Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

বড় খবর: রাজস্থানে চারটি মেডিকেল কলেজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন প্রধানমন্ত্রীর

1 min read


।।প্রথম কলকাতা।।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বৃহস্পতিবার রাজস্থানে চারটি নতুন মেডিকেল কলেজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করার পাশাপাশি রাজ্যটির মুখ্যমন্ত্রী অশোক গেহলটকে তাঁর প্রতি আস্থা এবং রাজ্যের উন্নয়নে কাজ করার জন্য ধন্যবাদ জানান। গেহলট এর আগে প্রধানমন্ত্রীকে জানিয়েছিলেন যে, রাজ্যে মুলতুবি থাকা কাজের একটি দীর্ঘ তালিকা রয়েছে। বাঁশওয়ারা, সিরোহি, হনুমানগড় এবং দৌসা জেলার চারটি নতুন মেডিকেল কলেজের জন্য রাজস্থানের জনগণকে অভিনন্দন জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি জানান যে, ২০১৪ সালের পরে, রাজস্থানে কেন্দ্রের দ্বারা ২৩টি মেডিকেল কলেজ অনুমোদন পেয়েছে, যার মধ্যে সাতটি মেডিকেল কলেজ ইতিমধ্যেই চালু হয়েছে। এদিনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের ভার্চুয়াল অনুষ্ঠানে নরেন্দ্র মোদী বলেন, ‍‘আমি রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রীর অনুরোধ শুনছিলাম। তিনি কাজের একটি দীর্ঘ তালিকা সামনে রেখেছেন। আমি রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানাই যে তিনি আমার উপর এতটা বিশ্বাস রেখেছেন।

যদিও আমাদের দু’জনের মতাদর্শ এবং দল ভিন্ন, কিন্তু এই বন্ধুত্ব ও বিশ্বাস গণতন্ত্রের একটি বড় শক্তি।’ প্রধানমন্ত্রী এদিন বলেন, ‍‘গত ১০০ বছরের সবচেয়ে বড় মহামারী বিশ্বের স্বাস্থ্য খাতকে একটি শিক্ষা দিয়েছে। প্রতিটি দেশ তার নিজস্ব উপায়ে এই স্বাস্থ্য সংকট মোকাবেলায় নিযুক্ত। এই দুর্যোগের মধ্যে ভারত তার শক্তি এবং আত্মনির্ভরশীলতা বৃদ্ধির সংকল্প করেছে।’ সেই সঙ্গে এদিনের অনুষ্ঠানে মোদি বলেন,‍ ‘আমরা দেশের স্বাস্থ্য খাতকে সঠিক ভাবে রূপান্তরিত করার জন্য একটি জাতীয় দৃষ্টিভঙ্গি এবং জাতীয় স্বাস্থ্য নীতি নিয়ে কাজ করেছি। স্বচ্ছ ভারত অভিযান থেকে শুরু করে আয়ুষ্মান ভারত এবং এখন আয়ুষ্মান ভারত ডিজিটাল মিশন, এই ধরনের অনেক প্রচেষ্টা এই পদ্ধতির অংশ।’ পাশিাপাশি তিনি উল্লেখ করেন, রাজস্থানে প্রায় ৩.৫ লক্ষ মানুষ আয়ুষ্মান ভারত যোজনার অধীনে বিনামূল্যে চিকিৎসা পেয়েছেন এবং রাজ্য প্রায় আড়াই হাজার স্বাস্থ্য ও সুস্থতা কেন্দ্রের কাজ শুরু হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‍‘গত ৬-৭ বছরে দেশে ১৭০টিরও বেশি নতুন মেডিকেল কলেজ স্থাপন করা হয়েছে এবং একশটিরও বেশি নতুন মেডিকেল কলেজের কাজ দ্রুততার সঙ্গে হচ্ছে। তিনি উল্লেখ করেন, ‍‘২০১৪ সালে দেশে মেডিকেল স্নাতক এবং স্নাতকোত্তর মোট আসন সংখ্যা ছিল প্রায় ৮২,০০০। আজ সেই সংখ্যা দাঁড়িয়েছে এক লক্ষ চল্লিশ হাজারে।’ সেই সঙ্গে তিনি বলেন, জাতীয় চিকিৎসা কমিশনের আবির্ভাবের সঙ্গে সঙ্গে অতীতের সমস্যা ও প্রশ্নের অনেকটাই সমাধান করা হয়েছে। এদিনের অনুষ্ঠানে প্রদানমন্ত্রী শৌচাগার, বিদ্যুৎ, গ্যাস সংযোগের মাধ্যমে জীবনযাত্রার স্বাচ্ছন্দ্যের কথাও উল্লেখ করেন। তিনি বলেন, ‍‘আজ রাজ্যে জল জীবন মিশনের দ্বারা ২১ লক্ষেরও বেশি পরিবার পাইপের মাধ্যমে জল পাচ্ছেন। রাজস্থানের ও ভারতের উন্নয়নের গতি বাড়ায় দরিদ্র পরিবারের জন্য এই রাজ্যে ১৩ লক্ষেরও বেশি পাকা ঘর তৈরি করা হয়েছে।’

News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন প্রথম কলকাতা অ্যাপ

Categories