Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

অনলাইন গেম খেলে মোটা অংকের দেনা,বীরভূমের সুকান্ত ফাঁদলো অন্য গল্প

1 min read

।। প্রথম কলকাতা ।।

মামাবাড়িতে ঘুরতে যাচ্ছি বলে দিন চারেক আগে এক ব্যক্তি আর বাড়ি ফেরে না। এরপর হঠাৎ করে পরিবারের কাছে হোয়াটসঅ্যাপে সেই ব্যক্তির নম্বর থেকেই ম্যাসেজ আসে যে, তাঁকে অপহরণ করা হয়েছে এবং এই মুহূর্তে কুড়ি হাজার টাকা না দিলে তাঁর হাতের আঙ্গুল কেটে নেওয়া হবে। কিন্তু, পরিবারের সন্দেহ বেশ কয়েক হাজার দেনা হয়ে যাওয়ায় সে নিজে আত্মগোপন করে অপহরণের গল্প ফেঁদেছে। অপহৃত ব্যক্তির নাম সুকান্ত হালদার (৩৫)। ঘটনাটি ঘটেছে বীরভূমের নাকাশিপাড়া থানা এলাকার বীরপুর গ্রামে।

সুকান্ত হালদার বিগত বেশ কিছু দিন তেহট্টে মামাবাড়ি যাচ্ছি বলে বাড়ি থেকে বের হয়। এরপর সে মামাবাড়িতে যায়। দিন চারেক আগে সুকান্ত মামাবাড়ি থেকে বেরিয়ে নিজের বাড়ির উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করে, সেইদিনই পৌঁছে যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু চার দিন পার হয়ে গেলেও সে বাড়িতে ফেরেনি। এরই মধ্যে পুলিশের কাছে অভিযোগ জানিয়েছে পরিবার। তবে, একদিন আগে একটি তাৎপর্যপূর্ণ ঘটনা ঘটেছে। সেটি হল, সুকান্তর হোয়াটসঅ্যাপ নম্বর থেকেই তাঁর জামাইবাবুর কাছে কুড়ি হাজার টাকার মুক্তিপণের একটি মেসেজ এসছে। মেসেজে আরও বলা হয়েছে, টাকা না দিলে তাঁর (সুকান্ত) হাতের আঙ্গুল কেটে নেওয়া হবে। এর পরেই পরিবারের মনে সন্দেহ তৈরি হয়।

জানা গেছে, সুকান্ত অনলাইন তাস বা র‍্যামি খেলত। আর এই তাসের নেশায় সে বেশ কয়েক হাজার টাকা দেনা হয়ে যায়। তাছাড়া সামান্য দর্জির কাজ করা সুকান্তর পরিবার চালাতে গিয়েও আগে বাজারে ৫০ হাজার টাকা ধার ছিল। আর সেই ধারের টাকা পরিশোধ করার দিন পার হবার পরেই সে আচমকা নিখোঁজ হয়। এখন কোনোভাবে অর্থ আদায়ের উদ্দেশ্যে সে দিদি জামাইবাবুর কাছে অপহরণের গল্প ফেঁদেছে বলেই তাঁদের সন্দেহ। মুক্তিপণ চাওয়ার পর বহুবার সুকান্তর নম্বরে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও উত্তর মেলেনি। পরিবার সূত্রে আরও জানা গেছে, সুকান্ত মানসিকভাবে কিছুটা অসুস্থ, বেশ কয়েক বছর আগেও সে বাড়ি থেকে বেরিয়ে গিয়ে রাস্তায় রাস্তায় ঘুরে বেড়াত। তবে, গোটা ঘটনাতেই চিন্তিত পরিবারবর্গ। আদৌ তাঁরা যা ভাবছে ঘটনা কি সেই রকম নাকি সত্যিই অপহরণ করা হয়েছে সুকান্তকে তা নিয়ে ক্রমেই জল্পনা বাড়ছে।

News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন প্রথম কলকাতা অ্যাপ