Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

ভূমণ্ডলে নরকের দরজা; অবিশ্বাস্য হলেও জ্বলছে অর্ধশতাব্দী ধরে!

1 min read

।। প্রথম কলকাতা ।।

পৃথিবীর বুকে নরকের দরজা! শোনতে নিশ্চয়ই ভয়ংকর একই সাথে অবিশ্বাস্য লাগছে! তবে কেউ যদি আগ্রহ প্রকাশ করেন তবে এ জায়গাটি দেখতে যেতে হবে তুর্কমেনিস্তানে! তবে নরকের দরজার প্রকৃত রূপ দেখতে হলে আপনাকে বেছে নিতে রাতের আঁধার। তখন দেখা মিলবে রক্তিম আভা। মনে হবে পৃথিবীর বাইরে কোথাও দাঁড়িয়ে আছেন!

তুর্কমেনিস্তানের দরওয়াজা শহরের এই গ্যাসক্ষেত্রের অগ্নিমুখটি দেখতে প্রতিবছরই এই শহরে ছুটে আসেন হাজারো উৎসুক পর্যটক। ১৯৭১ সালে রাশিয়ার অনুসন্ধানকারীরা এটি আবিষ্কার করেছিলেন। এই খনি থেকে খনিজ তেল পাওয়া যাবে, এমনটিই ভেবেছিলেন অনুসন্ধানকারী দলের লোকজন। তেল উত্তোলনের জন্য আনাও হয়েছিল বিশাল বিশাল ড্রিল মেশিন। কিন্তু দেখা গেল কি, ড্রিল করলেই বেরিয়ে আসছে বিষাক্ত গ্যাস। পরে জানা যায়, খনিজ তেলের নয়, এটি আসলে প্রাকৃতিক গ্যাসের খনি।

তবে গ্যাসের বিষক্রিয়ায় মারা যেতে শুরু করেছিল পশুপাখি। মৃত্যুভয়ে পালাতে শুরু করে সেখানকার স্থানীয় মানুষও। পরে পশুপাখি, স্থানীয় মানুষ ও পরিবেশকে বাঁচাতে এক অদ্ভুত সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন স্থানীয় ভূতত্ত্ববিদ ও বিজ্ঞানীরা। তারা আগুন ধরিয়ে দিয়েছিলেন বিশাল গহবরটি থেকে বেরিয়ে আসা মিথেন গ্যাসে এই ভেবে যে, খনিতে থাকা গ্যাস কিছুদিনের মধ্যেই পুড়ে শেষ হয়ে যাবে। নিভে যাবে আগুন। বেঁচে যাবে পরিবেশ। কিন্তু বিজ্ঞানীদের সেই হিসাব-নিকাশ ভুলে পরিণত হয়।

এদিকে এতটা সময় পেরিয়ে গেলেও নেভেনি খনির আগুন। প্রতিবছর হাজার হাজার পর্যটক ভিড় করেন খনিটি দেখবার জন্য। রসিক পর্যটকরাই নাকি এর নাম দিয়েছেন, ‘নরকের দরজা!’

জানা যায়, ২০১০ সালে দেশটির অন্যন্য প্রাকৃতিক গ্যাস উত্তোলনের উপর প্রভাব পরার আশঙ্কা থেকে দেশটির রাষ্ট্রপতি এই গ্যাসক্ষেত্রটি বন্ধের কথা বলেছিলেন।

News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন প্রথম কলকাতা অ্যাপ