Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

একাধিক জায়গায় বন্যার ভয়ঙ্কর তাণ্ডব ! তোর্সায় তলিয়ে গেল দুই শিশু

1 min read

।। প্রথম কলকাতা ।।

দিনের পর দিন প্রকৃতি যেন আধুনিক মানব সভ্যতার থেকে প্রতিশোধ নিতে চাইছে। একাধিক জায়গায় নির্মম ভাবে চলছে বন্যার তান্ডব। বিশেষ করে জল যন্ত্রণায় ভুগছেন উপকূলবর্তী এবং পাহাড়ের ধস প্রবণ এলাকার মানুষরা। এর মাঝখানে আটকে পড়ে আছেন বহু পর্যটক। ইতিমধ্যে উত্তরাখণ্ডে মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে প্রায় ৪৬ জনে। জলপাইগুড়ির অবস্থাও খুব ভয়ংকর। তোর্সা নদীতে অস্বাভাবিক বন্যায় তলিয়ে গেছে দুই ছোট্ট শিশু। কয়েকদিনের পরপর বৃষ্টিতে ৫৫ নম্বর এবং ১০ নম্বর জাতীয় সড়কে ধস নেমেছে।

দার্জিলিংয়ের একাধিক রাস্তা ধসের কারণে প্রায় বন্ধ। যান চলাচল বন্ধ হয়ে গিয়েছে লাভা, কালিম্পং ,গরুবাথান ,আলগারা প্রভৃতি এলাকাগুলিতে। অপরদিকে নৈনিতালে চলছে উদ্ধার কার্য, কেদারনাথে আটকে রয়েছেন রাজ্যের বহু পর্যটক। একদিকে বিদ্যুৎ নেই অপরদিকে ফুরিয়ে আসছে জ্বালানি। উত্তরবঙ্গে ভারী বৃষ্টির সর্তকতা জারি করা হয়েছে। রীতিমতো বিশাল জল ভাণ্ডার নিয়ে ফুঁসছে তিস্তা সহ একাধিক নদী। কয়েকটি স্থানে বিপদসীমার উপর জল জমে গেছে, পাশাপাশি জলপাইগুড়ির নিচু এলাকাগুলি পুরোপুরি জলমগ্ন। অপরদিকে ডুয়ার্সেও বিপদের আশঙ্কা ধীরে ধীরে বৃদ্ধি পাচ্ছে। তিস্তা নদী চোখ রাঙাচ্ছে কোচবিহারেও।

মেখলিগঞ্জে জল ঢুকে রাস্তার উপর দিয়ে বয়ে যাচ্ছে গুরুগম্ভীর তিস্তা। বন্যা থেকে রেহাই পায়নি বাঁকুড়াও। গন্ধেশ্বরী নদীর উপর তৈরি অস্থায়ী মানকানালি সেতু বৃষ্টিতে ভেঙে তছনছ হয়ে গেছে। পুজোর সময় জেলা পরিষদের উদ্যোগে এই সেতুটি নির্মাণ করা হয়েছিল। আপাতত এলাকাবাসীর অভিযোগ আর্থিক দুর্নীতির দিকে।জল ভোগান্তি থেকে রেহাই পাচ্ছে না দক্ষিণ ২৪ পরগনার কাকদ্বীপ এলাকার মানুষজন। লাগাতার বৃষ্টিতে অধিকাংশ বাড়ি প্রায় জলমগ্ন। জল বিপর্যয়ের জন্য খোলা হয়েছে কন্ট্রোল রুম। অপরদিকে বকখালি পর্যটন কেন্দ্র গুলি বৃষ্টি এবং জলোচ্ছ্বাসে অত্যন্ত ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এছাড়াও ওই এলাকা সংলগ্ন বসবাসকারী মানুষদের যন্ত্রণার ভোগান্তি বিন্দুমাত্র কমেনি।

News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন প্রথম কলকাতা অ্যাপ