Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

ডিভোর্স পেতে মরিয়া! নিজের পত্নীর নামেই প্রোফাইল পোস্ট ম্যাচমেকিং পোর্টালে

1 min read

।।সৌম্য বাগচী।।

বৌউয়ের হাত থেকে রেহাই পাওয়ার জন্য জন্য অদ্ভূত এই পরিকল্পনাটি দেখলে আপনার চোখ কপালে উঠতে বাধ্য। তামিলনাড়ুর তিরুভাল্লুর জেলার ৩৩ বছরের এক ব্যক্তি তাঁর ২৬ বছর বয়সী স্ত্রীর প্রোফাইল একটি বৈবাহিক ওয়েবসাইটে নিবন্ধ করেছেন। তিনি মনে করেছিলেন যে, ওই ম্যাচমেকিং পোর্টালের প্রোফাইল দেখে যদি একজন ‍‘ভাল’ জীবনসঙ্গী তাঁর স্ত্রী খুঁজে পান তবে তাঁকে ডিভোর্স দিয়ে দেবেন। উল্লিখিত ব্যক্তির নাম এস ওম কুমার। তিনি ভেলিয়ুর গ্রামের বাসিন্দা, পেশায় একজন সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার। কয়েক বছর আগে তিনি তাঁর গ্রামের এক মহিলার সঙ্গে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। এরপর দম্পতি বিদেশে চলে যান। দুর্ভাগ্যবশত বিয়ের এক বছরের মধ্যে দু’জনের সম্পর্কে চিড় ধরে।

ক্রমশ দূরত্ব বাড়তে শুরু করে করে দেয়। কুমার চাকরি ছেড়ে দিয়ে তাঁর জন্মস্থানে ফিরে আসেন। অবশ্য তাঁর স্ত্রী বিদেশেই থেকে যান। ১৭ সেপ্টেম্বর থেকে কুমারের স্ত্রীর পিতা পদ্মনাভন একাধিক পুরুষদের কাছ প্রচুর ফোন কল পেতে শুরু করেন। প্রত্যেকেই তাঁর মেয়ের প্রোফাইল দেখে ফোনে বিবাহের আগ্রহ প্রকাশ করেছিলেন। টাইমস অব ইন্ডিয়া প্রকাশিত একটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ম্যাচমেকিং পোর্টালটি পদ্মনাভনের সঙ্গেও যোগাযোগ করেছিল এবং তাঁকে ফি দিতে বলেছিল। ফোন কল পাওয়ার পরই কুমারের শ্বশুর পদ্মনাভন জানতে পারেন যে, কেউ তাঁর মেয়ের নামে একটি বিবাহের প্রোফাইল তৈরি করেছে। ৩০ সেপ্টেম্বর পদ্মনাভন তিরুভাল্লুর সাইবার সেলের কাছে গিয়ে বিষয়টি নিয়ে অভিযোগ দায়ের করেন। পরবর্তী তদন্তের ভিত্তিতে গত মঙ্গলবার কুমার গ্রেপ্তার হন। তিনি স্বীকার করেছেন যে, তাঁর স্ত্রীর প্রোফাইলটি ম্যাচমেকিং পোর্টালে পোস্ট করেছেন।

পুলিশ জানিয়েছে, কুমার ভেবেছিলেন, তাঁর স্ত্রীর প্রোফাইল দেখে একজন উপযুক্ত ব্যক্তি যদি পাওয়া যায় তবে তাঁর স্ত্রী ডিভোর্স পেপারে সই করে দেবেন। মহারাষ্ট্রের অপর একটি ঘটনায় ২৭ বছরের এক যুবক তার ২১ বছর বয়সী স্ত্রীকে অস্বাভাবিক যৌনতা করতে বাধ্য করে, তাঁকে মারধর করে এবং সোশ্যাল মিডিয়ায় তাঁর আপত্তিকর ছবি এবং ভিডিও ক্লিপ আপলোড করে। এই বিষয়ে তাঁর স্ত্রী মহারাষ্ট্রের নাগপুরের নন্দনবন থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন। নির্যাতিতা ওই মহিলা আরও অভিযোগ করেন যে, অভিযুক্ত তাঁর সঙ্গে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হওয়ার আগে নিজের প্রথম বিয়ের কথা জানায়নি। তাঁর অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ তাঁর স্বামীর বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির প্রাসঙ্গিক বিধানের অধীনে একটি মামলা দায়ের করেছে।

News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন প্রথম কলকাতা অ্যাপ

Categories