Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

‘আমি জীবন্ত লাশ’! শিলিগুড়িতে আত্মস্মৃতিচারণায় মুখ্যমন্ত্রী

1 min read

।। প্রথম কলকাতা ।।

চারদিনের উত্তরবঙ্গ সফরের প্রথম দিন শিলিগুড়ির বাঘাযতীন পার্কে আয়োজিত বিজয়া সম্মমেলনীর অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আজ উত্তরবঙ্গের সেরা পুজো কমিটিগুলির হাতে বিশ্ব বাংলা পুরস্কার তুলে দেন তিনি। উপস্থিত ছিলেন গায়ক ইন্দ্রনীল সেন। তাঁর গলায় শোনা যায় মুখ্যমন্ত্রীর স্বরচিত গানের অ্যালবাম ‘জননী’ থেকে দু’টি গান। আজ উত্তরবঙ্গের প্রায় ৪৬০টি ক্লাবকে পুরস্কৃত করা হয়। আজকের অনুষ্ঠানে উপস্থিত হয়ে উত্তরবঙ্গের প্রত্যেকটি পুজো কমিটিকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানান মুখ্যমন্ত্রী। গলা খারাপ থাকা সত্ত্বেও আজ নিজের জীবনের কিছু কিছু অধ্যায়কে স্মরণ করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর কথায়, স্বাধীনতা পরবর্তী ক্ষেত্রে তিনিই একমাত্র রাজনীতিবিদ যিনি এত সারাজীবনে এত মার খাওয়ার পরেও এখনও বেঁচে আছেন। তাঁর মতো আরেকজন রাজনীতিবিদকে এই মুহূর্তে খুঁজে পেলে তিনি রাজনীতি ছেড়ে দেবেন বলেও ঘোষণা করেন।

News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন প্রথম কলকাতা অ্যাপ

নিজেকে ‘জীবন্ত লাশ’ বলে উল্লেখ করে মুখ্যমন্ত্রী জানান তাঁর সমস্ত শরীরে একাধিক অস্ত্রোপ্রচার হয়েছে, সারাটা জীবন নানান ঘাত-প্রতিঘাতের মধ্যে দিয়েই কেটেছে তাঁর। আজ নিজের লেখা একাধিক বইয়ের কথাও মুখ্যমন্ত্রী উল্লেখ করেন যা পড়লে তাঁর জীবনের অনেক অজানা ঘটনার কথা যাবে। পাশাপাশি তিনি বলেন, “বাংলাটা ত্রিপুরা নয়। সন্তোষ মোহন দেবের মেয়ের গায়ে হাত তুলছে। মারছে তো মারছেই, হাসপাতালে পর্যন্ত চিকিৎসা করতে দিচ্ছে না। আমরা থাকতে বাংলাকে ত্রিপুরা হতে দেব না।“ নির্বাচন পরবর্তী হিংসা নিয়ে যেখানে বিরোধী দলগুলি বারবার অভিযোগ এনেছে, এমনকি যে তদন্তের ভার এখনও সিবিআইয়ের হাতে সেই প্রসঙ্গে এদিন উত্তরবঙ্গের মানুষের কাছে মুখ্যমন্ত্রীর প্রশ্ন, “আপনারা তো ছিলেন উত্তরবঙ্গে। এখানে কটা হিংসা হয়েছে? বিজেপি ঘ্যাঁ ঘ্যাঁ করে বেড়াচ্ছে, হিংসা হয়েছে বলে। ত্রিপুরার দিকে তাকিয়ে দেখ। একটা মিছিল করতে দেয়না। চলে যান উত্তরপ্রদেশে, কাউকে ঢুকতে দেয় না।“

অন্যদিকে টিকাকরণ প্রসঙ্গে বলেন, “টিকাকরণে বাংলা প্রথম। যারা থালা বাজাচ্ছে তাঁদের বলতে চাই কাজটা করে থালা বাজান। টিকার উদ্ভব কিন্তু বাংলা থেকে। আমরা একটা টিকাও নষ্ট করিনি। আমাদের ১৪ কোটি টিকার প্রয়োজন, পেয়েছি ৭ কোটি। আমাকে দেওয়া হয়নি। তার মধ্যে ৪০ শতাংশ দ্বিতীয় ডোজ হয়েছে। ঢ্যাঁড়া পেটানো হচ্ছে ১০০ কোটি ডোজ দিয়ে দেওয়া হয়েছে! মাত্র ২৯ কোটি মানুষ ডবল ডোজ পেয়েছে। মিলঝুলকে জুমলা কর দিয়া! দেখানো হচ্ছে বাংলা তিন নম্বর। হ্যাঁ, বাংলা তো ছাগলের তৃতীয় ছানা! উত্তরপ্রদেশ গাদা গাদা টিকা পেয়েছে। বাংলাকে কেন দেওয়া হবে না। তারপরেও আমরা টিকা কিনে দিয়েছি। কোভ্যাক্সিন হল নরেন্দ্র মোদীর কোম্পানি, যেটা নিলে কোনো দেশে যাওয়া যাচ্ছে না। অথচ উনি আমেরিকা ঘুরে এলেন। ওই জন্য আমরা কোভিশিল্ড দিয়েছি।“ পাশপাশি, পেট্রোপণ্য, গ্যাসের দাম বৃদ্ধি প্রসঙ্গে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সংযোজন, “এরপর কয়লা, ঘুঁটে দিয়ে রান্না করতে হবে। কাজের বেলায় নেই কাজী। দাম বাড়িয়েই যাচ্ছে। আমরা এর প্রতিবাদ জানাই।“

News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন প্রথম কলকাতা অ্যাপ