Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

মিষ্টির দোকান থেকে ৩ হাজার কোটি টাকার ব্যাংক, অদ্ভুত বেড়ে ওঠা চন্দ্র শেখর ঘোষের

1 min read

।। প্রথম কলকাতা ।।

১৯৬০ সালে ত্রিপুরার এক আদ্যপান্ত বাঙালি পরিবারে জন্ম চন্দ্র শেখর ঘোষের। বাবা হরিপদ ঘোষ ছিলেন ছোট্ট একটি মিষ্টি দোকানের মালিক। সেখানেই কাটতো ছোটবেলার বেশিরভাগ সময়। দোকানে কাজের পাশাপাশি চালিয়ে যেতেন পড়াশোনা। স্থানীয় সরকারি স্কুল থেকে পাশ করার পর পরিসংখ্যান বিষয়ে পড়তে চলে যান বাংলাদেশের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে।

তবে স্নাতক চলাকালীনই চন্দ্র শেখর ঘোষের জীবনে নেমে আসে অন্ধকার। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতক করার সময় ইহলোক ত্যাগ করেন বাবা হরিপদ ঘোষ। কাঁধে এসে পরে ৬ ভাই-বোনের দায়িত্ব। পড়াশুনো শেষ করার পর ৫ হাজার টাকা মাইনের একটি চাকরি করতে শুরু করেন চন্দ্র শেখর। পরিবারকে সামলাতে বেশ কয়েক বছর সেই চাকরি চালিয়ে যান।

কিন্তু গল্প মোড় নেয় ১৯৯০ এর শেষের দিকে। সেইসময় বাংলাদেশের ভিলেজ ওয়েলফেয়ার সোসাইটির প্রোগ্রাম হেড হিসাবে নিয়োগপত্র দেওয়া হয় তাকে। এক সাক্ষাৎকারে তিনি জানিয়েছেন, এই ওয়েলফেয়ার সোসাইটিতে কাজ করার সময় তিনি মাইক্রো-ফাইন্যান্স এন্টারপ্রাইজ খোলার আইডিয়া পান। সেখান থেকেই জন্ম নেয় আজকের ৩ হাজার কোটি টাকার বন্ধন ব্যাংক।

তবে শুনতে ভালো লাগলেও নিম্ন আয়ের দেশের এমন মাইক্রো-ফাইন্যান্স ইউনিট গড়ে তোলা সহজ ছিল না। আসলে চন্দ্র শেখর ঘোষের প্রথম থেকেই লক্ষ্য ছিল ঋণ থেকে বঞ্চিত দরিদ্র মানুষদের সাহায্য করে। বিশেষ করে পূর্ব ভারতের রাজ্যগুলিতে।

স্বপ্নকে বাস্তবায়ন করতে ধীরে ধীরে এগিয়ে যেতে শুরু করেন নিজের লক্ষ্যের দিকে। ২০০১ সালে তৈরি করেন বন্ধন-কোন্নগর। এই প্রতিষ্ঠানের প্রাথমিক লক্ষ্য ছিল গ্রামের মহিলাদের স্বাবলম্বী করে তোলা এবং ব্যবসার জন্য ক্ষুদ্র ঋণ প্রদান করা। সেই সময় হুগলি জেলার বিভিন্ন ছোট ছোট গ্রামে তিনি ভ্রমণ করতেন, প্রথমটায় গ্রামের মহিলারা তাকে সন্দেহের চোখে দেখতেন কারণ তিনি সেসব জায়গায় গিয়ে মহিলাদের নিজের ব্যবসা গড়ে তুলতে এবং সন্তানদের শিক্ষার জন্য অর্থ সাহায্য নেওয়ার জন্য ঋণের প্রস্তাব রাখতেন।

সময় লাগলেও আস্তে আস্তে সেই প্রস্তাব নিতে শুরু করেন হুগলি তথা গোটা পশ্চিমবঙ্গ এবং ত্রিপুরার মানুষ। ধীরে ধীরে এই মাইক্রো-ফাইন্যান্স ইউনিট ছড়িয়ে পরে ভারতের অন্যান্য রাজ্যেও। ২০১৫ সালে তিনি গড়ে তোলেন বন্ধন ব্যাংক। যার ভ্যালুয়েশন আজ ৩ হাজার কোটি টাকারও বেশি। বর্তমানে দেশজুড়ে বন্ধন ব্যাংকের ৫,৫০০ টি ব্রাঞ্চ রয়েছে। ৩৬ টি রাজ্য এবং কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলির মধ্যে ৩৪ টি রাজ্যে এই ব্যাংক সক্রিয় রূপে কাজ করে চলেছে, আজ ব্যাংকের মোট গ্রাহক সংখ্যা ২ কোটি ৩৫ লক্ষ।

News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন প্রথম কলকাতা অ্যাপ