Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

‘মৃত মায়ের কারণে আজ আমি টার্গেট’: উদ্বেগ প্রকাশ সমীর ওয়াংখেড়ের

1 min read

।।প্রথম কলকাতা।।

গতকালই বলিউড সুপারস্টার শাহরুখ খানের ছেলে আরিয়ান খান ড্রাগ কেস-এ নতুন চমকে দেওয়ার মতো তথ্য সামনে এসেছে। কিরণ গোসাবির বডিগার্ড প্রভাকর সেইল একটি হলফনামায় চমকে দেওয়ার মতো তথ্য দিয়ে দিয়ে জানিয়েছিলেন, গোসাভি আরিয়ান খানকে ছাড়ার জন্য ২৫ কোটি টাকা চেয়েছিলেন। প্রভাকরের হলফনামা অনুযায়ী এই দাবি এনসিবির চিফ সমীর ওয়াংখেড়ের তরফ থেকে করা হয়েছিল এবং তাঁর ভাগেও টাকা যাওয়ার কথা বলা হয়েছিল। এদিকে, প্রভাকর আবার আরিয়ান খান ড্রাগস কেসে এনসিবির সাক্ষীও বটে। আর তারপরই আজ (সোমবার) নারকোটিক্স কন্ট্রোল ব্যুরো (এনসিবি)-র জোনাল ডিরেক্টর সমীর ওয়াংখেড়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে জানিয়েছেন, তাঁর মৃত মায়ের জন্যই তাঁকে টার্গেট করা হচ্ছে। সেই সঙ্গে তিনি জানিয়েছেন, তিনি নিজেই তদন্তের জন্য প্রস্তুত।

এএনআই-এর প্রতিবেদন অনুযায়ী, সমীর ওয়াংখেড়ে নারকোটিক ড্রাগস অ্যান্ড সাইকোট্রপিক সাবস্টেন্সেস (এনডিপিএস) আইনের অধীনে বিশেষ আদালতের বিচারককে বলেছেন, ‍‘আমার বোন এবং মৃত মা সহ আমার পরিবারকে লক্ষ্যবস্তু করা হচ্ছে।’ সেই সঙ্গে সংবাদ সংস্থা আরও জানিয়েছে যে, এই মামলায় দু’টি হলফনামা দাখিল করা হয়েছে, একটি এনসিবি-র এবং অন্যটি ওয়াংখেড়ের। বার এবং বেঞ্চ-এর রিপোর্ট অনুযায়ী, কেন্দ্রীয় সংস্থা এবং সমীর ওয়াংখেড়ে আরিয়ান খান মামলার প্রতিবন্ধকতা তৈরির প্রচেষ্টা রোধ করতে এবং চলমান তদন্তকে বানচাল করার উদ্দেশ্য প্রতিরোধ করার জন্য নির্দেশ চেয়ে মুম্বই দায়রা আদালতে অভিযোগ করেছেন। এনসিবি বলেছে, প্রমাণ বা তদন্তের সঙ্গে কোনও আপোশ করা উচিত নয়।

ওয়াংখেড়ের আইনজীবী আদালতকে জানিয়েছেন, এই এনসিবি ডিরেক্টর ও তাঁর পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্ধে ব্যক্তিগত অভিযোগ করা হচ্ছে। সমীর ওয়াংখেড়ের আদালতে অভিযোগ তুলে প্রশ্ন করেন, ‍‘কেন আমার পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্ধে অভিযোগ তোলা হচ্ছে? এটা কি আমার তত্ত্বাবধায়ক পদের কারণে? এটা কি শুধু আমাকে তদন্ত থেকে বিমুখ করা এবং আদালতে ব্যর্থ প্রমাণ করার জন্য?’ সেই সঙ্গে তিনি বলেন, ‍‘আমি যেকোনও ধরনের তদন্তের জন্য প্রস্তুত। আমার ১৫ বছরের রেকর্ড আছে। কিন্তু শুধুমাত্র আমার ব্যক্তিগত জীবন এবং কাজকে টার্গেট করার জন্য এ ধরনের অভিযোগ করা উচিত নয়।’ রবিবার, ক্রুজ ড্রাগস মামলার একজন স্বাধীন সাক্ষী প্রভাকর সেইল দাবি করেছিলেন, এনসিবি আধিকারিক এবং পলাতক সাক্ষী কেপি গোসাভি সহ অন্যরা আরিয়ান খানকে ছেড়ে দেওয়ার জন্য ২৫ কোটি টাকা দাবি করেছিলেন। সেইল তাঁর হলফনামায় বলেছেন, তিনি গোসাভিকে ফোনে স্যাম ডি’সুজা নামে একজনকে ২৫ কোটি টাকার দাবির কথা বলতে শুনেছেন।

সেই সঙ্গে তিনি বলেন, ২ অক্টোবরের অভিযানের পরে আরিয়ান খানকে এনসিবি অফিসে আনার পরে সেটি ১৮ কোটি টাকায় নিষ্পত্তির জন্য আলোচনা হয়, যেখানে সমীর ওয়াংখেড়েকে ৮ কোটি টাকা দেওয়ার বিষয়টিও ছিল। সেই সঙ্গে সেইল দাবি করেন, এনসিবি কর্মকর্তারা তাকে নয় থেকে দশটি ফাঁকা কাগজে স্বাক্ষর করতে বাধ্য করে। যদিও, এনসিবি-র একজন সিনিয়র আধিকারিক প্রভাকর সেইলের হলফনামাকে ‍‘সম্পূর্ণ মিথ্যা এবং দূষিত’ বলে অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। এদিকে, ওয়াংখেড়ে রবিবার মুম্বই পুলিশ কমিশনার হেমন্ত নাগরালেকে চিঠি লিখে নিজের আইনি সুরক্ষা দাবি করে জানিয়েছেন, তাঁকে মিথ্যা ফাঁসানোর জন্য অজানা ব্যক্তিরা তাঁর বিরুদ্ধে ‍‘পরিকল্পিত’ ষড়যন্ত্র রচনা করেছে। বিশেষ পাবলিক প্রসিকিউটর অদ্বৈত শেঠনা আজ (সোমবার) আদালতকে জানিয়েছেন, এই ধরনের হলফনামা প্রকাশ মামলায় বাধা সৃষ্টি করবে, যার মধ্যে আরিয়ান খানের জামিন শুনানি রয়েছে যা মঙ্গলবার বোম্বে হাইকোর্টে শুনানির জন্য তালিকাভুক্ত।

News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন প্রথম কলকাতা অ্যাপ