Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

সরকারের ইন্ধনে মণ্ডপে হামলার ঘটনা ঘটেছে, তোপ বিএনপির

1 min read

।।প্রথম কলকাতা।।

কুমিল্লা ঘটনার মূল অভিযুক্ত ইকবাল গ্রেফতারের পর পুলিশের কাছে স্বীকারোক্তি দিয়েছে যে সে নিজেই মণ্ডপে কোরান শরিফ রেখেছিল। কিন্তু এতেও সব প্রশ্নের উত্তর মেলেনি। বাংলাদেশের বিভিন্ন সংগঠন ও বিরোধী দলগুলি প্রশ্ন তুলছে তথাকথিত একজন মাদকাসক্ত-ভবঘুরের পক্ষে কোনও ইন্ধন ছাড়া এ কাজ করা সম্ভব নয়। দেশের প্রধান বিরোধী দল বিএনপি সাফ জানিয়েছে, সরকারি ইন্ধন এবং সরকারের পৃষ্ঠপোষকতায় পূজামণ্ডপে হামলার ঘটনা ঘটেছে। শনিবার এ কথা বলেছেন, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়। তিনি বলেন, ‘এ ধরণের হামলার ঘটনা ন্যক্কারজনক। সরকার ও আইন প্রয়োগকারী সংস্থা যথাসময়ে ব্যবস্থা নিলে দেশে এমন হিংসাত্মক ঘটনা ঘটতো না। এ ঘটনায় যদি সরকার ব্যর্থতা স্বীকার না করে তাহলে বুঝতে হবে সরকার ইন্ধনদাতাদের একজন।’

শনিবার (২৩ অক্টোবর) কুমিল্লার হামলায় ক্ষতিগ্রস্ত নগরীর কাপড়িয়াপট্টিতে চাঁন্দময়ী রক্ষা কালী মন্দির পরিদর্শনে এসে গয়েশ্বরবাবু এসব কথা বলেন। কুমিল্লার পুজোমণ্ডপের ঘটনা প্রসঙ্গে গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, ‘এই ঘটনায় গ্রেফতার ইকবাল হোসেন ভবঘুরে, উম্মাদ। সে রাস্তায় রাস্তায় ঘোরে। তাহলে কারা তাকে ইন্ধন দিল, তা খুঁজে বের করতে হবে।’ সেই সঙ্গে তিনি বলেন, ‘নানুয়ার দীঘির পাড়ের ঘটনার পর সারাদেশে হিংসা ছড়িয়ে পড়ে। কুমিল্লায় কিছু অপরিচিত যুবক বাড়িঘর, মন্দিরে হামলা লুটপাট চালায়। অথচ পুলিশ মামলা সাজাচ্ছে বিএনপি-জামায়ত নেতাদের বিরুদ্ধে।

জামাতকে দিনে দেখা যায় না, রাতেও দেখা যায় না, তারা কীভাবে হামলা-ভাঙচুর করতে পারে? হিন্দু-মুসলমানকে মুখোমুখি দাঁড় করাতে এটা সরকারের ষড়যন্ত্র। না হলে ইন্ধনদাতাদের সরকার গ্রেফতার করছে না কেন?’ চাঁন্দময়ী রক্ষা কালী মন্দির পরিদর্শনের সময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা নিতাই রায় চৌধুরী, অজয় রায় চৌধুরী, গৌতম রায়, দেবাশিস চৌধুরী, অমলেন্দু দাস, কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আমিন-উর-রশিদ ইয়াসিন, সাংগঠনিক সম্পাদক (চট্টগ্রাম বিভাগ) মোস্তাক মিয়া প্রমুখ।

News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন প্রথম কলকাতা অ্যাপ