী একটি সংস্থা আজ বিশ্বের টেক জায়েন্ট হিসাবে প্রতিষ্ঠিত হবে! সেইসময় সুজান ওজস্কিকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল বিভিন্ন উপলক্ষ এবং অনুষ্ঠান অনুযায়ী গুগলের লোগো তৈরি করা এবং সেটি মানুষের কাছে আকর্ষণীয় করে তোলা। যা আজ আমরা বিভিন্ন উপলক্ষ অনুযায়ী গুগল খুললে দেখতে পাই।

২০০৩ সালে সুজান ওজস্কি পর্যবেক্ষণ করেন গুগলের যে অ্যাড অফার রয়েছে সেগুলো শুধু সার্চ অপশনে না রেখে বিভিন্ন ব্লগ এবং ওয়েবসাইটের জন্য উপলব্ধ করা উচিত। বর্তমানে সেই পর্যবেক্ষণ অ্যাডসেন্স (AdSense) হিসাবে পরিচিত। যার পিছনে অবদান সুজান ওজস্কির। কিছু বছর পরে ২০০৬ সালে সুজান ওজস্কি ইউটিউব নামে একটি ওয়েবসাইট নোটিশ করেন যেখানে ফ্রি তে ভিডিও পাবলিশ করা হত। তিনি সেই সময় বুঝতে পেরেছিলেন ইউটিউবের ভিডিও স্ট্রিমিং পরিষেবা আগামী দিনে আরো বাড়তে পারে। তক্ষনি গুগলকে তিনি অনুরোধ করেন এই প্ল্যাটফর্মটিকে কিনে নেওয়ার!

সেই সময় ১.৬৫ বিলিয়ন ডলারে ইউটিউবকে কিনে ফেলে গুগল। এক পরিসংখ্যান অনুযায়ী, বর্তমানে ইউটিউবের ভ্যালুয়েশন ১৭০ বিলিয়ন ডলারেও বেশি। তারপর ২০১৪ সালে ইউটিউবের সিইও পদে দায়িত্ব দেওয়া হয় তাকে। বলা হয়, সুজান ওজস্কির সিইও পদে দায়িত্ব পাওয়া পর তার অধীনেই ইউটিউব প্রতি মাসে ২ বিলিয়ন ইউজার এবং এই পরিমাণ জনপ্রিয়তা লাভ করতে পেরেছে।

News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন প্রথম কলকাতা অ্যাপ