Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

চন্দ্র-আভিযানে অনুপ্রাণিত হয়ে ইতিহাসে নাম লেখালেন বাংলাদেশি মেয়ে!

1 min read

।। প্রথম কলকাতা ।।

সময়টা ২০০৯ সাল। পাহাড় সমান স্বপ্ন বুকে নিয়ে বাবা-মায়ের সাথে যুক্তরাষ্টে পাড়ি জমান বাংলাদেশের সিলেটের মেয়ে মাহজাবিন। অধ্যবসায় ও কঠোর পরিশ্রমের মধ্য দিয়ে তিনি এখন মহাকাশ গবেষণা প্রতিষ্ঠান নাসার সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার! স্বপ্নের বাস্তবায়নের মধ্যে দিয়ে মাহজাবিন নাসায় নিয়োগ পাওয়া একমাত্র বাংলাদেশি প্রথম নারী হিসেবে ইতিহাসে ঠাঁই করে নিলেন! হ্যাঁ, মাহজাবিন বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশ গবেষণা প্রতিষ্ঠান নাসার একজন সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার। যদিও এর আগে নাসা, অ্যামাজনসহ বিশ্বের অনেক খ্যাতনামা কোম্পানি থেকে তিনি জবের অফার পেয়েছেন। কিন্তু লালিত স্বপ্নকে বাস্তবে রূপায়িত করতে নাসাকেই বেছে নেওয়া হয়!

মাহজাবিন যুক্তরাষ্ট্রের ওয়েইন স্টেইট ইউনিভার্সিটি পড়াকালীন দুই দফায় টেক্সাসের হিউস্টনে অবস্থিত নাসার জনসন স্পেস সেন্টারে ইন্টর্নশীপ করেছেন। প্রথম দফায় তিনি ডাটা এনালিস্ট ও দ্বিতীয় দফায় সফটওয়্যার ডেভেলপার হিসেবে মিশন কন্ট্রোলে কাজ করেন।সেই ছেলেবেলা থেকেই আমেরিকার মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসায় কাজ করার স্বপ্নে বিভোর ছিল মাহজাবিন। শৈশবে শোনা নাসার মহাকাশযান অ্যাপোলো-১১’র চন্দ্রাভিযানের গল্প তাকে বারবার অনুপ্রাণিত করেছে নাসায় কাজ করতে।

কাকতালীয় ঘটনা হল, তখন অ্যাপোলো-১১’র চাঁদে অবতরণের ৫০ বছর পূর্তি, আর সে সময়টাতে নাসায় দ্বিতীয় দফায় ইন্টার্নশিপ সম্পন্ন করে মাহজাবিন। যারা নিজের লালিত স্বপ্নকে বাস্তবে ধরতে অদম্য গতিতে ছুটছেন তাদের উদ্যেশ্যে মাহজাবিন বলেন, ‘আমি শিক্ষার্থীদের বলব, কোনো ভয় ছাড়াই স্বপ্নের পেছনে ছুটতে হবে। এখানে ব্যর্থ হওয়া স্বাভাবিক। আমিও অনেকবার ব্যর্থ হয়েছি, কিন্তু তা আমাকে স্বপ্নের পেছনে ছুটতে এবং আরও কঠোর পরিশ্রম থেকে দমিয়ে রাখতে পারেনি। আপনি পরিশ্রম করলে ও নিজের প্রতি সৎ থাকলে স্বপ্ন সত্যি হবে।’

News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন প্রথম কলকাতা অ্যাপ