Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

জল্পনার অবসান! মেগা অকশানের আগে প্রতিটি দলকে চারটি রিটেনশানের সুযোগ দেবে বিসিসিআই : সূত্র

1 min read

।। প্রথম কলকাতা ।।

আইপিএলের ২০২১ সংস্করণের সমাপ্তির পর থেকেই ক্রিকেট অনুরাগীদের আলোচনায় জায়গা করে নেয় ২০২০ মেগা অকশান ও রিটেনশানের নিয়মাবলী সংক্রান্ত বিষয়। আগামী বছর থেকেই ৮দলীয় প্রতিযোগিতায় যোগ দেবে নয়া দুই দল। প্রত্যেককেই সমান সুযোগ দিতে মেগা অকশানের আয়োজন করছে বিসিসিআই। আপাতত রিটেনশানের নিয়মাবলী নিয়ে সরকারী ঘোষণা করেনি ভারতীয় বোর্ড।

২০১৮ সালের নিলামে প্রতিটি দলকে তিনটি রিটেনশানের সুযোগ দেওয়ার পাশাপাশি আরটিএম কার্ড পলিসি এনেছিল বিসিসিআই। প্রতিটি ফ্র‍্যাঞ্চাইজির কাছে সুযোগ ছিল নিজেদের কোর দল ধরে রাখার। ২০২২ মেগা অকশানের আগে সংশ্লিষ্ট মহল থেকে জানা গিয়েছে চারটি রিটেনশনের বিষয়ে একমত হয়েছে বিসিসিআই ও ফ্র‍্যাঞ্চাইজিগুলি। ক্রিকবাজের প্রতিবেদন অনুযায়ী – ” একটি ফ্র‍্যাঞ্চাইজি সর্বোচ্চ তিন ভারতীয় ও দুই বিদেশী ক্রিকেটার রিটেন করতে পারবে। তবে রিটেন করা ক্রিকেটারের সংখ্যা চারের অধিক হতে পারবে না।” আবার জাতীয় দলে না খেলা ক্রিকেটারদের রিটেন করতে গেলে সেই সংখ্যাও দুইয়ের বেশি হতে পারবে না।

৯০ কোটির অঙ্ক

বিভিন্ন সূত্র থেকে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী প্রতিটি ফ্র‍্যাঞ্চাইজিকে দল গঠনের জন্যে প্লেয়ার পার্সে ৯০ কোটি টাকা দেওয়া হবে। পরবর্তী দুই বছরে টাকার অঙ্ক বাড়িয়ে ৯৫ ও ১০০ কোটি করা হবে। তবে কোনও ফ্র‍্যাঞ্চাইজি যদি চার ক্রিকেটারকে রিটেন করে সেক্ষেত্রে তাদের প্লেয়ার পার্সের ৪০-৪৫% অর্থ ওই খাতেই খরচ হয়ে যাবে। ক্রিকবাজের প্রতিবেদন অনুযায়ী বিসিসিআই বর্তমান ৮ ফ্র‍্যাঞ্চাইজিকে জানিয়েছে নতুন দুই ফ্র‍্যাঞ্চাইজি নিলামের বাইরে থেকেও ২-৩ জন ক্রিকেটার বেছে নেওয়ার সুযোগ পাবে। এই ২-৩ ক্রিকেটারদের মধ্যে বিদেশী ক্রিকেটারও থাকতে পারে। এইবারের মেগা অকশানে রাইট টু ম্যাচ পলিসি রাখা হবে না বলেই সংশ্লিষ্ট মহলের ধারণা। আপাতত রিটেনশান পলিসির বিষয়ে সরকারী ঘোষণা করা নাহলেও আগামী ২৫শে অক্টোবর নতুন দুই দল ঘোষণার সঙ্গে এই বিষয়েও নিজেদের সিদ্ধান্ত জানাবে ভারতীয় বোর্ড।