Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

AUS vs SA: সুপার টুয়েলভের প্রথম ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকাকে উড়িয়ে বিশ্বকাপ অভিযানের সূচনা অষ্ট্রেলিয়ার

1 min read

।। প্রথম কলকাতা ।।

দক্ষিণ আফ্রিকাঃ ১১৮/৯ (২০)
অষ্ট্রেলিয়াঃ ১২১/৫ (১৯.৪)

অষ্ট্রেলিয়া ৫ উইকেটে জয়ী

২০২১ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সুপার টুয়েলভের উদ্বোধনী ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকার মুখোমুখি হয়েছিল অষ্ট্রেলিয়া। একাধিক তারকা ক্রিকেটার থাকলেও কুড়ি ওভারের ফরম্যাটে বরাবরই নজর কাড়তে ব্যর্থ এই দুই দল। শেষ পাঁচটি টি-টোয়েন্টি সিরিজে পরাজয়ের পর সংযুক্ত আরব আমিরশাহিতে বিশ্বকাপ খেলতে এসেছেন অ্যারণ ফিঞ্চরা। অন্যদিকে টি-টোয়েন্টিতে দক্ষিণ আফ্রিকার ফর্মও আহামরি কিছু নয়। আজ সুপার টুয়েলভের প্রথম ম্যাচে বাভুমাদের বিরুদ্ধে পাঁচ উইকেটে জয় পেয়েছে অষ্ট্রেলিয়া।

আবু ধাবির শেখ জাইদ স্টেডিয়ামে টসে জিতে বোলিং করবার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন অজি অধিনায়ক অ্যারণ ফিঞ্চ। ফিঞ্চের সিদ্ধান্তকে সঠিক প্রমাণের পণ করেন প্রোটীয় ব্যাটাররা। পাওয়ার প্লে’র দ্বিতীয় ওভারে বল করতে আসা ম্যাক্সওয়েলের তৃতীয় বলেই বোল্ড হয়ে যান দক্ষিণ আফ্রিকার অধিনায়ক তেম্বা বাভুমা (৭ বলে ১২)। প্রোটীয় টপ অর্ডারকে দুমড়ে মুচড়ে দেওয়ার বাকি থাকা কাজটা সেরেছেন জশ হ্যাজেলউড। অজি পেসার প্রথমে কুইন্টন ডি কক (১২ বলে ৭) ও তারপর ভান রাসি ভান ডার দুসেন (৩ বলে ২)কে প্যাভিলিয়নের পথ দেখান। চার নম্বরে ব্যাট করতে এইডেন মার্করাম ৩৬ বলে ৪০ রানের দায়িত্বশীল ইনিংস না খেললে লজ্জার মুখে পড়তে হতো দক্ষিণ আফ্রিকাকে। ক্রিজে সেট হওয়ার পর উইকেট ছুঁড়ে দিয়েছেন হেনরিখ ক্লাসেন (১৩ বলে ১৩) ও ডেভিড মিলার ( ১৮ বলে ১৬)। শেষের দিকে কাগিসো রাবাডার ২৩ বলে ১৯ রানের দৌলতেই নির্ধারিত কুড়ি ওভারে ১১৮ রান তোলে দক্ষিণ আফ্রিকা। অষ্ট্রেলিয়ার পক্ষে বল হাতে সবচেয়ে সফল হ্যাজেলউড, ১৯ রানের বিনিময়ে তার শিকার ২ উইকেট। চার ওভারে ৩২ রান দিয়ে ২ উইকেট পেয়েছেন মিচেল স্টার্ক। স্পিনার অ্যাডাম জাম্পা ২টি ও ম্যাক্সওয়েল ১টি উইকেট তুলে নেন।

১১৯ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নামা অষ্ট্রেলিয়ারও শুরুটা ভালো হয়নি। ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারেই নর্খিয়ার শিকার হয়েছেন অজি অধিনায়ক অ্যারণ ফিঞ্চ (৫ বলে ০)। দীর্ঘদিন ধরে ফর্মে না থাকা ডেভিড ওয়ার্ণার (১৫ বলে ১৪) ভালো শুরু করেও নিজের উইকেট উপহার দেন রাবাডাকে। পাওয়ার প্লে’তে দুই উইকেট হারিয়ে স্কোরবোর্ডে মাত্র ২৮ রান তোলে অষ্ট্রেলিয়া। অষ্টম ওভারে কেশব মহারাজের বলে দারুণ ক্যাচ নিয়ে মিচেল মার্শকে (১৭ বলে ১১) ফেরান ভান ডার দুসেন। চার নম্বরে নেমে দায়িত্বশীল ইনিংস খেলে অষ্ট্রেলিয়াকে বিপদমুক্ত করেন স্টিভ স্মিথ। আইপিএলের ফর্ম ধরে রেখেছেন গ্লেন ম্যাক্সওয়েলও।

দক্ষিণ আফ্রিকার কেশব মহারাজ – তাবরেজ শামসি স্পিনজুটিকে সামলাতে একের পর এক রিভার্স স্যুইপ খেলেছেন অজি অলরাউন্ডার। শেষ ছয় ওভারে জয়ের জন্যে ৪৪ রান প্রয়োজন ছিল স্মিথদের। ম্যাচে ফেরবার অন্তিম প্রয়াস হিসাবে নর্খিয়াকে আক্রমণে ফেরান তেম্বা বাভুমা। অধিনায়ককে হতাশ করেননি নর্খিয়া। অষ্ট্রেলিয়াকে জয়ের দারপ্রান্তে এনে দাঁড় করানো স্মিথকে (৩৪ বলে ৩৫) ফেরান প্রোটীয় পেসার। তবে দুর্দান্ত ক্যাচের জন্যে এই উইকেটের অধিকাংশ কৃতিত্ব যাবে মার্করামের খাতায়। স্মিথের উইকেট হারানোর ধাক্কা সামলে ওঠার আগেই শামসির বলে স্যুইচ হিট খেলতে গিয়ে বোল্ড হয়ে যান ম্যাক্সওয়েল (২১ বলে ১৮)। সেট হয়ে যাওয়া দুই ব্যাটসম্যানের উইকেট খুইয়ে চাপে পড়ে গিয়েছিল অষ্ট্রেলিয়া। রাবাডার ১৭তম ওভারে দুটি চার মেরে অজি শিবিরে স্বস্তি এনে দেন ম্যাথিউ ওয়েড। শেষ দুই ওভারে জয়ের জন্যে ১৮ রান করতে হতো অষ্ট্রেলিয়াকে। নর্খিয়ার ১৯তম ওভারে একটি চার সহ ১০ রান সংগ্রহ করেন ওয়েড-স্টোইনিস জুটি। ডোয়ান প্রিটোরিউসের অন্তিম ওভারের প্রথম বলে দুই রান নেওয়ার পর দ্বিতীয় বলে চার মারেন স্টোইনিস। তৃতীয় বলটি ডট হলেও, চতুর্থ বলে চার মেরে জয় এনে দেন অজি অলরাউন্ডার। দুই বল হাতে রেখেই পাঁচ উইকেটে জয় পেলেন অ্যারণ ফিঞ্চরা।