Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

জিতলেই তৈরী হবে কালনা-শান্তিপুর ব্রিজ , প্রচারে এসে কথা দিলেন অভিষেক

1 min read

।। প্রথম কলকাতা ।।

এক প্রশাসনিক বৈঠকে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী ঘোষণা করেছিলেন ১০৯৮ কোটি টাকা খরচ করে কালনা থেকে শান্তিপুর দীর্ঘ ১১ কিলোমিটারের ব্রিজ তৈরি হবে। কিন্তু জমি অধিগ্রহণ নিয়ে নানান জটিলতা থাকায় তা বাস্তবায়িত হয়নি। আজ শান্তিপুর উপনির্বাচনের ঠিক তিন দিন আগেই সেই প্রসঙ্গটিই আরেকবার উত্থাপন করলেন তৃণমূল সেকেন্ড ইন-কম্যান্ড অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। সরাসরি ঘোষণা করলেন শান্তিপুর থেকে ব্রজকিশোর গোস্বামীকে বিধানসভায় পাঠালে নির্মাণ শুরু হবে কালনা-শান্তিপুর ব্রিজ। এমনকি জমিগ্রহণে বরাদ্দ করা হয়েছে ৮৫ কোটি টাকা বলেও জানান অভিষেক। আর সেই বিজের উদ্বোধন করতে আসবেন স্বয়ং মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়!

চলতি মাসের শেষে রাজ্যের চার কেন্দ্রে উপনির্বাচন। আজ তৃণমূল প্রার্থী ব্রজকিশোর গোস্বামীর সমর্থনে নদীয়ার শান্তিপুরে আসেন তৃণমূলের সর্বভারতীয় সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। একুশের নির্বাচনে শান্তিপুর কেন্দ্রে পদ্ম প্রতীকে জয়লাভ করেন জগন্নাথ সরকার। কিন্তু সাংসদ পদ বজায় রাখতে বিধায়ক পদ থেকে ইস্তফা দেন তিনি। যে কারণে আসন্ন উপনির্বাচনে পরাজিত আসন পুনরুদ্ধারে তৎপর রাজ্যের শাসক দল।

আজ ফের একবার বিজেপিকে কড়া ভাষায় আক্রমণ করেন অভিষেক। তাঁর কথায়, “মানুষের রায়কে অস্বীকার করে দিল্লিতে সাংসদ পদ বজায় রাখতে বিধায়ক পদ ছেড়েছেন জগন্নাথ সরকার কারণ তাঁরা নিজেদের উন্নতি নিয়ে ভাবছে, মানুষের নয়। তাই আমরা আগেও বলেছিলাম বহিরাগত আসে, বহিরাগত যায়, বাংলা নিজের মেয়েকে মেয়েকেই চায়।“ একই সঙ্গে শুভেন্দু অধিকারীকে কটাক্ষ করে বলেন, “বাংলাদেশে ন্যাক্কার জনক ঘটনা ঘটেছে আর সেটা নিয়ে বিরোধী দলনেতা বলছেন এই ঘটনায় বেশি ভোট পাবে বিজেপি। তার মানে, কারুর পৌষমাস, কারুরু সর্বনাশ।“

পাশাপাশি তিনি বলেন, সুখে না পেলেও দুঃখে তৃণমূল কংগ্রেস মানুষের পাশে থাকবে। তাঁর মতে, লড়াই হবে উন্নয়নের পরিসংখ্যান দিয়ে। কয়লা পয়াচার কান্ডে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে বারবার তলব করছে ইডি। এ প্রসঙ্গে আজ অভিষেক বলেন, “আমাকে ভয় দেখানো হচ্ছে। কিন্তু ভয় দেখিয়ে তৃণমূলকে দমিয়ে রাখা যাবে না। আমি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের যোগ্য সৈনিক। আমৃত্যু সেই আদর্শকে সঙ্গে নিয়েই চলব।“

News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন প্রথম কলকাতা অ্যাপ