Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

যে হ্রদের জলে স্নান করলে সেরে যেত রোগ-বালাই! ছুটে আসত বিত্তশালী লোকেরা

1 min read

।। প্রথম কলকাতা ।।

প্রশান্ত মহাসাগরের উপকূলীয় একটি দেশ পেরু। দেশটির নাম শুনলেই চোখের সামনে ভেসে ওঠে ইনকা সভ্যতার সবচেয়ে বড় নিদর্শন মাচু পিচ্চুর কথা। শুধু মাচু পিচ্চুই? রংধনু পাহাড় কিংবা নাজকা লাইন দেখার জন্যও প্রতিবছর লাখ লাখ পর্যটক ভীড় জমান লাতিন আমেরিকার এই দেশটিতে।

তো, পেরুর উপকূলীয় সেচুরা মরুভূমিতে একটি নগরী রয়েছে, যার নাম হুয়াকাচিনা। নগরীর মাঝখানে অবস্থানের জন্য এটিকে প্রকৃতির এক বিস্ময় বলা হয়, কেউ কেউ একে একখণ্ড স্বর্গও বলে থাকে!

তবে মরুভূমির মাঝখানে হলেও জল নিয়ে আপনাকে চিন্তা করতে হবে না। কারণ এর মাঝখানেই স্বচ্ছ এক জলধারার দেখা পাবেন। সবুজ গাছগাছালিতে পূর্ণ এই জলধারায় আপনি চাইলে সাঁতার কাটা বা নৌকা নিয়ে ঘুরে বেড়াতে পারেন।

তো, কিভাবে মরুভূমির বুকে এই জলধারা সৃষ্টি হল তা নিয়ে রয়েছে অনেক প্রচলিত গল্প। বলা হয়ে থাকে বহু বছর আগে ইনকা রাজকন্যা একজন সুদর্শন যুবককে প্রচণ্ড ভালোবাসত। কিন্তু পরবর্তীতে হঠাৎ করে সে যুবক মারা গেলে রাজকন্যা তার ভালোবাসার মানুষের মৃত্যুতে এত বেশি কাঁদলেন যে, তার চোখের জল থেকেই পরবর্তীতে সেই জলধারা সৃষ্টি হয়। এছাড়াও আরো কিছু জনশ্রুতি রয়েছে। তবে সবগুলোতেই ইনকা রাজকন্যার কথা বলা হয়েছে।

আর হ্যাঁ, রাতের বেলায় এই হুয়াকাচিনা যেন পুরোপুরি পাল্টে গিয়ে নগরী জুড়ে আলোর বিচিত্র প্রদর্শনীতে এক অদ্ভুত সৌন্দর্যে আবির্ভূত হয়। তবে একটা সময় ছিল, যখন এই জলধারাটিকে নিয়ে এক অলৌকিক বিশ্বাস জন্ম নেয় সেখানকার মানুষের মনে। তাদের বিশ্বাস ছিল- এই হ্রদের জলে স্নান করলে বিভিন্ন রোগবালাই সেরে যায়। যেকারণে পেরুর বিত্তশালী লোকেরাও দূরদূরান্ত এই হ্রদে স্নান করতে ছুটে আসত!

News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন প্রথম কলকাতা অ্যাপ